সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ১২:২৪ অপরাহ্ন


গুমনামি বাবাই কি নেতাজি? জেনে নেই কিছু অজানা তথ্য

গুমনামি বাবাই কি নেতাজি

জয়দ্বীপ পালঃ ১৯ সেপ্টেম্বর, ১৯৮৫। তেরঙা পতাকায় মোড়া দেহটি বের করে আনা হল রাম ভবন থেকে। শবযাত্রী মাত্র ১৩ জন। বাকরুদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে রয়েছেন ডা. আর পি মিশ্র, ডা. প্রিয়ব্রত বন্দ্যোপাধ্যায়, সরস্বতী দেবী শুক্লা আর রামকিশোর পান্ডা। সরযূ নদীর ধারে গুপ্তার ঘাটে শুরু হল গুমনামি বাবা বা ভগবানজির শেষকৃত্য। চিতায় আগুন লাগানো হতেই রামকিশোর কাঁদতে কাঁদতে বললেন, “যাঁকে শেষ বিদায় জানাতে ১৩ লাখ মানুষের উপস্থিত থাকার কথা তাঁর মৃত্যুর পর মাত্র ১৩ জন রয়েছি!”
উত্তরপ্রদেশের গুমনামি বাবাই হলেন নেতাজি– এমন দাবি তুলেছেন বহু বিশিষ্ট মানুষ। কারণ, লম্বা দাড়ি, গোল চশমার মানুষটিকে দেখতে ছিল হুবহু সুভাষচন্দ্র বসুর মতো। শুক্রবার নেতাজি সংক্রান্ত প্রকাশিত গোপন ফাইলেও ‘সাধু’র উল্লেখ রয়েছে। নেতাজির অন্তর্ধানের চার বছর বাদে কলকাতার গোয়েন্দা অফিসার অনিল ভট্টাচার্য অতি গোপন একটি নোটে লিখেছিলেন, “ধারওয়ার (বম্বে) হইতে ভিড়াইয়া রুদ্রাইয়া কাম্বলি শ্রী শরত্ বসুকে জানাইতেছে যে, ‘সাধু’ ভাল আছে এবং স্ট্যালিন কবে ভারতে আসিবে লেখক তাহা জানিতে চাহিতেছে।
এরপরই নতুন করে প্রশ্ন উঠছে, তবে কি গুমনামি সাধু বাবাকেই ইঙ্গিত করেছিলেন অনিলবাবু?শেষ জীবন কাটিয়েছিলেন ফৈজাবাদের রাম ভবনে। ১৯৮৬ সালে তাঁর মৃত্যুর পর তাঁর পরিচয় নিয়ে বিতর্ক শুরু হয়। সুভাষ চন্দ্র বসুর ভাইঝি ললিতা বসুও দাবি করেন, গুমনামি বাবাই নেতাজি।
ললিতা বসুর আবেদনের ভিত্তিতেই এলাহাবাদ কোর্টের লখনউ বেঞ্চ জেলা প্রশাসনকে গুমনামি বাবার যাবতীয় সরঞ্জাম রক্ষা করার নির্দেশ দেয়। গত ৩০ বছর ধরে জেলা ট্রেজারিতে রক্ষিত ছিল গুমনামি বাবার যাবতীয় জিনিসপত্র। এই ইস্যুতে ফের হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন রাম ভবনের মালিক শক্তি সিং।
২০১৩ সালে রামভবন থেকে উদ্ধার হওয়া গুমনামি বাবার সরঞ্জাম সংগ্রহশালায় রাখতে উত্তরপ্রদেশ সরকারকে নির্দেশ দেয় এলাহাবাদ হাইকোর্ট। সেই সামগ্রী সামনে আসতে বিতর্ক আরও জোরাল হয়েছে। গুমনামি বাবার সরঞ্জামের মধ্যে ছিল নেতাজি পরিবারের দুটি বহু পুরনো ছবি।
একটি ছবি নেতাজির বাবা জানকিনাথ বসু ও মা প্রভাবতী দেবীর। অন্যটি বাবা-মা সহ মোট ২২ জনের একটি পারিবারিক ছবি। একটি রোলেক্স ঘড়ি, একটি চশমা। নেতাজি পরিবারের সদস্যদের লেখা চিঠি। কয়েকটি সংবাদপত্রের কাটিং। আজাদ হিন্দ ফৌজের উর্দি। গুমনামি বাবার মৃত্যুর পর তাঁর সামগ্রী ২৪টি বাক্সে ফৈজাবাদের সংগ্রহশালায় রাখা রয়েছে। তাতে আছে গোল ফ্রেমের চশমা, জার্মানি ও ইতালির সিগার, বেলজিয়ান টাইপ রাইটার, স্বাধীনতার আগের ও পরের বহু সংবাদপত্র। তার মধ্যে কয়েকটি উক্তি পেন দিয়ে কেটে দেওয়া। কয়েক বাক্স আন্তর্জাতিক তথ্যসমৃদ্ধ বই রয়েছে। এর মধ্যে বেশকিছু ‘বোন’-এর কাছ থেকে উপহার পেয়েছিলেন। এছাড়াও রয়েছে পারিবারিক ছবি।
এলাহাবাদ হাইকোর্টে লখনউ বেঞ্চ গুমনামি বাবার ব্যবহার্য সামগ্রি ও নথিপত্র বৈজ্ঞানিকভাবে সংরক্ষণের নির্দেশ দিয়েছে। অখিলেশ যাদব সরকার এজন্য সাড়ে ১১ কোটি টাকা বরাদ্দ করেন। ইতিমধ্যেই এই সংরক্ষণ প্রক্রিয়া শুরু হয়ে গেছে। চালু হয়েছে ডিজিটাইজেশনের কাজ। হাইকোর্টের রায় এবং তা মেনে নিয়ে উত্তরপ্রদেশ প্রশাসনের এই পদক্ষেপের অর্থ প্রকারন্তরে গুমনামি বাবাকে ঘিরে নেতাজিকেন্দ্রিক রহস্যকে মেনে নেওয়া। ” গুমনামি বাবার হাতের লেখার সঙ্গেও নেতাজির লেখার প্রচুর মিল খুঁজে পেয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। গুমনামি বাবা তাঁর অনুগামীদের জানিয়েছিলেন, রাশিয়ায় কীভাবে তিনি গিয়েছিলেন, সেখানে কতদিন জেলবন্দি ছিলেন, ১৯৪৯ সালে কীভাবে সোভিয়েত রাশিয়া ছেড়ে পালিয়ে এসেছিলেন। এরপর তিনি এশিয়ায় মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ রুখতে বিভিন্ন্ কর্মকাণ্ডে যোগ দেন। নেতাজি-ঘনিষ্ঠ লীলা রায় গোপনে গুমনামি বাবাকে চিঠি লিখতেন। সেইসব চিঠির হদিশও মিলেছে। সেই সময় লেখা চিঠির হস্তাক্ষরের সঙ্গে নেতাজির হাতের লেখার মিল পাওয়া যায়। ১৯৪৫ সালের পর নেতাজি কেন সাধুর ছদ্মবেশ নিয়েছিলেন, কেন তিনি প্রকাশ্যে আসেননি এমন বহু প্রশ্নের উত্তর অজানা রয়ে গিয়েছে। গুমনামি বাবাই যদি নেতাজি হন, তাহলে ‘সাধু’র বেশে থাকলেও তিনি যে বিশ্ব-রাজনীতি নিয়ে মগ্ন ছিলেন তা বোঝা যায়।
অনেকের সাথে যোগাযোগ ছিল গুমনামি বাবার।
সুরজিত দাশগুপ্ত:
৬৪ বছরের সুরজিত বাবু TIMES of INDIA কে এক সাক্ষাত্কারে জানিয়েছেন সেদিনের কথা তিনি কোনও দিন ভুলতে পারবেন না যেদিন তিনি প্রথম উত্তর প্রদেশের ফৈজাবাদে রামভবনে গুমনামি বাবা বা ভগবানজী কে দেখেন। তিনি ভক্ত দের সঙ্গে সরাসরি দেখা করতেন না। একটি ঘরে বাবা পর্দার পিছনে বসতেন সামনে গিয়ে এক একজন ভক্ত বসে তাঁর সাথে কথা বলার সুযোগ পেতেন। এভাবে কোনো ভক্তের সাথে ৩-৪ বার সাক্ষাত্কারের পর তাকে বিশ্বস্ত মনে হলে বাবা পর্দার আড়াল সরিয়ে তার সাথে সামনা সামনি কথা বলতেন। সুরজিত বাবু সেই বিশ্বস্ত মানুষ গুলির এক জন। তার কথায়- ” আমার কোনও ভুল হয়নি আমি নিশ্চিত যে উনিই নেতাজী । আমরা ছবিতে তাঁকে যেমন দেখি তার থেকেও মাথার চুল পাতলা হয়ে গেছিল, মুখে লম্বা দাঁড়ি ছিল। কিন্তু তাঁর সমস্ত বৈশিষ্ট্য একই ছিল। শুধু মাত্র তাঁর বয়সটা বেড়ে গেছিল। তাঁর চোখ দুটি এতটাই পাওয়ার ফুল ছিল যে আমি বেশীক্ষণ তার দিকে তাকিয়ে থাকতে পারিনি।”
বিজয় নাগ:
৭৬ বছরের বিজয় বাবু ৩১ বছর বয়সে প্রথম বার ভগবানজীর সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পান। তিনি মোট ১৪ বার তার সাথে সাক্ষাত করেন। ভগবানজীর অনুরোধেই বিজয় বাবু নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর বাবা-মা এবং স্কুলের শিক্ষকের ছবি যোগাড় করে তাঁর কাছে পৌছে দিয়ে আসেন।
পবিত্র মোহন রায়:
পবিত্র বাবু ছিলেন INA এর secret service agent. তিনিই প্রথম লীলা রায়কে ভগবানজীর সম্বন্ধে বলেন।
অতুল সেন:
অতুল বাবু নেতাজীর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ছিলেন। ১৯৬২ সালের এপ্রিল মাসে নিমসরে তিনি প্রথম গুমনামি বাবার সঙ্গে দেখা করেন। ওই বছরই কোলকাতায় এসে তিনি পবিত্র মোহন রায় এবং ঐতিহাসিক রমেশ চন্দ্র মজুমদারের সঙ্গে নেতাজীর বিষয়ে আলোচনা করেন। এমনকি পবিত্র বাবু চাচা নেহরুকে চিঠি লিখে জানান যে নেতাজী জীবিত। তিনি নেতাজীর কথায় ১৯৩০ সালে ঢাকা থেকে নির্বাচন লড়ে জয়লাভ করেন।
সুনীল গুপ্ত:
দেশে যেখানে যেখানে নেতাজীর উপস্থিতির কথা শোনা গেছে সেখানে গিয়ে খোঁজ খবর করার জন্য নেতাজীর দাদা সুরেশ চন্দ্র বসু সুনীল গুপ্ত কে নিযুক্ত করেছিলেন । সুনীল বাবু ভগবানজীর খোঁজ পেয়ে ১৯৬২ সালে নীমসরে তার সাথে দেখা করতে যান। এরপর প্রতিটি দূর্গাপূজায় এবং ২৩শে জানুয়ারিতে (নেতাজীর জন্মদিন) তিনি গুমনামি বাবার সঙ্গে দেখা করতে গেছেন ।
লীলা রায়:
১৯২২ থেকে ১৯৪১ সাল পর্যন্ত নেতাজীর সংগ্রামের অন্যতম সহযোগী ছিলেন লীলা রায়। ১৯৬৩ সালে তিনি গুমনামি বাবার সঙ্গে দেখা করেন। ১৯৭০ সালের ১১ই জুন এই মহীয়সীর পরলোক গমনের আগ পর্যন্ত তিনি নিয়মিত ভগবানজীকে টাকা ও নেতাজীর পছন্দের জিনিসপত্র পাঠিয়ে গেছেন । নেতাজী যেমন লীলা রায়কে ‘লী’ বলে ডাকতেন তেমনি ভগবানজী লীলা রায়কে যে সমস্ত চিঠি লিখেছেন তাতেও তাকে ‘লী’ বলেই উল্লেখ করেছেন ।
রীতা ব্যানার্জি:
নেতাজী রীতাকে ‘ফুলওয়া রাণী’ আর তার স্বামীকে ‘বাছা’ বলে ডাকতেন। নেতাজীর একটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য ছিল, তাঁর চোখের দিকে সরাসরি বেশিক্ষণ তাকিয়ে থাকা যেত না। এতই নিশ্পাপ ও জ্যোতীপূর্ণ ছিল তাঁর দৃষ্টি । রীতা বলেন, তাঁর চোখের দিকে তাকাতে পারিনি, এক পলক দেখা মাত্র দৃষ্টি নত করতে বাধ্য হয়েছি।
জ্ঞানী গুরজীত সিং খালসা:
ব্রহ্মকুন্ড সাহিব গুরদ্বারার প্রধান পুরোহিত। তিনি যখন ভগবানজীকে দেখেন তখন তার বয়স ১৭ বছর ।
সরস্বতী দেবী:
তিনি ভগবানজী এবং তাঁর কাছে আগত অতিথিদের জন্য রান্না করতেন।
উপরের মানুষগুলি প্রত্যেকেই দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করতেন ভগবানজী বা গুমনামি বাবা আর কেউ নন স্বয়ং নেতাজী। মুখার্জি কমিশনের প্রধান শ্রী মনোজ কুমার মুখার্জি বলেছিলেন, “আমি ১০০ শতাংশ নিশ্চিত যে, It was Him”..
নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর অন্তর্ধান নিয়ে যত মতবাদ আছে তার মধ্যে গুমনামি বাবাই সবথেকে জোরালো। সম্পূর্ণ সমাধান না হওয়া অবধি কিছু সঠিক বলা সম্ভব না হলেও জনমানসে এটিই সবথেকে বেশী প্রভাবশালী ও যুক্তিনিষ্ঠ।
এটিই ভারতবর্ষ! দেশনায়কের শেষ পরিণতি নিয়ে রাজনীতির কারবারিরা মিথ্যা ভাষণ দিয়ে চলে। আজাদ হিন্দ বাহিনীর কোষাগার লুন্ঠিত হয়। তবে সত্য একদিন প্রকাশ পাবেই।
শরৎচন্দ্রের ভাষায় বলি, তিনি দেশের জন্য সর্বস্য দিয়েছেন, তাই দেশের খেয়াতরী তাঁকে বইতে পারে না। বিলাসের সুখ তাঁর জন্য ছিল না। আজও তিনি সাধারণের ধরা ছোঁয়ার বাইরে। মানুষের মৃত্যু হয়, তাঁর মতো মহামানবের নয়, তাঁর নেই কোনো মৃত্যুদিন।
SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
  12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  
       
  12345
2728     
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit