রবিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২১, ০২:৪৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
২০২১ সালের মধ্যে সবার জন্য ইন্টারনেট -আইসিটি প্রতিমন্ত্রী সিরাজগঞ্জে নির্বাচিত হয়েই খুন বিএনপি সমর্থিত কাউন্সিলর ভোলায় জমির বিরোধ নিয়ে সংঘর্ষে নিহত ১, মামলা দায়ের, আটক ১ শৈলকুপা পৌরসভা নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোট গ্রহন সম্পন্ন, বেসরকারী ভাবে নৌকার প্রার্থী বিজয়ী শিবলিঙ্গ-জয় শ্রীরাম বলা নিয়ে কটূক্তিতে এক হাত ধুয়ে দিলো সায়ানিকে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৯ প্রদান রোববার পায়রা বন্দরের রাবনাবাদ চ্যানেলের ড্রেজিং কাজ শুরু -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী রাণীনগরে ইউপি চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী আওয়ামীলীগ নেতা মজিদের মোটর শোভাযাত্রা পঞ্চগড়ে মুজিব শতবর্ষে ঐতিহ্যবাহী লাঠি খেলা অনুষ্ঠিত  কালীগঞ্জে ব্যাতিক্রমী আয়োজন স্বেচ্ছাস্বেবী সংগঠনের মিলনমেলা

কি রহস্য লুকিয়ে আছে ভীমকুণ্ডে? কেনই বা এমন নাম হল?

রহস্য লুকিয়ে আছে ভীমকুণ্ডে

ভারতের মধ্যপ্রদেশের ছতরপুর জেলার একটি প্রাকৃতিক জলাশয় ভীমকুণ্ড। যা ঐতিহাসিক এবং মহাকাব্যিক স্থান। এটি নীলকুণ্ড নামেও পরিচিত। মহাভারতে উল্লেখিত এই ভীমকুণ্ডকে ঘিরে একটা রহস্যকাহিনিও রয়েছে। জেনে নেওয়া যাক কী সেই কাহিনি ।

ভীমকুণ্ড দেখতে একটা সাধারণ জলাশয়ের মতো হলেও স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, এটা কোনও সাধারণ জলাশয় নয়। এই জলাশয় নাকি এশিয়া মহাদেশে আসন্ন প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের সঙ্কেত দেয়। তাঁদের আরও দাবি, প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের আঁচ পেলেই ভীমকুণ্ডের শান্ত জলে একটা আলোড়ন শুরু হয়ে যায়।

২০০৪-এর সুনামির সময় ভীমকুণ্ডের এই ‘অদ্ভুত ক্ষমতা’ চোখে পড়ে স্থানীয়দের। তাঁদের দাবি, সেই সময় শান্ত ভীমকুণ্ডের জল নাকি প্রায় ১৫ ফুট উঁচুতে উঠেছিল।

ভীমকুণ্ডের আরও একটা বিশেষত্ব আছে। দাবি করা হয়, এর সঠিক গভীরতা এখনও পর্যন্ত কেউ মাপতে সক্ষম হননি। স্থানীয় প্রশাসন তো বটেই, বিদেশি বৈজ্ঞানিকদের একটি দলও ব্যর্থ হয় এই অভিযানে।

সবচেয়ে আশ্চর্যজনক যে বিষয়টি দাবি করা হয়েছে, ভীমকুণ্ডের ২৫০ ফুট গভীরে যাওয়ার পরই তীব্র স্রোতের উপস্থিতি টের পাওয়া যায়। কিন্তু এই স্রোত কোথা থেকে আসছে সেই রহস্য এখনও ভেদ করা সম্ভব হয়নি।

ভীমকুণ্ডের জলস্তর কমানোর জন্য ১৯৭৭ সালে জেলা প্রশাসন তিনটে পাম্প লাগিয়েছিল। কিন্তু পাম্প দিয়ে জল তোলার পরেও দেখা যায় এক ইঞ্চিও জলস্তর কমেনি।

ছতরপুর জেলা কার্যালয় থেকে ৭৭ কিলোমিটার দূরে ঘন জঙ্গলে ভীমকুণ্ডের জলে সূর্যের আলো পড়লেই জলের রং নীল দেখায় এবং ঝকঝক করে। এই বিশেষত্বের জন্যই ভীমকুণ্ডের আর এক নাম নীলকুণ্ড। পুরাণে উল্লিখিত নীলকুণ্ডের সঙ্গেও এর মিলও খুঁজে পাওয়া যায়।

ভীমকুণ্ডের জল খুব পবিত্র বলে মনে করেন স্থানীয়রা। মকর সংক্রান্তির দিন এখানে স্নান করা অত্যন্ত পবিত্র বলে মনে করা হয়।

ভীমকুণ্ড নাম কেন হল, এই কাহিনিও কম আকর্ষণীয় নয়। মহাভারতের সময়ের সঙ্গে এই জলাশয়ের নাম জড়িয়ে আছে।

প্রচলিত বিশ্বাস, ১২ বছর বনবাসের সময় যখন পাণ্ডবরা এক বছর অজ্ঞাতবাসে কাটাচ্ছিলেন, তখন এই ভীমকুণ্ডের পাশ দিয়েই যাচ্ছিলেন। সে সময় এখানে ভীমকুণ্ড ছিল না। ওখান দিয়ে যাওয়ার সময় দ্রৌপদীর খুব তেষ্টা পায়। কিন্তু গভীর অরণ্যে তেষ্টা মেটানোর মতো কোনও জলাশয়ই খুঁজে পাননি পাণ্ডবরা।

উপায় না দেখে ভীম তাঁর গদা দিয়ে মাটিতে জোরে আঘাত করেন। তাঁর গদার শক্তিশালী আঘাতে মাটি ভেদ করে জল বেরিয়ে আসে। সেই থেকেই নাম এখানে ভীমকুণ্ডের উত্পত্তি।

SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
      1
16171819202122
23242526272829
3031     
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit