শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:৪০ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
রাষ্ট্রপতির নিকট বাংলাদেশে নবনিযুক্ত  মালয়েশিয়া ও শ্রীলংকার হাইকমিশনার এবং মিশরের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ সরকারের বাস্তবসম্মত কৌশলে করোনার দ্বিতীয় ঢেউও মোকাবিলা করা সম্ভব বাঘারপাড়া উপ-নির্বাচন নিয়ে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন বস্ত্রশিল্প প্রতিষ্ঠানকে ২৪-৭২ ঘন্টায় ‘পোষক কর্তৃপক্ষ’ সেবা প্রদান করবে বস্ত্র অধিদপ্তর পঞ্চগড় চিনিকল রক্ষার দাবিতে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ বিজয় দিবস উপলক্ষে গাবতলী থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত সড়কে পোস্টার-ব্যানার-ফেস্টুন ব্যবহার বিষয়ক নির্দেশনা ১৩ থেকে ১৫ ডিসেম্বর জাতীয় স্মৃতিসৌধ এলাকায় সর্বসাধারণের প্রবেশ নিষেধ বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নয়নে ভারতীয় হাইকমিশনারের বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর পরিদর্শন  হাইজেনিয়ার হালাল মাস্ক বাণিজ্যমন্ত্রীর নিকট হস্তান্তর প্রতিবন্ধীদের সকল আর্থসামাজিক কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করতে হবে -আফিল উদ্দিন এমপি

জেনে নেই রমনা কালীবাড়ির ইতিহাস

রমনা কালীবাড়ির ইতিহাস

উত্তম মণ্ডলঃ অখণ্ড বাংলার প্রায় দেড় হাজার বছরের সাংস্কৃতিক ইতিহাসে একটি উল্লেখযোগ্য নাম ঢাকার রমনা কালীবাড়ি। মোগল আমলে এই কালীবাড়িতে বসেই মিটিং করতেন বাংলার বারো ভুঁইয়ারা। বারো ভুঁইয়ার অন্যতম ঈশা খাঁর নেতৃত্বে এখানেই মোগলদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করার চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। পরবর্তীকালে ভারতের ব্রিটিশ আমলে “যুগান্তর” ও “অনুশীলন সমিতি”-র বিপ্লবীরা এখানে বসেই হাতের আঙুল কেটে রক্ত দিয়ে দেশের স্বাধীনতা আনার শপথ নিতেন। রমনা কালীমন্দির লোকমুখে “রমনা কালীবাড়ি” নামে পরিচিত।
জনশ্রুতি রয়েছে, প্রায় পাঁচশো বছর আগে শঙ্করাচার্যের প্রবর্তিত দশনামী সন্ন্যাসী সম্প্রদায়ের গোপাল গিরি নামে এক সন্ন্যাসী বদ্রীনাথের যোশীমঠ থেকে এখানে এসে একটি আখড়া তৈরি করেছিলেন। সেটি “আখড়া কাঠঘর” নামে পরিচিত। এর প্রায় দুশো বছর পর হরিচরণ গিরি নামে আরেক সন্ন্যাসী এখানে মন্দির গড়ে তোলেন। ২.২২ একর জায়গা জুড়ে মন্দিরের সামনে অবস্থিত একটি বিশাল দীঘি। ব্রিটিশ নথি অনুসারে, এটি খনন করান ম‍্যাজিস্ট্রেট ডস।
পরবর্তীকালে ভাওয়ালের রাণী বিলাসমণি দেবী এটি সংস্কার করান এবং সেজন্য এটি রাণী খনন করিয়েছেন বলে মানুষের মধ্যে বিশ্বাস প্রচলিত হয়ে যায়। মূল মন্দিরটি ছিল চারকোণা, উঁচু ছাদ ও বাংলার চারচালা রীতিতে তৈরি হয়। মন্দিরের চূড়া ছিল ১২০ ফুট উঁচু, যা ঢাকার মধ্যে সবচেয়ে বড়ো বলে পরিচিত ছিল। প্রাচীর ঘেরা মন্দিরের মধ্যে কারুকাজ করা কাঠের সিংহাসনে বিরাজিতা ছিলেন দেবী ভদ্রকালী। মন্দিরের উত্তর-পূর্ব ও পশ্চিমে ছিল সেবাইতদের ঘর এবং সেই সঙ্গে ছিল নাটমন্দির ও সিংহদরজা।
মন্দির চত্বরে ছিল প্রতিষ্ঠাতা সন্ন্যাসী গোপাল গিরি ও হরিচরণ গিরির সমাধি। রমনা কালীবাড়ির উত্তরদিকে ছিল সাধিকা আনন্দময়ী মায়ের আশ্রম। আনন্দময়ী মায়ের স্বামী রমণীমোহন চক্রবর্তী ছিলেন ঢাকার নবাবের শাহবাগ বাগানের তত্ত্বাবধায়ক। আনন্দময়ী মায়ের ভক্তরা রমনা ও সিদ্ধেশ্বরী কালীবাড়িতে দুটি আশ্রম তৈরি করে দেন। এর প্রবেশপথ ছিল পূর্বদিকে। উত্তরদিকের একটি ঘরে ছিল আনন্দময়ী মায়ের পাদপদ্ম। মন্দিরের বেদিতে বিষ্ণু ও অন্নপূর্ণার বিগ্রহ।

কালীমন্দির প্রাঙ্গণে সন্ন্যাসী, ভক্ত ছাড়াও বেশকিছু সাধারণ মানুষ সপরিবারে বসবাস করতেন এবং মন্দিরের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তাঁরা অংশ নিতেন। এতক্ষণ রমনা কালীবাড়ির যে বর্ণনা দেওয়া হলো, তা ১৯৭১-এর ২৭ শে মার্চের আগের।

তাহলে এরপর কি ঘটেছিল?
এবার আসছি সে প্রসঙ্গে। বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের সময় এখানে ভয়ংকর আক্রমণ ঘটে। ১৯৭১-এর ২৬ ও ২৭ শে মার্চ দু’দিন ধরে পাক হানাদার বাহিনী এখানে হামলা চালিয়ে মন্দিরের অধ‍্যক্ষ স্বামী পরমানন্দ গিরিসহ সেখানে উপস্থিত প্রায় শতাধিক পুরুষ-মহিলা-শিশুকে হত্যা করে। অন্য সূত্রে জানা যায়, ১৯৭১-এর ২৭ শে মার্চ কালীবাড়ির প্রায় পাঁচশো ভক্তকে জীবন্ত পুড়িয়ে মারা হয়।
শুধু তাই নয়, মেয়েদের সিঁদুর মুছে, হাতের শাঁখা ভেঙে দেওয়া হয়। এরপর পুরুষ-মহিলাদের আলাদা আলাদা সারিতে দাঁড় করিয়ে গুলি করা হয়। শিশুদের ফেলে দেওয়া হয় জ্বলন্ত আগুনে। তদন্ত কমিটির সামনে এমনটাই জানান প্রত‍্যক্ষদর্শী কমলা রায়। গুলি করার আগে তাদের সকলকে “পাকিস্তান জিন্দাবাদ” ও “লা ইলাহা ইল্লাল্লাহ” বলতে বাধ্য করা হয়েছিল বলে তদন্তদলকে জানান রমনা কালীবাড়ির কাছেই শাহবাগ মসজিদের খাদিম প্রত‍্যক্ষদর্শী আব্দুল আলী ফকির।
পাক হানাদার বাহিনী এলাকায় আক্রমণ চালাবার পর ১৯৭১-এর ২৬ শে মার্চ রমনা কালীমন্দির ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। এরপর স্বাধীন তৈরি হলেও রমনা কালীবাড়ি তৈরির কোনো অনুমতি ছিল না। বরং ১৯৭২-এ রমনা কালীবাড়ির শেষ অংশটুকুও বুলডোজার দিয়ে ভেঙে গুঁড়িয়ে দেয় স্বাধীন বাংলাদেশের মুজিব সরকার। তারপর জায়গাটি ঢাকা ক্লাবকে দিয়ে দেওয়া হয়।(তথ্যসূত্র: দৈনিক বাংলা, ২৭/১২/১৯৭২)
তার মানে, পূর্ব পাকিস্তানের সময় সেখানকার হিন্দুরা হারায় মন্দির এবং স্বাধীন বাংলাদেশের সময় হারায় সেই মন্দিরের জায়গা। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের আওয়ামী লীগ সরকার এখানে হিন্দুদের পুজোপাঠ নিষিদ্ধ করে দেয়। রমনা কালীবাড়ির জায়গায় গড়ে তোলা হয় রমনা পার্ক ও ঢাকা ক্লাব। ১৯৭১ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত রমনা কালীবাড়িতে কোনোরকম পুজোপাঠ হয়নি।
এরপর হিন্দুরা আন্দোলন করতে শুরু করলে ২০০০ সালে দুর্গাপুজোর সময় এখানে প্রধানমন্ত্রী সেখ হাসিনা মন্দির পুন: স্থাপনের অনুমতি দেন। এরপর ২০০৪ সালে এখানে ভদ্রকালীর প্রতিমা স্থাপন করে পুজো করা হয়। পরে ২০০৬ সালে বাংলাদেশের বি এন পি সরকারের প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া এখানে মন্দির পুনর্নির্মাণের আদেশ দেন এবং সেইমতো সোহরাওয়ার্দী উদ‍্যানের একাংশে মন্দির তৈরি হয়। পুজোপাঠ শুরু হয়। তবে পুরোনো রমনা কালীবাড়ি এখন শুধুই ছবি।

তথ্যসূত্র:

1) Dhaka, a Record of its Changing Fortunes: Ahmad Hasan Dani, Dhaka, 2009.
2) রমনা কালীবাড়ি ও আনন্দময়ী মায়ের আশ্রম ধ্বংস সংক্রান্ত বাংলাদেশ সরকারের গণতদন্ত কমিশনের প্রাথমিক রিপোর্ট, ২০০০.
SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031 
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit