মাটির প্রতিমা নয় এবার নিজের কন্যাকেই লক্ষ্মীরূপে পূজা

    admin
    October 14, 2019 1:07 am
    Link Copied!

    বিশেষ প্রতিবেদকঃ বাংলায় শারদীয়া দুর্গাপূজার পর পূর্ণিমা তিথিতে কোজাগরী লক্ষ্মী পূজার আরাধনা করা হয়। বাঙালি হিন্দুর ঘরে ঘরে এক চিরন্তন প্রার্থনা। প্রায় প্রতি ঘরে ঘরেই দেবী লক্ষ্মীর পুজো হয়ে থাকে। লক্ষ্মী হলেন ধন সম্পত্তির দেবী। ধন সম্পদের আশায় ঘরে ঘরে কোজাগরী লক্ষ্মী পূজা হয়ে থাকে। নারী পুরুষ উভয়েই এই পুজোয় অংশ গ্রহণ করেন। মাটির প্রতিমার বদলে যদি ঘরের কন্যা কিংবা মাকে আসনে বসিয়ে পূজা দেওয়া হয় তবে বিষয়টি কেমন হয়। বললেন আনন্দম্‌ ইনস্টিটিউট অভ যোগ এণ্ড যৌগিক হস্‌পিটালের পরিচালক যোগী পিকেবি প্রকাশ।

    আধ্যাত্মিক জ্ঞানের ভাষায় তিনি বললেন, প্রত্যেক মানুষের ভিতরে দৈব ও আসুরিক ভাব বিরাজমান। যখন মানুষ জীব সেবার নিমিত্তে নিজেকে নিয়োজিত করে তখন তাহার ভিতরে দৈবী গুণ পরিলক্ষিত হয়। আবার যখন বিষয়ের প্রভাবে জীবের ক্ষতিসাধনে প্রবৃত্ত হয় তখনই তার ভিতরে আসুরিক ভাব পরিলক্ষিত হয়। অর্থাৎ জীব দেহের ভিতরেই সব শক্তির আধার। সঠিক খাদ্যাভ্যাস ও যৌগিক ক্রিয়াদি অনুশীলনের ফলে যেকোন মানুষ দৈবীভাবাপন্ন হয়ে উঠতে পারে। এই মৃম্ময়ী পৃথিবীর চিন্ময়ী রূপ, প্রকৃতিমাতার চিন্ময়ীরূপ। সেই দেবমানুষের ভিতরের দৈবীভাবকে জাগ্রত করার মাধ্যমে পাশবিক শক্তি বিনাশের সূর জেগে ঊঠবে।

    তিনি আরও বললেন, মানুষের সৃষ্টিতে নারী পুরাতনী। নবসমাজে নারীশক্তিকে বলা যেতে পারে আদ্যাশক্তি। এই সেই শক্তি যা জীবলোকে প্রাণকে বহন করে, প্রাণকে পোষণ করে। আজকাল হিন্দু সমাজের কিছু বোধদয় হয়েছে, যে মাটির প্রতিমার জায়গায় কন্যা কিংবা মাকে বসিয়ে দেবীজ্ঞানে পূজা করার প্রচলন শুরু হয়েছে।

    যোগী আরও বললেন, নারীতে পরমার্থ দর্শন ও পরমার্থ অর্জন আধ্যাত্মিক সাধনার অঙ্গ। বর্তমান যুগের যবনিকা সরিয়া যায় ফুটিয়া ওঠে ভাবীকালের অপরূপ দৃশ্য- এই মৃম্ময়ী পৃথিবীর চিন্ময়ী রূপ, প্রকৃতিমাতার চিন্ময়ীরূপ। বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডে যে ত্রিশক্তির বলে প্রতিনিয়ত সৃষ্টি, স্থিতি ও লয় ক্রিয়া সাধিত হচ্ছে, সেই ত্রিবিধ শক্তিই বীজাকারে নারীতে নিহিত। কুমারী প্রকৃতি বা নারী জাতির প্রতীক ও বীজাবস্থা। তাই কন্যা বা নারীতে দেবীভাব আরোপ করে তার সাধনা করা হয়। এ সাধনপদ্ধতিতে সাধকের নিকট বিশ্বজননী কন্যা কিংবা নারীমূর্তির রূপ ধারণ করে;তাই তার নিকট নারী ভোগ্যা নয়, পূজ্যা। এ ভাবনায় ভাবিত হওয়ার মাধ্যমে রামকৃষ্ণ পরমহংসদেব নিজের স্ত্রীকে ষোড়শীজ্ঞানে পূজা করেছিলেন। আর এবার যোগী পিকেবি প্রকাশ নিজেই চার বছরের মেয়েকে লক্ষ্মীদেবীর আসনে বসিয়ে পূজা করলেন।

    তিনি বললেন, প্রকৃতির উদ্দেশ্য সেইদিনই সার্থক হইবে, যেদিন পুরুষের হৃদয়ধর্ম সমস্ত বিশ্বকে আপন করিয়া লইবে, আর নারীর প্রবুদ্ধবুদ্ধিধর্ম তাহাকে বাস্তবিকই “পূজার্হা গৃহদীপ্তি’ করিয়া তুলিবে।

    তিনি ইতিহাসের উদ্ধৃতি দিয়ে বললেন- কুন্তী, দ্রৌপদী, গান্ধারী, দময়ন্তী এরা প্রত্যেকেই ক্ষত্রিয়ের ঘরণী। ইহাদের জীবনে দুর্বিপাকের অন্ত ছিল না, কিন্তু কোথাও তাঁহারা পুরুষের ঘাড়ে বোঝা হইয়া চাপিয়া ছিলেন না। শক্তির জীবন্ত প্রতীকরূপে ইহারা পুরুষের ভিতর পৌরুষ জাগাইয়াছেন। দুর্যোধন-দুঃশাসনের যে উদ্ধত অন্যায় নারীমর্যাদাকে আহত করিয়াছে, ভারতের পৌরুষ শক্তি যতদিন সেই অন্যায়ের প্রতিবিধান করিতে না পারিবে ততদিন “ এই বেণী আর বাঁধিব না” -দ্রৌপদীর এই দৃপ্ত বাণী, দ্রৌপদীর এই দৃপ্ত তেজ পঞ্চপাণ্ডবের অন্তরে ও পাণ্ডববাহিনীতে শক্তি সঞ্চার করিয়াছে। গান্ধারীকে ঘর ছাড়িতে হয় নাই; ঘরে থাকিয়াই পত্নীরূপে, মাতারূপে তিনি যে বলিষ্ট মনের পরিচায় দিয়াছেন তাহার ফলে নারীত্বের মর্যাদা মনুষ্যত্বের গৌরবে উজ্জ্বল হইয়াছে।

    বর্তমান দেশে দেশে জীবন-সমস্যা কুরুক্ষেত্র রূপে দেখা দিয়াছে। ক্ষাত্রবীর্য ছাড়া বাঁচিবার উপায় নেই। তাই নারীকে দেখিতে চাই বীর বালা, বীর জায়া এবং বীর-জননীরূপে।