ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ফ্রান্সে নবীর চিত্র প্রদর্শনকে সমর্থন করে পোস্ট করায় ভাংচুর-অগ্নিসংযোগ

Rai Kishori
November 2, 2020 11:35 am
Link Copied!

ফ্রান্সে নবীর কার্টুন চিত্র প্রদর্শনকে সমর্থন করে ফেসবুকে পোস্ট করায় কুমিল্লার মুরাদনগরে কয়েকজনের বাড়িঘর, মন্দির ভাংচুর করে আগুনে ঘরবাড়ি জ্বালিয়ে দিয়ে পোস্ট ও সমর্থনকারী ২ ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার

রবিবার (১ নভেম্বর) দুপুরে ওই ঘটনার প্রেক্ষিতে স্থানীয় একটি কিন্ডার গার্টেনের প্রধান শিক্ষক এবং পূর্ব ধউর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অধ্যাপক বনকুমার শিব এর বাড়ির একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

আবুল খায়ের নামে স্থানীয় একজন বলেন, কিশোর দেবনাথ নামে কুরবানপুর গ্রামের এক ব্যক্তি ফ্রান্সে থাকেন। তিনি ও ওই কিন্ডারগার্টেনের প্রধান শিক্ষক তাদের ফেইসবুক আইডি থেকে কার্টুনকে সমর্থন করে পোস্ট ও কমেন্ট করেন বলে খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকার মানুষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।

স্থানীয়দের কাছে ফেইসবুকের যে স্ক্রিনশটটি ছড়িয়েছে, তাতে দেখা যায় ফ্রান্স প্রবাসী ওই ব্যক্তি একটি পোস্টে লিখেছেন, “ফরাসি প্রেসিডেন্ট যে সব অমানবিক চিন্তাভাবনাকে শায়েস্তা করার যে উদ্যোগ নিয়েছেন, তা প্রশংসনীয়।” তার তাতে শঙ্কর দেবনাথ নামে কুরবানপুরের ওই ব্যক্তি মন্তব্য লিখেছেন- ‘স্বাগতম প্রেসিডেন্টের উদ্যোগকে’।

ধর্ম অবমাননার গুজবে শনিবার রাতে থেকে কুরবানপুর গ্রামে একদল বিক্ষোভে নামে, যা রোববারও চলতে থাকে।

জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর বলেন, এই বিক্ষোভের জের ধরে হিন্দু বাড়িতে হামলা-অগ্নিসংযোগ ঘটে। উত্তেজিত লোকজন তিনটি বাড়িতে আগুন দিয়েছে। যে দুজন গ্রেপ্তার হয়েছে তাদের বাড়িতে এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়িতে।

বাঙ্গরা বাজার থানার ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ফরাসি সাময়িকীতে হজরত মুহাম্মদকে (সা.) নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশকে কেন্দ্র করে বিশ্বের বিভিন্ন মুসলিম দেশে ক্ষোভ চলছে। তার মধ্যে এদের ফ্রান্সকে সমর্থক পোস্টের ফলে এই ঘটনা ঘটে।  পুলিশ মোবাইল ট্রেকিংয়ের মাধ্যমে ওই প্রধান শিক্ষক ও আন্দিকোট গ্রামের আরেক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে।

দুই ব্যক্তির বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে রোববার বিকালে তাদের কুমিল্লার আদালতে হাজির করা হয়। এই সময় তাদের পক্ষে জামিনের আবেদন করা হলেও বিচারক তা নাকচ করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

খবর পেয়ে জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর ও পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম রবিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান। জেলা প্রশাসক বলেন, “আমি এবং পুলিশ সুপার সাহেব দুজনেই ঘটনাস্থলে এসেছি। পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে আছে।”

ওসি কামরুজ্জামান বলেন, ভাংচুরের ঘটনায় আরেকটি মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে। ভাংচুরের ভিডিও দেখে মামলায় আসামি করা হবে।

http://www.anandalokfoundation.com/