রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০২:৪৫ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ইয়েমেনে হুতি বিদ্রোহীদের ভয়ানক হামলা নিহত ৬০ অবশেষে বিধ্বস্ত বিমানের ব্লাক বক্স ইউক্রেনে পাঠাতে রাজি হল ইরান ঝিনাইদহে বিভিন্ন যানবাহন থেকে হাইড্রোলিক হর্ন খুলে নিলো প্রশাসন মধ্যপ্রাচ্যে উত্তেজনার মাঝেই ফাঁস হল ইরানের পরমাণু প্রস্তুতির গোপন চিঠি শাশুড়ি এবং স্ত্রী সহ দুই প্রতিবেশিকে খুন করে খুনির আত্মহত্যা হিন্দু সংস্কৃতির সুপ্রাচীন রীতি শঙ্খধ্বনি গৃহস্থের মঙ্গল বয়ে আনে পরমাণু চুক্তিতে আমেরিকাকে ফেরাতে ভারত বড় ভূমিকা নিতে পারে আশাবাদী ইরান ধার শোধে বাবার সহায়তায় ১৩ বছরের মেয়েকে নিয়মিত ধর্ষণ, রাজি না হলে নির্যাতন রক্তপাত ছাড়াই কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে ১৫ দেশের রাষ্ট্রদূতদের সন্তোষ প্রকাশ যুদ্ধ পরিস্থিতির মাঝেই মহাকাশ দখলে স্যাটেলাইট পাঠাচ্ছে ইরান

৪ চিকিৎসক দিয়ে চলছে পাবনা মানসিক হাসপাতাল

বিশেষ প্রতিবেদকঃ দীর্ঘদিনেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি দেশের মানসিক রোগের চিকিৎসার জন্য একমাত্র বিশেষায়িত হাসপাতাল-পাবনা মানসিক হাসপাতালে। বর্তমানে মাত্র চারজন চিকিৎসক ও কয়েকজন পার্টটাইম সহকারী অধ্যাপক দিয়ে চলছে ৫শ’ শয্যার এই হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা। এতে ব্যাহত হচ্ছে এখানকার চিকিৎসা কার্যক্রম। পর্যাপ্ত চিকিৎসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারী সংকটে রীতিমত হিমশিম খাচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এছাড়া সুস্থ হয়েও স্বজনদের অবহেলা আর উদাসীনতায় বাড়ি ফিরতে পারছেন না এই হাসপাতালের ২৩ জন রোগী।

বর্তমানে হাসপাতালে অন্য অসুস্থ রোগীদের সঙ্গেই কাটছে তাদের বছরের পর বছর। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, দেশের মানসিক রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করার জন্য ১৯৫৭ সালে পাবনা শহরের শীতলাই হাউজে অস্থায়ীভাবে স্থাপন করা হয় পাবনা মানসিক হাসপাতাল। এর দুই বছর পর ১৯৫৯ সালে শহরের হেমায়েতপুরে ১১১ দশমিক ২৫ একর জায়গার উপরে স্থানান্তর করা হয় হাসপাতালটি। প্রাথমিক অবস্থায় হাসপাতালের শয্যা সংখ্যা ছিল ৬০টি। সময়ের চাহিদায় যা এখন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫০০ শয্যায়। কিন্তু এত বড় হাসপাতালে নেই পর্যাপ্ত চিকিৎসক, কর্মকর্তা-কর্মচারী। বর্তমানে মাত্র চারজন মেডিকেল অফিসার দিয়ে চলছে চিকিৎসা সেবা। অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে চিকিৎসা দিচ্ছেন পাবনা মেডিকেল কলেজের কয়েকজন সহকারী অধ্যাপক।

এ বিষয়ে পাবনা মানসিক হাসপাতালের পরিচালক প্রফেসর ডা. তন্ময় প্রকাশ বিশ্বাস বলেন, ‘বর্তমানে আমাদের সবচেয়ে বড় সমস্যা চিকিৎসক সংকট। পোস্টিং কোনো কনসালটেন্ট নেই, মেডিকেল কলেজে যারা সহকারী অধ্যাপক আছেন তারাই এখানে কাজ করছেন, সেজন্য আমরা কিছুটা সাপোর্ট পাচ্ছি। চিকিৎসক সংকটের বিষয়টি একাধিকবার উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি, কিন্তু সমাধান হচ্ছে না।’ অপরদিকে ভর্তির পর অনেক পরিবারের স্বজনরাই তাদের রোগীর খোঁজ খবর নেন না। অনেকের স্বজনরা রোগী ভর্তির সময় ভুল ঠিকানা দেন। ফলে পরবর্তীতে সুস্থ রোগীদের তাদের দেওয়া ঠিকানায় পৌঁছে দিতে পারে না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতালের সিনিয়র স্টাফ নার্স রাজিয়া সুলতানা ও নার্গিস সুলতানা বলেন, ‘রোগীর স্বজনদের উদাসীনতা আর অবহেলায় এসব সুস্থ রোগী বাড়ি ফিরতে পারছেন না। আমরা পরিবারের মতোই তাদের দেখাশুনা করি। দীর্ঘদিন তাদের সঙ্গে থাকতে থাকতে মায়া পড়ে গেছে। তারাও আমাদের ছেড়ে যেতে চায় না।’

পাবনা মানসিক হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. গাজী সাইফুল আলম চৌধুরী জানান, সুস্থ ২৩ জনের পরিবারের সঙ্গে বারবার টেলিফোনে, চিঠিতে যোগাযোগ করা হলেও তারা রোগীকে ফিরিয়ে নিতে উদাসীন। আবার হাসপাতালের পক্ষ থেকে ফিরিয়ে দিতে গিয়েও পাওয়া যায় ভুল ঠিকানা। তিনি বলেন- ‘এ রোগীগুলোর বেড খালি হলে আরও নতুন ২৩ জন রোগী ভর্তি হতে পারত, এখন তাও সম্ভব হচ্ছে না।’

হাসপাতালের পরিচালক প্রফেসর ডা. তন্ময় প্রকাশ বিশ্বাস বলেন, ‘যেহেতু এটি একটি হাসপাতাল, সেহেতু এখানে রোগীদের টার্নওভার হতে হবে, ভর্তি ও রোগী ছাড়া নিয়মিত হতে হবে। কিন্তু তা হচ্ছে না। সুস্থ এসব রোগীর পুনর্বাসন করা দরকার। নতুন করে কোথাও না হলে হাসপাতালের মধ্যেই অনেক জায়গা আছে, সেখানে একটি নতুন ভবন তৈরি করে ব্যবস্থা করা যায়। তাহলে নতুন রোগী ভর্তির সমস্যা কিছুটা নিরসন সম্ভব।’

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit