শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ০৯:৫৭ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশকে সহায়তা দিতে আগ্রহী মিশর করোনার ভয় আর আতঙ্ক নিয়েই ১ জুন খুলছে উপাসনালয় এবং ৮ জুন থেকে পশ্চিমবঙ্গের সব অফিস চীন ভারত যুদ্ধে, ভারতের পক্ষে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত রাশিয়ার করোনাভাইরাসে শত বছর আগের মহামন্দার পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনতে পারে -জাতিসংঘ মহাসচিব লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি হত্যাকাণ্ডের তদন্ত শুরু করেছে দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয় পঞ্চগড়ে করোনায় আরো ১ জনের মৃত্যু মানব সেবায় নিয়োজিত নবগ্রাম জনকল্যাণ ট্রাস্ট সেবাশ্রম বগুড়ায় মা কে সাথে নিয়ে বাবাকে হত্যা, ১ বছর পর গলিত লাশ উদ্ধার ছেলে বউয়ের নিষ্ঠুর অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে প্যাসেঞ্জার টার্মিনালে মা ফায়ার সার্ভিসের ৯৭ জন করোনায় আক্রান্ত, সুস্থ ১০ জন

রামুর উত্তম থেকে মানিকগঞ্জের রনি সব ঘটনাই ফেইসবুক হ্যাঁক করে সংখ্যালঘু নির্যাতনের কৌশল

সংখ্যালঘু নির্যাতনের কৌশল
hindu torture by facebook hack

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নামক ফেইসবুক ব্যবহার করে সহজেই কাউকে ক্ষতি করা যায়। বাড়ীঘর ভেঙ্গে চুরমার করে দেওয়া, আগুনে জ্বালিয়ে দেওয়া, মেরে ফেলা, না হয় আইনি জটিলতায় জীবন ধ্বংস করে দেওয়ার সহজ পথ ফেইসবুক।

বাংলাদেশে আইন আছে কিন্তু এর প্রয়োগ কিংবা যথাযথ ব্যবহার শুধুমাত্র সংখ্যালঘুদের জন্য প্রযোজ্য। সংখ্যাগুরু আইন ফাঁকি দিয়ে এড়িয়ে চলে। যেকারনে ফেইসবুক ব্যবহারকারীর আইডি অন্যজন শত্রুতা/বিদ্বেষতবশতঃ কিংবা অন্য ধর্মের লোককে শাস্তি দেওয়ার অজুহাতে হ্যাঁক করে ধর্মীয় অবমাননার পোস্ট দিয়ে ফাঁসিয়ে দিয়ে তার বাড়িঘর জ্বালিয়ে পুড়িয়ে ধ্বংস করে আইনের মারপ্যাঁচে জীবন ধ্বংস করে দেওয়া প্রতিনিয়ত চলে আসছে। মাসের পর মাস বছরের পর বছর লাগে প্রমাণ বের হতে। ফেইসবুক হ্যাকের প্রমাণ হলেও বাড়ীঘর সম্পত্তির ক্ষতিপূরণ দুরের কথা তাকে জেলে জীবন কাটাতে হয়। আর যিনি বিদ্বেশবশতঃ ফেইসবুক হ্যাঁক করে নিজের ধর্মের কটুক্তি করেও তিনি ধরা ছোঁয়ার বাইরেই থেকে বীর দর্পে ঘুরে বেড়াচ্ছেন কারণ তিনি সংখ্যাগুরু।

আরও পড়ুনঃ ফেইসবুক হ্যাক/ভুয়া পোস্ট দিয়ে পাঁচবারই ছাড় পাওয়ায় প্রতিবারই সাম্প্রাদায়িক দাঙ্গা

এভাবে অসংখ্য ঘটনা ঘটে চলেছে কোন ঘটনার প্রমাণ হয়নি ফেইসবুক ব্যবহারকারী ধর্মীয় অবমাননা করে পোস্ট দিয়েছেন। সব ঘটনার নেপথ্যের কারণ প্রমাণিত হয়েছে হ্যাঁক করে অন্যকেউ পোস্ট দিয়েছে। যিনি হ্যাঁক করে এত বড় ক্ষতি সাধন করলেন তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না হওয়ায় এমন অপরাধের সংখ্যা প্রতিনিয়ত বেড়েই চলছে।

উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ঘটনা তুলে ধরছিঃ

সর্বপ্রথম কক্সবাজারের রামু বৌদ্ধপল্লীতে হামলাঃ ২০১২ সালের ২৯শে সেপ্টেম্বর উত্তম বড়ুয়া নামে এক বৌদ্ধ তরুণের ফেইসবুকে ইসলাম ধর্মগ্রন্থ কোরান ও নবীকে অবমাননা করে পোস্ট দিয়ে স্থানীয় মুসলমানদের কয়েকটি দল রামুতে ১৯টি বৌদ্ধ মন্দির ধ্বংস ও ক্ষতি গ্রস্থ করে। বৌদ্ধদের শতাধিক বাড়িঘরে হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনা ঘটে। নারকীয় হামলার ১৮ মামলার একটি বিচারও এখনো শেষ হয়নি। ন্যাক্কারজনক এ ঘটনায় দায়ীরা কেউ শাস্তি পায়নি। এ ঘটনায় আটকরা সবাই এখন জামিনে মুক্ত।

নাসিরনগরে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলাঃ  ২০১৬ সালের ৩০শে অক্টোবর ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলায় পেশায় জেলে, রসরাজ নামক এক ব্যক্তির নামে ফেইসবুকে একটি ইসলামবিদ্বেষী ছবি পোস্ট করার অভিযোগে ঐ গ্রামের আটটি হিন্দু পাড়ায় ৫টি মন্দির ও তিন শতাধিক বাড়িঘর ভাংচুর করা হয়। ভাংচুর হয় রসরাজের বাড়িও। রসরাজকে বেধড়ক পিটিয়ে পুলিশে দেয় ইসলামী ধর্মের লোক। স্থানীয় এমপি ও সরকারের তখনকার মৎস্য ও পানিসম্পদ মন্ত্রী প্রয়াত ছায়েদুল হক হিন্দুদের সম্পর্কে তার কথিত কটু মন্তব্যের জন্য উল্টো রোষের মুখে পড়েছিলেন। এই ঘটনায় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের উস্কানির অভিযোগ রয়েছে।

ঘটনার আড়াই মাস পরে জামিনে বের হয়েছিলেন পেশায় জেলে রসরাজ। তিনি বলেছিলেন ফেইসবুক চালাতে জানেন না। পাসওয়ার্ড কাকে বলে সে নিয়েও কোন ধারণা নেই তার। যে পোস্টটিকে ঘিরে এত ঘটনা সেটিও পরে আর পাওয়া যায় নি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মফিজ উদ্দিন ভূইয়া জানান,  ফরেনসিক রিপোর্ট অনুযায়ী রসরাজ দাসের মোবাইল থেকে ধর্ম অবমাননার ছবি আপলোডের কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ফরেনসিক রিপোর্ট আদালতে জমা দেওয়ার পর ২০১৯ সালের ১৬ জানুয়ারি বিচারক রসরাজকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন মঞ্জুর করেন।

রসরাজ ফেইসবুক বুঝে না তবুও তার নামে পোস্ট করে গ্রামের আটটি হিন্দু পাড়ায় ৫টি মন্দির ও তিন শতাধিক বাড়িঘর ভাংচুর করে রসরাজকে বেধড়ক পিটিয়ে পুলিশে দিয়ে এত বছর মামলার ঘানি টেনে প্রমাণ হলো তিনি পোস্ট দেয়নি।  যিনি এত বড় ক্ষতি করলেন তাকে খোঁজা দুরের কথা পোস্টটি হাওয়ায় উড়িয়ে গেল। কি দারুণ আইন শুধু সংখ্যালঘুর শাস্তির বিধানে প্রযোজ্য।

রংপুরের গঙ্গাচড়ায় গুলি ও একজনের মৃত্যুঃ ২০১৭ সালের ১০ নভেম্বর, রংপুরের গঙ্গাচরায় টিটু রায় নামে এক ব্যক্তির ফেইসবুক থেকে মহানবী(সা.) অবমাননা করে একটি স্ট্যাটাস দেওয়ার অভিযোগে ক্ষুব্ধ হন স্থানীয় মুসলমানরা। মাইকিং করে মানববন্ধন শেষে হঠাৎ করে আশেপাশের গ্রাম থেকে শতশত মানুষ মিছিল নিয়ে হিন্দুপাড়ায় হামলা চালায়। পুলিশের গুলিতে সেদিন একজন নিহত হয়। অবমাননার অভিযোগের মামলায় টিটু রায়কে গ্রেফতার করা হয়। তবে তিনি এখন জামিনে রয়েছেন। এ ঘটনায়ও প্রমাণ হয়নি টিটু রায় পোস্ট দিয়েছিল।

সিলেটের ওসমানীনগরেও সেই ফেসবুক স্ট্যাটাসঃ

২০১৯ সালের জুনে ঈদের নামাজের পর হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে হামলার ঘটনা ঘটে সিলেটের ওসমানীনগরে। সনাতন ধর্মের এক নারীর মৃত্যুর পর সৎকার নিয়ে হিন্দু ও মুসলিমদের কয়েক ব্যক্তির মধ্যে মত বিরোধ হয়। পরে হিন্দু সম্প্রদায়ের এক ব্যক্তির নামে ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খুলে এমন কিছু পোস্ট দেয়া হয় যা নিয়ে মুসলিমদের একটি অংশ ক্ষোভ প্রকাশ শুরু করে। এর জের ধরে কয়েকটি বাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে। এঘটনায়ও ফেইসবুকের ভূয়া পোস্টকারী শাস্তি পায়নি।

ভোলার বোরহানউদ্দিনঃ

২০১৯ সালের ২০ অক্টোবর রবিবার ভোলার বোরহান উদ্দিন উপজেলায় বিপ্লব চন্দ্র শুভ নামের ফেইসবুকে মহানবীকে(সা.) নিয়ে কটুক্তি করে একটি পোস্ট নিয়ে গ্রামবাসীর ‘তৌহিদী জনতা’র ব্যানারের সাথে পুলিশের সংঘর্ষে চারজন নিহত হয়েছে। ১০ পুলিশ আহত হয়।

বিপ্লব চন্দ্র শুভ সেদিনই স্থানীয় থানায় গিয়ে তার আইডি হ্যাক হয়েছে এবং কে বা কারা  সেখানে স্ট্যাটাস দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন। পুলিশ শুরুতেই জানিয়েছে, তারা এটি উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছে যে ভোলার বোরহানউদ্দিনে একজন হিন্দু ব্যক্তির বিরুদ্ধে মুসলমানদের নবী মোহাম্মদকে অবমাননার অভিযোগ তোলা হলেও এটি করেছেন দুজন মুসলিম। তাদের আটক করা হয়েছে। মুসলিম হয়ে নিজেদের নবীকে নিয়ে এমন ঘৃণ্য পোস্ট দেওয়ার অপরাধের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিলে শিক্ষা পেত। এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি কম ঘটতো।

পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়াঃ  ২০২০ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি, মঠবাড়িয়া উপজেলার ছোট শিংগা গ্রামের বিপুল ঘরামির পুত্র অরুণ ঘরামিকে ইসলাম বিরোধী মন্তব্য করার অভিযোগে গণপিটুনি দিয়ে পুলিশের কাছে তুলে দেওয়া হয়েছে। পুলিশ তাঁকে উল্টো গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠিয়েছে।

মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু জাফর মো. মাসুদুজামান বলছে, তাঁর বিরুদ্ধে ইসলাম অবমাননার প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে সন্দেহের কারণে বাংলাদেশ দণ্ডবিধির ৫৪ ধারায় তাঁকে আদালতে পাঠানো হয়। আদালত তাঁকে কারাগারে প্রেরণ করেছে।

সর্বশেষ মানিকগঞ্জ জেলার সিঙ্গাইর থানার চন্দনপুরঃ

২০২০ সালের ৩ মে, মানিকগঞ্জ দেবেন্দ্র কলেজের ছাত্র রনি সত্যাথী(২২)নবীজীকে নিয়ে কটুক্তিমূলক শব্দ লেখার অভিযোগে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ২ মে, অভিযুক্ত রনি সত্যার্থী সিঙ্গাইর থানায় নিজের দোষ অস্বীকার করে সাধারন ডাইরি করার জন্য গিয়েছিলেন, কিন্তু থানার ওসি তার ডাইরি গ্রহন না করে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়। চন্দনপুর গ্রামের ক্ষুব্ধ মুসলিম জনতা রনির বাড়িঘরে হামলা করে ক্ষতিসাধন করে।

এই ঘটনায় হিন্দু বাড়িতে হামলার তদন্ত না করে উল্টো হিন্দু ছাত্রের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা নিয়ে মানবাধিকার ক্ষুণ্ণ করেছে। কারণ এঘটনাও প্রমাণ হবে যে রনি নিজে ফেইসবুক এমন পোস্ট দেয়নি।

জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক মিজানুর রহমান বলেন, “সুস্পষ্ট অভিযোগ ছাড়া একজন মানুষকে আটক রাখা মৌলিক মানবাধিকারের লঙ্ঘন। “আমি মনে করি, সরকারের উচিত প্রকৃত ঘটনা তদন্ত করে গ্রেপ্তার করা যুবকের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া”। সকল আক্রমণের উদ্দেশ্য হলো বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করে রাজনৈতিক ফায়দা নেয়া। আমাদের উচিত এ ব্যাপারে সচেতন থাকা।

অধ্যাপক মিজান বলেন, “এর আগে একটি ভুয়া ফেসবুক পোস্টকে কেন্দ্র করে রামুতে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের ওপর হামলা চালিয়ে তাঁদের বাড়িঘর, মন্দির পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। আবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে দেখেছি, একইভাবে একজন হিন্দু যুবকের ফেসবুকে ভুয়া পোস্ট দিয়ে হিন্দুদের ওপর আক্রমণ চালানো হয়েছে।” রংপুরের গঙ্গাচড়ায় টিটু রায় নামে এক ব্যক্তির ফেইসবুক থেকে মহানবী(সা.) অবমাননায়  গুলি ও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এমন সবঘটনাই মানবাধিকার লংঘন।

ধর্মীয় গুজব ছড়িয়ে দেশে মাঝে মাঝে সহিংস ঘটনা ঘটছে। এসব ঘটনায় প্রাণ হারাচ্ছেন মানুষ। ২০১২ সাল থেকে এ ধরনের গুজবের ঘটনা বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, সব ঘটনায় একই অপকৌশল প্রয়োগ করা হয়। ধর্মের অবমাননার কথা বলে উন্মাদনা সৃষ্টি ও পরে সহিংসতায় জড়িয়ে পড়ে। এতে হতাহতের ঘটনা ঘটে। একটি অশুভ চক্র উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য ধর্মের মতো স্পর্শকাতর বিষয়কে ব্যবহার করছে। সরকার এর কারণ খুঁজে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি না দেওয়ায় এ ঘটনা এই আট বছর ধরে অসংখ্য বার ঘটাচ্ছে কুচক্রীমহল।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!