সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ১১:১২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
স্বাস্থ্যবিধি মেনে ফেনীতে ২৫০০ মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত যশোরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ অনুষ্ঠিত করোনা প্রতিরোধে নির্দেশনা মেনেই চট্টগ্রামে উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল ফিতর নির্দেশনা মেনেই বায়তুল মোকাররমে ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত অসুস্থ বাচ্চাকে মুখে করে হাসপাতালে হাজির মা এমপি-মেয়রের সংঘর্ষে প্রাণ গেল তাপস দাসের নারায়ণগঞ্জে চাঁদ রাতে বন্ধুর হাতে খুন হলেন গার্মেন্টসকর্মী সাবেক সংসদ সদস্য অলহাজ্ব মকবুল হোসেনের মৃত্যুতে পরিবেশ মন্ত্রী সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাড়ির ভিতরে ঈদ উদযাপন করার অনুরোধ ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসকের রাজারহাটে উৎসবের আমেজঃ  রাত পোহালেই ঈদ

রুদ্রাক্ষে তুলসী মালার মত কৃষ্ণ মন্ত্র জপ করা যায়? কি এর গুনাগুন?

রুদ্রাক্ষ

অভিজিত প্রতাপ রায়ঃ রুদ্রাক্ষ নামটা আমরা অনেকেই কম বেশি জানি। এটি আসলে কি ? কেনই বা এর গুরুত্ব প্রাচীন সকল বৈদিক মুনি-ঋষিদের কাছে বিখ্যাত ছিল ? এখন এর কি অবস্থা?

এ বিষয়ে জানার আগে ‘আগম’ সম্পর্কে জানা প্রয়োজন।  আগম থেকে উৎপত্তি না বুঝলে আসলেই এর মাহাত্ম্য বোঝা দুস্কর।

রুদ্রাক্ষ কে নিয়ে রৌরবাগমের ক্রিয়াপাদ অনুযায়ী, একবার বসুন্ধা নামের এক বিদ্যাধরী ভগবান কালাগ্নি রুদ্রকে জিজ্ঞেস করেছিলেন রুদ্রাক্ষের উৎপত্তির ব্যাপারে। তখন ভগবান বললেন যে একসময় তিনি ধ্যানস্থ হয়ে যখন নিরাকার পরম শিবের সাথে একাত্ম অবস্থায় ছিলেন তখন তাঁর তৃতীয় নেত্র হতে জল ধারা নিচে গড়িয়ে পড়ছিলো (যেমন চোখ বন্ধ অবস্থায় অনেক সময় জল গড়িয়ে পড়ে সেভাবে)।এই জলের ফোটাগুলোর থেকেই এক প্রকার বৃক্ষের জন্ম হয়, যে বৃক্ষের বীজকে রুদ্রাক্ষ বলা হয়।

শিব মহাপুরাণে প্রভু পরমেশ্বর ব্রহ্মার সৃষ্টি কার্য দেখার জন্য ত্রিভুবন ভ্রমনে বের হন। এর মাঝে সবথেকে মানবের কষ্ট আর দূর্দশা দেখে প্রভু বিচলিত হয়ে পড়েন। উনি এতই কষ্ট পান যে উনার দুই চোখ বেরে অশ্রুধারা নেমে আসে। উনার সন্তানরা এমন কষ্ট করবে তাও উনার সৃষ্ট পৃথিবীতে তা উনি মানতে পারেন নাই। তাই উনি সিদ্ধান্ত নেন যে উনি আমাদের সাথে (মানবের সাথে) এই পৃথিবীতে অবস্থান করবেন। সেই অশ্রুধারা থেকে রুদ্রাক্ষের সৃষ্টি সেটাও অনেকে বিশ্বাস করেন।
প্রভু বলেন ” যে মানব/মানবী ভক্তি সহকারে এই রুদ্রাক্ষ ধারণ করবে সে শিব কৃপা লাভ করবে। ইহকালের দুঃখ কষ্ট থেকে মুক্তি পাবে এবং শরীরে থাকা অবস্থায় যমদূত বা অকাল মৃত্যু ব্যাক্তিকে স্পর্শ করতে পারবে না।

মৌলাগমে আছে, যে ব্যক্তি রুদ্রাক্ষের মালা ধারণ করে যাবতীয় পূজা পাঠ জপ তপ সম্পন্ন করে সে দেহত্যাগের পরে অবশ্যই শিব সালোক্য লাভ করবে। এতে সন্দেহ নেই।

রুদ্রাক্ষের মধ্যে আবার অনেক প্রকারভেদ আছে। রুদ্রাক্ষ একটি গাছের ফল, যার অর্থ রুদ্রের চোখ বা শিবের চোখ। ভারত এবং ইন্দোনেশিয়ায় সবচেয়ে বেশি রুদ্রাক্ষ পাওয়া যায়। কিন্তু নেপালে জন্মানো রুদ্রাক্ষই গুণগত মানে সবচেয়ে উৎকৃষ্ট হয়। হিন্দুধর্মের বিভিন্ন শাস্ত্রে রুদ্রাক্ষ ধারণের অনেক গুণ বলা আছে। সাধারণত রুদ্রাক্ষের মালা গেঁথে গলায় পরা হয়। ১০৮ ও লকেট হিসেবে একটি রুদ্রাক্ষ দিয়ে মালা গাঁথাই নিয়ম। এই অতিরিক্ত রুদ্রাক্ষটিকে বলে বিন্দু। রুদ্রাক্ষের গায়ে যে শিরার মতো দাগ থাকে তাকে রুদ্রাক্ষের মুখ বলা হয়। একমুখী, দ্বিমুখী, তিনমুখী এভাবে ১ থেকে ২১ পর্যন্ত মুখ দেখা যায় রুদ্রাক্ষের। এছাড়া প্রতিটা রুদ্রাক্ষের আলাদা অধিষ্ঠিত দেবতাও আছে। একমুখী রুদ্রাক্ষ সন্ন্যাসীদের ব্যবহার করা উচিত। এটি মোক্ষের প্রতীক এবং মোক্ষলাভে সহায়ক। দ্বিমুখী রুদ্রাক্ষ অর্ধনারীশ্বরের প্রতীক এটি গৃহস্থের জন্য প্রশস্ত, ইত্যাদি।

আমাদের সমাজে বর্তমানে অনেকেই রুদ্রাক্ষ জপকে খারাপ নজরে দেখেন। এবং রুদ্রাক্ষের স্থানে সেখানে তুলসীর মালাতে হরে কৃষ্ণ নাম জপ করতে রীতিমতন বাধ্য করা হয় । কারণ সমাজের অধিকাংশ মানুষ সনাতন ধর্ম সম্পর্কে অজ্ঞ এবং অনেকেই এর মূল শাস্ত্র কোনটি সেটাও বলতে পারবেন না। যার সুযোগ নিচ্ছে কৃৈষ্ণব ধর্ম ব্যাবসায়ীরা।

তুলনামূলকভাবে বলতে গেলে রুদ্রাক্ষের সাথে তুলসীর কোনো তুলনাই চলে না। তুলসী মালায় শুধু ভগবান বিষ্ণু, কৃষ্ণ, লক্ষ্মীর মন্ত্রই জপ করা যায়। এমনকি বরাহ ও নৃসিংহের মন্ত্রও তুলসী মালায় জপ করা যায় না। অপরদিকে রুদ্রাক্ষের মালায় সর্বমন্ত্র জপ করা যায়।

তুলসী মূলত বিষ্ণুভক্তির প্রতীক (বৃন্দা দেবীর কাহিনী আশা করি জানেন নিশ্চয়ই), বৈষ্ণবেরা এক ধরণের প্রতীক হিসেবেই একে ধারণ করেন। অপরদিকে রুদ্রাক্ষ নিছক প্রতীকমাত্র নয়। এটি এনার্জি সেভার হিসেবে কাজ করে যা সাধকের সাধনা শক্তিকে জাগ্রত রাখতে সাহায্য করে। যাতে করে সাধনা সহজেই সফল হয়।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
      1
23242526272829
3031     
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!