ঢাকা

বেদে স্বর্গ-নরক বলতে কী বোঝানো হয়েছে

Rai Kishori
December 30, 2020 11:48 am
Link Copied!

স্বর্গলোক শব্দকে বিশ্লেষণ করলে ‘স্বঃ’, ‘গ’ এবং ‘লোক’ এই তিনটি অংশ পাওয়া যায়। স্বঃ শব্দের অর্থ– নিরুক্তের ২/১৩ তে “স্বঃ, প্রশ্নিঃ, দ্যৌঃ, নাক, বিষ্টপ্, নভ” এই ছয়টি নাম দ্যৌ- এর বলে উল্লেখ করা হয়েছে। অর্থাৎ এখান হতে দেখা যায় স্বঃ এবং দ্যৌ হচ্ছে সমার্থ একটি শব্দ। এবার দেখি নিরুক্তের ২/১২ তে দ্যৌ এর অর্থ কী দেওয়া– “অথ দ্যৌঃ কিমিতি সুখনাম” অর্থাৎ দ্যৌ হচ্ছে সুখের নাম। আর দ্যৌ ও স্বঃ সমার্থক শব্দ হওয়ায় স্বঃ শব্দের অর্থও হচ্ছে সুখ । গ শব্দের অর্থ– স্বর্গ শব্দে যে ‘গ’ রয়েছে সেটি (গম্লৃ গতো) গম অর্থাৎ গতি অর্থবোধক ধাতু থেকে উৎপন্ন। গতির তিন প্রকার অর্থ হয়ে থাকে: জ্ঞান, গমন ও প্রাপ্তি। তাই ‘স্বর্গম্মতে প্রাপ্যতেহস্মিন্নিতি স্বর্গঃ’ অর্থাৎ যার দ্বারা সুখের প্রাপ্তি হয়, তাই স্বর্গ।

বেদে স্বর্গ সম্পর্কে কি বলা হয়েছে

অষ্টচক্রা নবদ্বারা দেবানাং পুরযোধ্যা। তস্যাং হিরণ্ময়ঃ কোশঃ স্বর্গো জ্যোতিষাবৃতঃ।। (অথর্ববেদ – ১০/২/৩১) পদার্থঃ- এই মানব শরীর (অষ্টচক্রাঃ) আট চক্র এবং (নবদ্বারাঃ) নবদ্বারযুক্ত (দেবানাম্) দেবতাদের (অযোধ্যা) সর্বদা বিজয় অর্জনকারী (পুঃ) নগরী রয়েছে (তস্যাম্) তাহাতে (জ্যোতিষাঃ) জ্যোতি দ্বারা (আবৃতঃ) আবৃত, পরিপূর্ণ (হিরণ্ময়ঃ) হিরণ্যময়, স্বর্ণময় (কোশঃ) কোষ রয়েছে তা (স্বর্গঃ) স্বর্গ, আত্মিক আনন্দের ভাণ্ডার, পরমাত্মা ইহাতে নিহিত রয়েছেন।

ভাবার্থঃ- মন্ত্রতে মানব দেহের খুব সুন্দর চিত্রণ হয়েছে। আমাদের শরীর আট চক্রযুক্ত। সেই অষ্টচক্র হলো – নবদ্বার হলো – দুই চক্ষু, দুই কর্ণ, দুই নাসিকা ছিদ্র, এক মুখ, এক মলদ্বার ও এক মূত্রাদ্বার। এই নগরীতে যে হিরণ্যময়কোষ = হৃদয় রয়েছে, সেখানে জ্যোতি দ্বারা পরিপূর্ণ, আত্মিক আনন্দের ভাণ্ডার পরমাত্মা বিরাজমান রয়েছেন। যোগী ব্যাক্তি যোগ-সাধনা দ্বারা এই চক্রসমূহের ভেদ করে সেই জ্যোতিস্বরূপ পরমাত্মার দর্শন করে। বেদে স্বর্গ ও নরক: শব্দগত ভ্রমোচ্ছেদন সম্প্রতি কয়েকজন দাদা মহিধর ও সায়নের বেদভাষ্যের অনুবাদ পড়ে দাবি করছেন বেদে নাকি কোরান পুরাণের মত স্বর্গ নরক নামে আলাদা স্থানের কথা আছে। সনাতন ধর্ম পুনর্জন্মবাদে বিশ্বাসী। আমাদের মতে মানব জীবনের সুখী অবস্থাই স্বর্গ ও দুঃখময় পরিস্থিতিই নরক। এতদ্ব্যতীত স্বর্গ নরক নামে আলাদা কোন স্থান থাকা যে অযৌক্তিক সে বিষয়ে এই লেখাটি পড়ুন : ★এই লেখায় আমি বেশকিছু বেদের ইংরেজি অনুবাদকগণ সাধারণত সংস্কৃত দ্যৌ বা দ্যুলোক শব্দের অর্থ করেছেন “Heaven”, যা পড়ে কেও কেও ভাবছেন বেদে স্বর্গ নামক কোনো স্থানের কথা আছে।

বৈদিক শব্দকোষে ‘দ্যৌ’ বা দ্যুলোক শব্দের অর্থ কি? পণ্ডিত চন্দ্রশেখর উপাধ্যায় এবং শ্রী অনিল কুমার উপাধ্যায়(কেউই আর্য সমাজী নয়) সম্পাদিত “বৈদিক কোশ(শব্দকোষ)” এর ৭০৩ পৃষ্ঠায় লেখা আছে: “দ্যুৎ(চমকানো) প্রকৃতির সাথে ডো প্রত্যয় যুক্ত হয়ে দ্যৌ শব্দ সিদ্ধ হয়। দ্যৌ + খু = দ্যু শব্দ নিষ্পন্ন হয়। এর অর্থ প্রকাশমান অর্থাৎ যা নিজে নিজেই প্রকাশিত হয়(যেমন: সূর্যাদি নক্ষত্র যারা নিজের আলোয় স্বয়ং প্রকাশিত)।” একই শব্দকোষের ৭৩৯ পৃষ্ঠায় লেখা আছে “দ্যৌ = সূর্য” তাহলে বৈদিক শব্দকোষ থেকে দেখা যাচ্ছে দ্যুলোক হচ্ছে সেই স্থান যেখানে সূর্যাদি নক্ষত্রসমূহ বিচরণ করে। দ্বিতীয়ত অনুবাদক কিছু কিছু ক্ষেত্রে ‘অন্তরিক্ষ’ অর্থ করেছেন “Heaven”, এবার দেখে নেই ‘অন্তরিক্ষ’ এর বৈদিক অর্থ কি? “বৈদিক কোশ” এর ৬০ পৃষ্ঠায় বলা আছে, ‘অন্তরিক্ষ = অন্তরে ক্ষিয়তি’ অর্থাৎ মহাকাশ বা দ্যুলোক ও পৃথিবীর মধ্যবর্তী যে স্থান তার নামই অন্তরিক্ষ’ অর্থাৎ আমরা দেখতে পাচ্ছি দ্যুলোক বা অন্তরিক্ষ কোনোটিই এমন কোন স্থানকে নির্দেশ করে না যা কিনা পুরাণ কোরানে বর্ণিত মৃত্যু পরবর্তী সময়ে প্রাপ্ত বিলাসময় কোন স্থান।

দেখে নেই বৈদিক শব্দকোষে স্বর্গ নরক নামে পৃথিবী বহির্ভূত কোন বিলাসবহুল বা ভয়ার্ত কোন স্থানের কথা বলা আছে কিনা! অনেকে দ্যুলোককে স্বর্গলোক বলেন। বৈদিক কোষেও একস্থানে দ্যুলোককে স্বর্গলোক বলা হয়েছে। কিন্তু এই স্বর্গ কি? “বৈদিক কোশ” এর ১৪৭৫-৭৬ পৃষ্ঠায় স্বর্গের ব্যাখ্যা আছে- ★★“স্বর্গ- স্বর্ + গ। (১) সুখ প্রদান করে এমন পদার্থ। (২) আনন্দময় মোক্ষ। (৩) সুখার্থ পুরুষার্থ।” অর্থাৎ দেখতে পাচ্ছি স্বর্গ এমন কোন স্থান না যেখানে রম্ভা উর্বশী অপ্সরা বা হুর বসবাস করে না। বরং জীবনের সুখাবস্থা বা মৃত্যুর পর পরম পুরুষার্থ বা মোক্ষকেই স্বর্গ বলা হয়েছে। ইতি নরকং ন্যরকং নীচৈঃ গমন। শচীঃ মদন্তে উত দক্ষিণাভিঃ ন ইৎ জিক্মায়ন্ত্যঃ নরকং পতাম। নিরুক্ত ১/১১ ,,, নরক অর্থ অধঃপতন বা নিম্নাভিমুখে পতন। যে অবস্থায় সামান্য সুখ ও থাকে না, তাই নরক।

নরক এর অর্থ –

 ‘বৈদিক কোশ’ এর ৭৬৯ পৃষ্ঠায় ‘নরক’ এর ব্যাখ্যায় বলা আছে- “নরক- (১) ন্যরকম্- নীচৈঃ গমনম্ অর্থাৎ নীচে বা অধঃপতিত হওয়া। (২) নীচৈঃ অস্মিন্ অর্য়তে অর্থাৎ নীচ বা দুষ্ট মানুষদের সহবাস বা অনুকরণে নরকে যায় বা অধঃপতিত হয়।” অর্থাৎ দেখতে পাচ্ছি নরক কোন আলাদা স্থানের নাম নয়। বরং দুষ্টলোকের সাথে থেকে অধপতিত হওয়াই নরক বা যে দুর্দশা প্রাপ্ত হয় সেটাই নরক। অর্থাৎ দেখতে পাচ্ছি যেসব শব্দের আধারে মহীধর সায়ণরা স্বর্গ নরক নামক কল্পিত স্থানের কথা তাদের বেদভাষ্যে উল্লেখ করেছেন তার কোন বৈদিক ব্যুৎপত্তিগত ভিত্তি নেই।

অগ্নিবীর

http://www.anandalokfoundation.com/