ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িকতার সবচেয়ে বড় শিকার হিন্দু সম্প্রদায় -মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রী

ডেস্ক
January 20, 2023 8:17 pm
Link Copied!

বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িকতার সবচেয়ে বড় শিকার হিন্দু সম্প্রদায়। হিন্দুদের পূজায় সুপরিকল্পিতভাবে রাতের অন্ধকারে সবার অলক্ষ্যে কুরআন শরীফে রেখে এসে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়। পাকিস্তানের অনুসারী এসব স্বাধীনতা বিরোধীরা ঘাপটি মেরে থাকে। যখন‌ই কোনো সুযোগ পায় তারা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করার চেষ্টা করে।’ বলেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

আজ শুক্রবার রাজধানীর সুপ্রিম কোর্ট মিলনায়তনে বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের আয়োজনে আন্তর্জাতিক হিন্দু সম্মেলন ও গুণীজন সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মোজাম্মেল হক বলেন, ‘ এটা কোনো সুইচ না যে টিপ দিলেই মাথা থেকে সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প চলে যাবে। এটার কোনো পানিপড়া বা তাবিজ-কবচ নেই যে তা দিয়ে এই ভূত দূর করা যাবে। দীর্ঘকাল ধরে সাম্প্রদায়িক শাসকরা এটা মানুষের মগজে গভীরভাবে ঢুকিয়ে দিয়েছে। একদিনে দুইদিনে দূর করা যাবে না। ‘সাম্প্রদায়িকতার শিকড় অনেক গভীরে।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিনরাত চেষ্টা করে যাচ্ছেন এ সমস্যা থেকে দেশকে উদ্ধার করার জন্য।’

অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যর্পণ আইন বাস্তবায়ন সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ‘এ আইনে পরিষ্কার বলা আছে যে জজ কোর্টের পরে আর কোনো রায় হবে না। কিন্তু বিভিন্ন জেলার জেলা প্রশাসকরা সেই সম্পত্তি ধরে রাখার জন্য হয় আপীল করছে, নয়তো নানা টালবাহানা করে মানুষকে হয়রানি করছে। আইন লঙ্ঘন করছে। এই ব্যাপারে সনাতন ধর্মাবলম্বীদেরকেও একটু ভূমিকা পালন করতে হবে। নিজেদের অধিকার আদায়ের জন্য সোচ্চার ও সঙ্ঘবদ্ধ হতে হবে। দুই এক জন অফিসারের শাস্তি হলে দৃষ্টান্ত তৈরি হবে।’

সম্মেলনে থেকে ওঠা সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন প্রণয়নের দাবি সম্পর্কে মোজাম্মেল হক বলেন, ‘সংবিধানে ধর্মীয় স্বাধীনতার নিশ্চয়তা দেওয়া আছে। তারপরও যদি সংখ্যালঘুদের অধিকার খর্ব হয় ও তারা নির্যাতনের স্বীকার হয় তাহলে সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন হতে পারে।’সাম্প্রদায়িকতার সবচেয়ে বড় শিকার

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ঢাকা ইসকনের (ফুড ফর লাইফ) পরিচালক  রূপানুগ গৌর দাস ব্রহ্মচারী বলেন, ‘আমরা কঠিন পরিস্থিতির মধ্যে সময় কাটাচ্ছি। ১৯৪৬ সালের নোয়াখালীর দাঙ্গার পর থেকে হিন্দু সম্প্রদায়কে উৎপাটনের জন্য যে চক্রান্ত চলছে, তা আজও বন্ধ হয়নি। নীরবে আমাদের শ্বাসরুদ্ধ করা হচ্ছে।’

সম্মেলনে হিন্দু পরিষদের মুখপাত্র সুমন কুমার রায় বলেন, ‘সরকারকে বলতে চাই, আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে সংখ্যালঘুদের দেয়া প্রতিশ্রুতির যদি বাস্তবায়ন না হয়,  সংখ্যালঘু সম্প্রদায় জানে, কীভাবে দাবি বাস্তবায়ন করতে হয়। সংখ্যালঘু সম্প্রদায় আজকে সজাগ। তাদের মুলা ঝুলিয়ে শুধু ভোট ব্যাংক হিসেবে ব্যবহার করা যাবে না। সম্মেলনের মাধ্যমে আমরা বলতে চাই, সংখ্যালঘু সম্প্রদায় আর কোনো রাজনৈতিক দলের বলির পাঠা হিসেবে, ভোট ব্যাংক হিসেবে ব্যবহৃত হবে না।’

সুমন কুমার রায় আরো বলেন, ‘সংখ্যালঘু সম্প্রদায় সব রকম বৈষম্যরোধে এবং রাজনৈতিক ও সামাজিক অধিকার আদায়ে ভবিষ্যতে শুধু ঘরোয়া নয়, রাজপথেও ঐক্যবদ্ধভাবে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলবে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত রাজপথে থাকবে তারা।’

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন হিন্দু পরিষদ আন্তর্জাতিক কমিটির (আমেরিকা) সভাপতি সত্যব্রত কর। সকালে মঙ্গলপ্রদীপ প্রজ্বালন ও নামসংকীর্তনের মাধ্যমে এই সম্মেলনের উদ্বোধন করা হয়।

এ সময় অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি শ্রী দীপঙ্কর শিকদার দিপু, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী বীর মুক্তিযোদ্ধা মনোরঞ্জন ঘোষাল, গণ আযাদী লীগ সভাপতি এসকে সিকদার, এডভোকেট রবীন্দ্র ঘোষ, অধ্যাপক হীরেন বিশ্বাসসহ হিন্দু পরিষদের নেতৃবৃন্দ ও বিভিন্ন শ্রেণিপেশার ব্যক্তিরা।

http://www.anandalokfoundation.com/