গড় আয়ে অনেক পিছিয়ে থাকলেও নিত্যপণ্যের দামে উন্নত দেশের তুলনায় এগিয়ে বাংলাদেশ

    নিউজ ডেস্ক
    October 26, 2021 12:18 pm
    Link Copied!

    বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর হিসাবে, দেশে একজন নাগরিকের মাসিক গড় আয় প্রায় ১৬ হাজার টাকা। যেখানে যুক্তরাষ্ট্রের গড় আয় চার লাখের বেশি, অস্ট্রেলিয়ায় প্রায় সাড়ে চার লাখ আর যুক্তরাজ্যে তিন লাখ টাকা। গড় আয়ে অনেক পিছিয়ে থাকলেও নিত্যপণ্যের দামে উন্নত দেশের তুলনায় এগিয়ে বাংলাদেশ। শহরের বাসিন্দাদের এক লিটার দুধ কিনতে হয় আশি টাকায়। উন্নত দেশে যা সত্তর টাকার মধ্যে। গরুর মাংসের দাম উন্নত দেশের তুলনায় কেজিতে অন্তত দেড়শ টাকা বেশি। এছাড়া ডিম, পেঁয়াজ ও চিনির দাম অস্ট্রেলিয়া, যুক্তরাজ্য ও জার্মানির বাজার দরের কাছাকাছি।

    সিন্ডিকেট করে বৃহৎ শিল্প গোষ্ঠীর স্বার্থ রক্ষাকারীর দাপটে নিম্ন আয়ের মানুষ সবাই নীরব দূ্র্ভিক্ষের শিকার। দ্রব্যমূল্যের দাম কমানো আজ একদফায় পরিণত হয়েছে।

    বিশ্বের অন্যান্য দেশের নাগরিকদের মাথাপিছু আয় অনুযায়ী নিত্যপণ্যের দামঃ

    কানাডা: টরেন্টোতে এক কেজি গরুর মাংস বাংলাদেশী টাকায় ২৫৬ টাকা। এক লিটার দুধের দাম ৮৫ টাকা। কানাডার মানুষের মাথাপিছু আয় প্রায় ৪৫ হাজার ডলার।

    আমেরিকা: নিউইয়র্কে এক কেজি গরুর মাংস ৫০০ টাকা। দুধের লিটার ৬৫ টাকা। ডিমের ডজন ১৬০ টাকা। এক লিটার সয়াবিন তেল ১০০ টাকা। আমেরিকানদের মাথাপিছু আয় প্রায় ৬০ হাজার ডলার।

    অষ্ট্রেলিয়া: সিডনিতে এক কেজি গরুর মাংস ৪৮৮ টাকা। এক লিটার দুধ ৬১ টাকা। ডিমের ডজন ২৪৪ টাকা। অস্ট্রেলিয়ানদের মাথাপিছু আয় প্রায় ৫৪ হাজার ডলার।

    সুইজারল্যাণ্ড: জুরিখে এক কেজি গরুর মাংস ৬০০ টাকা। দুধের লিটার ৫০ থেকে ৬৫ টাকা। ডিমের ডজন ১৮০ টাকা। সুইজারল্যাণ্ডের মাথাপিছু আয় প্রায় ৮০ হাজার ডলার।

    জার্মানী: বন শহরে এক লিটার দুধ ৬০ টাকা। এক ডজন ডিম ৬৫ থেকে ৭০ টাকা। রান্নার তেল ৯০ থেকে ৯৫ টাকা লিটার। জার্মানির মাথাপিছু আয় প্রায় ৪৭ হাজার ডলার।

    ইংল্যাণ্ড: লন্ডনে গরুর মাংসের কেজি ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা। এক ডজন ডিম ৯০ টাকা। রান্নার তেল ১০০ থেকে ১১০ টাকা লিটার। দুধের লিটার ৯০ টাকা। ইংল্যাণ্ডের মানুষের মাথাপিছু আয় প্রায় ৪০ হাজার ডলার।

    ইতালী: ভেনিসে গরুর মাংসের কেজি ৫৫০ টাকা। এক লিটার দুধ ৫০ টাকা। ডিমের ডজন ১২০ টাকা। তেল ১০০ থেকে ১১০ টাকা লিটার। দেশটির মাথাপিছু আয় প্রায় ৩২ হাজার ডলার।

    জাপান: টোকিওতে গরুর মাংসের কেজি ১ হাজার ২০০ টাকা। ডিমের ডজন ২০০ টাকা, দুধের লিটার ২০০ টাকা। মাথাপিছু আয় প্রায় ৪০ হাজার ডলার।

    কোরিয়া: সিউলে গরুর মাংস ৭৫০ টাকা কেজি, দুধের লিটার ১১৫ টাকা, ডিমের ডজন ৯৫ টাকা, খাসির মাংস ৭১৫ টাকা কেজি। কোরিয়ার মানুষের মাথাপিছু আয় প্রায় ৩৩ হাজার ডলার।

    সিঙ্গাপুর: সিঙ্গাপুরে প্রায় সব জিনিসই আমদানি করা। এখানে ফ্রোজেন গরুর মাংসের কেজি ৫৫৮ টাকা। এক ডজন ডিম ১০৮ টাকা। সিঙ্গাপুরের মাথাপিছু আয় প্রায় ৫৮ হাজার ডলার।

    ভারত: কলকাতায় গরুর মাংসের কেজি ২১০ থেকে ২৪০ টাকা, খাসির মাংস ৭০০ থেকে ৭২০ টাকা। দুধের লিটার ৪৮ থেকে ৫০ টাকা। এক ডজন ডিম ৬০ টাকা। ভারতের মাথাপিছু আয় প্রায় ২২০০ ডলার।

    বাংলাদেশ: ঢাকায় এক কেজি গরুর মাংস প্রায় ৬০০ টাকা। এক কেজি প্যাকেট তরল দুধ ৭০ টাকা। ফ্রেশ দুধ ৮০ থেকে ১০০ টাকা লিটার। এক ডজন ডিম ১০০ থেকে ১১০ টাকা। এক লিটার সয়াবিন তেল ১৪৫ থেকে ১৫০ টাকা। বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় প্রায় ১৮০০ ডলার।

    মনে রাখি, কানাডার একজন শ্রমিক ঘণ্টায় আয় করেন ৭ হাজার ৬০০ টাকা, বাংলাদেশি শ্রমিকের ঘণ্টায় আয় ৩৩ টাকা, দিনে ২৬৭ টাকা।

    পর্যাপ্ত প্রোটিন ও ক্যালোরী না পাওয়ায় বাংলাদেশে অপরিণত শিশু জন্মহার সবচেয়ে বেশি। আয় এবং প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যে সামঞ্জস্য না থাকায় বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষের সুস্থ-স্বাভাবিক মেধার বিকাশ ঘটছে না।