শুক্রবার, ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০১:১৩ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
চন্দ্রগঞ্জে শ্লীলতাহানীর দায়ে ৫ বখাটের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করোনা আতংকেও যুদ্ধবিরতি লংঘন করে ভারতের সেনা ঘাঁটিতে পাকিস্তানের হামলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মক্কা ও মদিনায় ২৪ ঘণ্টা কারফিউ জারি করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর ৩১ দফা নির্দেশনা করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ৫ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন জুম্মার নামাজে দেশের সব মসজিদে বাংলা বয়ান না দিয়ে খুতবা দেওয়ার আহ্বান দায়িত্ব পালনকালে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশ রুদ্রাক্ষে তুলসী মালার মত কৃষ্ণ মন্ত্র জপ করা যায়? কি এর গুনাগুন? করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সকলকে একত্রিত হয়ে কাজ করতে হবে -খন্দকার মোশাররফ নন্দীগ্রামে একেএম ফজলুল হকের ব্যক্তিগত উদ্যোগে মাস্ক ও সাবান বিতরন

বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার প্রথম প্রস্তাবকারি ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের বাড়ি ধ্বংসস্তূপ

ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের বাড়ি

মাসুদ আলম।। সময়ের পরিক্রমায় প্রতি বছরই ফিরে আসে ভাষার মাস ফেব্রুয়ারী। ভাষা সৈনিকদের শ্রদ্ধা জানাতে তখন চোখে পড়ে রাষ্ট্রের অনেক উদ্যোগ-আয়োজন। ভাষা সৈনিকদের অন্যতম একজন শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত। মূলত তিনিই বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার আন্দোলনের বীজবপণকারী। পাকিস্তান গণপরিষদে বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার প্রথম প্রস্তাবকারি তিনি। অথচ বাংলার এই সূর্যসন্তানের স্মৃতিবিজড়িত একমাত্র বাড়িটি প্রশাসনের অবহেলা আর উত্তরাধিকারীদের ইতিবাচক সাড়ার অভাবে হারিয়ে যেতে বসেছে।

ভাষা সৈনিকের বাড়িটি এখন ময়লা আবর্জনায় সয়লাব। বাড়িটির দক্ষিণ পাশে হাসপাতালের বর্জ্য, অন্যপাশে নালার দুর্গন্ধযুক্ত কালো পানি, মাঝে টিনশেডের একটি ঘর, তার পেছনে জঙ্গলে ঢাকা পড়েছে চারকক্ষবিশিষ্ট ভবনটি, যা একেবারে জরাজীর্ণ! টিনশেডের ঘরটির চালও ফুটো, যেটি বৈঠকখানা হিসেবে ব্যবহার করতেন ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত। আর বর্ষা মৌসুমে একটু বৃষ্টি হলেই জমে হাঁটু পানি। চরম অযত্ন-অবহেলায় পড়ে থাকা বাড়িটির সংস্কার ও সংরক্ষণের উদ্যোগ আজও কেউ নেয়নি। ২০১০ সালে তৎকালীন তথ্য ও সংস্কৃতিমন্ত্রী বাড়িটি পরিদর্শন করে এখানে ভাষা সৈনিক ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্মৃতি জাদুঘর নির্মাণের আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু ৯ বছর পেরিয়ে ১০ বছরে পা দিলেও সেই আশ্বাস পূরণে আর কোনো উদ্যোগ নেওয়া হয়নি সরকারের পক্ষ থেকে। কুমিল্লা নাগরিক ফোরাম, সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং বিশিষ্ট ব্যক্তিদের দাবি এই ভাষা সৈনিকের স্মৃতিরক্ষার্থে বাড়িটি সংস্কার, সংরক্ষণ করে ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত জাদুঘরে রূপান্তর করা হোক।

সরেজমিন ঘুরে দেখা গেল, কুমিল্লা নগরীর ঝাউতলা ধর্মসাগরের পশ্চিমপাশে ভাষা সৈনিকের সেই বাড়িটি একেবারেই বসবাসের অনুপযোগী। বাড়িতে ঢুকতেই চায়ের দোকান, বৈঠকখানার টিনশেডের ঘরটিতে রয়েছে মোট ছয়টি কক্ষ, যার দুইটি কক্ষে প্রায় ১৩ বছর ধরে পরিবার নিয়ে বসবাস করেন সুজন মিয়া নামে একজন। তিনি মারা যাওয়ার পর তার স্ত্রী জাহানারা বেগম এবং ছেলে রিপন মিয়া তার পরিবার নিয়ে বর্তমানে সেখানে বাস করছেন। তারা মূলত কেয়ারটেকার হিসেবে এই বাড়িতে আছেন। পেছনের বাকি ৪টি কক্ষে পঁচাপানি, ময়লা-আর্বজনায় পরির্পূণ। দেয়ালের ইটগুলো খসে খসে পড়ছে। বাড়ির বাইরের দিকটাও ময়লা-আর্বজনার স্তূপে পরিপূর্ণ। বিভিন্ন ময়লা-আবর্জনা ও জঙ্গলে চারটি কক্ষ ঢাকা পড়েছে। ভাষা সৈনিক ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত যে কক্ষে ঘুমাতেন সেখানে তাঁর শোবার খাটটি এখনো রয়েছে, রয়েছে তাঁর বালিশ। আরো আছে খাওয়ার প্লেট, পানির গ্লাস, গায়ের কাঁথা। এগুলো কিছুই সংরক্ষণের ব্যবস্থা নেই। পড়ে আছে এদিক-সেদিক। বাড়ির সামনে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত নামের সাইনবোর্ডটিও ভেঙে পড়ে গেছে। পুরো বাড়িটিই এখন ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। ফলে এই সূর্যসন্তানের স্মৃতি এখন নিঃশেষ হওয়ার পথে।

স্থানীয় বিশিষ্টজনেরা জানান, তৎকালীন তথ্য ও সংস্কৃতিমন্ত্রী আবুল কালাম আজাদ ২০১০ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর বাড়িটি পরিদর্শন করেন। তিনি চারদিক ঘুরে বাড়িটির সার্বিক পরিবেশের দুরবস্থা দেখে তখন হতাশা ব্যক্ত করেন। পরিদর্শন শেষে ভাষা সৈনিক ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্মৃতি জাদুঘর নির্মাণের কাজ খুব শিগগির শুরু হবে বলে আশ্বাস দেন। কিন্তু সে আশ্বাস আশ্বাসই থেকে গেছে, বাস্তবায়ন হয়নি।ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের নাতনি একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার (এনজিও) কর্মকর্তা অ্যারোমা দত্ত বলেছিলেন, এখানে ১৫ শতক জায়গা রয়েছে। জাল-দলিল করে জনৈক ব্যক্তি ওই জায়গার মালিকানা দাবি করেন। এরপর সেটা নিয়ে মামলা হয়। এ জায়গাটিই আমাদের একমাত্র সম্বল। এখানে উঁচু দালান করে এর প্রথম ও দ্বিতীয় তলায় শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্মৃতি জাদুঘর করতে চাই। বাকিগুলো নিজেদের কাজে ব্যবহার করবো।

মুঠোফোনে তিনি আরো বলেন, ভাষা আন্দোলনের প্রথম বীজ বপণকারী ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত। যিনি পাকিস্তান গণপরিষদে বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার প্রথম প্রস্তাবকারী। এমনকি তিনি পাকিস্তান সরকারের রোষানলে পড়ে বহুবার কারাবরণ করেন। পরে ১৯৭১ সালে পাকিস্তানি মিলিটারিদের হাতে পুত্রসহ তার মৃত্যু হয়। আমরা এখনো তার লাশ পাইনি। যিনি দেশের জন্য এতোকিছু করেছেন পারলে সরকার তার জন্য কিছু করুক।

কুমিল্লার বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শাহাজান চৌধুরী বলেন, বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার প্রথম প্রস্তাবকারী যিনি পাকিস্তানি মিলিটারিদের হাতে নির্যাতিত হয়ে মারা গেছেন কুমিল্লার সেই সূর্যসন্তান শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের স্মৃতিবিজড়িত বাড়িটাও হারাতে বসেছি আমরা। এই বাড়ির উত্তরাধিকারীদের একমাত্র সম্পদ যেহেতু বিলিয়ে দিতে নারাজ, সেহেতু সরকার তাদের কাছ থেকে কিনে নিতে পারে বাড়িটি। বিকল্প হিসেবে অন্য কোনো স্থানে এমন কিছু করা হোক যেন আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্তকে স্মরণ করতে পারে।

সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) কুমিল্লা জেলা সাবেক সভাপতি আলী আকবর মাসুম বলেন, আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম ধীরেন্দ্রনাথ দত্তকে ভুলতে বসেছে। অযত্ন-অবহেলায় পড়ে থাকায় একমাত্র বাড়িটিও সংস্কার ও সংরক্ষণের অভাবে হারাতে বসেছি। স্মৃতিরক্ষার্থে যে কোন মূল্যেই হোক শচীন দেবের বাড়ির মতো সংস্কার করে ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের বাড়িটিও সংরক্ষণ করার দাবি জানান তিনি।

কুমিল্লা জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের বাড়িটি ব্যক্তি মালিকানা। যদি সরকারি সম্পত্তি হতো, তাহলে আমরা জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে কিছু করতে পারতাম। এখনো তাদের ওয়ারিশ বেঁচে আছেন। তারা যদি সরকারকে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের সম্পত্তি দান করে, তাহলে সরকার তার স্মৃতিরক্ষার্থে জাদুঘরসহ আরো ভালো কিছু করতে পারবে।

উল্লেখ্য, ১৯৪৮ সালের ২৫ ফেব্রæয়ারি পাকিস্তান গণপরিষদে কুমিল্লার এই সাহসি সন্তান ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত সর্বপ্রথম বাংলাকে ‘রাষ্ট্রভাষা’ করার দাবি উত্থাপন করেন। এতে তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের রোষানলে পড়ে তিনি বহুবার কারাবরণ করেন। পরে ১৯৭১ সালের ২৯ মার্চ গভীর রাতে নিজ বাড়ি থেকে পাকিস্তানি মিলিটারিরা পুত্র দিলীপ দত্তসহ তাকে কুমিল্লা সেনানিবাসে ধরে নিয়ে যায়। সেখানে ৮৫ বছর বয়সি এই দেশপ্রেমিক রাজনীতিকের ওপর চালানো হয় অমানবিক নির্যাতন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পরও তার মৃতদেহ খুঁজে পাওয়া যায়নি। আমাদের কুমিল্লা।।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930 
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit