ঠিকমত হাটতে না পারলেও মন্দিরে হামলা করে দৌড়ে পালিয়েছে প্রতিবন্ধী!

    অনলাইন ডেস্ক
    October 26, 2021 2:59 pm
    Link Copied!

    গৌরনদী (বরিশাল)প্রতিনিধি: বরিশালের গৌরনদী উপজেলার বার্থী ইউনিয়নের ধুরিয়াইল শ্রী শ্রী কাজীরপাড় সার্বজনীন দূর্গামন্দিরে সন্ত্রাসীদের হামলা প্রতীমা ভাঙচুরের ঘটনায় ২২ জনের নাম উল্লেখসহ ৮২ জনের বিরুদ্ধে গৌরনদী মডেল থানায় একটি মামলা মামলা হয়েছে।

    মামলার ৩নং আসামি উপজেলার ধুরিয়াইল গ্রামের রফিকুল ইসলাম ওরফে শাহীন হাওলাদার (৫৬) জন্মগতভাবে এক পা খাট একজন প্রতিবন্ধী। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, ঘটনার সময় দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে মন্দিরে হামলা ভাঙচুর করে দৌড়ে পালিয়ে যায়। প্রতিবন্ধীর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়েরে ক্ষুব্ধ হয়েছে গ্রামের মানুষ। প্রতিবাদ জানিয়ে প্রতিবন্ধীর বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যহারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খুষ্টান কল্যান পরিষদের নেতৃবৃন্দ।

    এজাহার সূত্রে জানা গেছে, শারদীয় দূর্গা উৎসবের বিজয় দশমীর দিন (শুক্রবার ) রাত ৮ টার দিকে ধুরিয়াইল শ্রী শ্রী কাজীরপাড় সার্বজনীন দূর্গামন্দিরে লাঠিসোটা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ৫০/৬০ সন্ত্রাসী মন্দিরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় পরের দিন (১৬ অক্টোবর) মন্দির কমিটির সাধারন সম্পাদক সুভাষ বৈদ্য বাদি হয়ে যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য মোঃ রফিকুল ইসলাম ওরফে কাজল (৪০), গৌরনদী উপজেলার ধুরিয়াইল গ্রামের মৃত মাজাহারুল ইসলামের পুত্র উপজেলা বিএনপির সদস্য মোঃ রফিকুল ইসলাম ওরফে শাহীন হাওলাদার সবাই খোড়া শাহীন হিসেবে চিনেন, আগৈলঝাড়া উপজেলার রাজিহার ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান জামিল (৪৬), যুবদল কর্মী সোহেল সিকদার (২৫), সবুজ ঢালী (২৮)সহ ৮২ জনের বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।

    গৌরনদী উপজেলার ধুরিয়াইল গ্রামের মৃত মাজাহারুল ইসলামের পুত্র রফিকুল ইসলাম ওরফে শাহীনকে মামলার ৩নং আসামি করা হয়। রফিকুল ইসলাম ওরফে শাহীন অভিযোগ করে বলেন, আমি জন্মগতভাবে একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী। আমার একটি পা খাট, আমি ঠিক মত হাটতে পারি না অথচ আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ, আমি অস্ত্র শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ৫০/৬০ জন সন্ত্রাসী নিয়ে মন্দিরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও তিন লাখ টাকার মালামাল লুট করি এবং এলাকার লোকজন ও পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছলে দৌড়ে পালিয়ে যাই। প্রতিহিংসা বসত হয়রানী করতে আমাকে আসামি করা হয়েছে। স্থানীয় হারুন আর রশিদ (৬৫) বলেন, জন্মের পর থেকে দেখেছি রফিকুল ইসলাম খোরা শাহীন পারে না ঠিকমত দুই কদম হাটতে সে মন্দির ভেঙ্গে দৌড়ে পালাল। একই গ্রামের রুহুল আমিন গাজী (৫০) বলেন, ছোট বেলা থাইক্কা দেইক্কা আইছি শাহীন কারো সাথে কোন ঝগড়া বিবাদ করে নাই। ২০/২৫ বছর আগে শাহীন ঢাকা চইল্লা গেছে, গ্রামে খুব একটা আসে না। বার্থী ইউনিয়ন পরিষদের ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য স্থানীয় এইচ, এম, সরোয়ার হোসেন খোকন বলেন, একজন প্রতিবন্ধী মানুষ যার হাটা চলা করতেই কষ্ট হয় তার দ্বারা মন্দিরে হামলা করা সম্ভব নয়। শাহীনের দ্বারা মানুষের ক্ষতির চিন্তা করাও ভূল । গৌরনদী উপজেলা হিন্দু বৌদ্ধ খৃষ্ঠান কল্যান ফ্রন্টের সভাপতি দুল রায় ও সাধারন সম্পাদক মানিক মূখার্জী একজন প্রতিবন্ধীকে মন্দিরের হামলা ভাঙচুর লুটপাটের মামলায় জড়ানো অমানবিক। এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষকে বিতর্কিত করার সামিল। প্রতিবন্ধীকে মানবকি কারনে মিথ্যা মামলা থেকে অব্যহতি দেয়া উচিত।

    এ অভিযোগ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মামলার বাদি ও মন্দির কমিটির সাধারন সম্পাদক সুভাষ বৈদ্য বলেন, হামলার সময় আমি ঘটনাস্থলে ছিলাম না। আমি মামলার আসামিদের সম্পর্কে কিছুই জানি না বা চিনি না। বার্থী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বার্থী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক হাওলাদার আমাকে ধরে থানায় নিয়ে জোর করে কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে মামলা করেছে। এ অভিযোগ অস্বীকার করে আব্দুর রাজ্জাক হাওলাদার বলেন, বাদি সুভাষ বৈদ্য স্বেচ্ছায় ও স্বপ্রনোদিত হয়ে হয়ে থানায় উপস্থিত হয়ে আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে। এ প্রসঙ্গে গৌরনদী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোঃ আব্দুল হক বলেন, বাদি মামলা দায়ের করেছে। তদন্ত চলছে তদন্তে প্রতিবন্ধী নির্দোষ হলে উধর্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে পরামর্শ করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।