13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

গৌরনদীতে থামছেইনা নির্বাচনী সহিংসতা

Link Copied!

বরিশাল গৌরনদী উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে রোববার (৯ জুন)। নির্বাচনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হারিছুর রহমানকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মনির হোসেন মিয়া। বিচ্ছিন্ন দু’একটি ঘটনা ছাড়া নির্বাচন হয়েছে শান্তিপূর্ন। তবে নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ার পরপরই সহিংসতা ছড়িয়ে পরেছে পুরো উপজেলাজুড়ে। বিজয়ী চেয়ারম্যানের সমর্থকদের ওপর একের পর এক হামলা, বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে পরাজিত প্রার্থী ও তার সমর্থকদের বিরুদ্ধে। পাল্টা হামলায় পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদেরও আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

সর্বশেষ বৃহস্পতিবার রাতে বিজয়ী চেয়ারম্যানের সমর্থক উপজেলার বড় কসবা এলাকার মোশারেফ ফকিরের বাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে মোশারফ ফকিরের মেয়ে জামাতা মঈন বখতিয়ার আহত হয়েছে। আহতের কাছ থেকে ৫২ হাজার টাকা ছিনতাই করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে। এসময় দুই নারীর শ্লীলতাহানি ঘটিয়েছে পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকরা। হামলায় পরাজিত প্রার্থীর সমর্থক কসবা এলাকার ইমাদ খান, রায়হান ফকির, কাওছার ফকির ও কাসেমবাদ এলাকার সোহান খান সহ ২০/৩০ জন কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা অংশগ্রহন করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

একইদিন সকালে উপজেলার নলচিড়া ইউনিয়নের কলাবাড়িয়া এলাকায় বিজয়ী চেয়ারম্যানের সমর্থক মাইনউদ্দিন সরদারের মাথায় চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে জখম এবং সেলিম সরদারকে পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করা হয়েছে। পরাজিত প্রার্থীর সমর্থক সজল, বাবু সহ ১০/১২ জন এই হামলা চালায়। রাতে আহতদের বরিশাল শেরই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে মূমূর্ষ অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। অপরদিকে উপজেলার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের কমলাপুর এলাকায় পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থক যুবলীগ নেতা ফরিদ বেপারী ও পাঁচটি ডাকাতি মামলার সাবেক আসামী (সাবেক ডাকাত) নুরুল ইসলাম হাওলাদারের নেতৃত্বে বিজয়ী প্রার্থীর সমর্থকদের লাঞ্চিত সহ বিভিন্ন ধরনের হুমকি প্রদান করা হচ্ছে। এ নিয়ে ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

বিজয়ী উপজেলা চেয়ারম্যান মনির হোসেন মিয়া অভিযোগ করে বলেন, পরাজিত প্রার্থী হারিছুর রহমানের নির্দেশে একের পর এক সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটছে। কাউন্সিলর ইখতিয়ারের বাড়িতে হামলা-ভাংচুরের ঘটনায় হারিছুর নিজেই অংশগ্রহন করেছে। এ পর্যন্ত তার কমপক্ষে ১৫/১৬ জন সমর্থকের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামীরা এলাকায় ঘুরে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করলেও তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছেনা। ওসির রহস্যজনক ভূমিকার কারনে আমার সমর্থকদের ওপর হামলার ঘটনা বেড়েই চলছে। হারিছুর রহমানের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের জন্য অতিদ্রুত তাকে গ্রেপ্তার করা না হলে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারন করতে পারে।

অভিযোগ অস্বীকার করে পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থী হারিছুর রহমান বলেন, বিজয়ী প্রার্থীর কর্মীরা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় হামলা চালিয়ে আমার ১০/১৫ কর্মীকে কুপিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে। গৌরনদী মডেল থানার ওসি মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন, বিজয়ী চেয়ারম্যানের অভিযোগ সঠিক নয়। যেখানেই সংঘর্ষের খবর পাওয়া যাচ্ছে সেখানেই পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করা হচ্ছে।

http://www.anandalokfoundation.com/