রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০১:১২ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
শাশুড়ি এবং স্ত্রী সহ দুই প্রতিবেশিকে খুন করে খুনির আত্মহত্যা হিন্দু সংস্কৃতির সুপ্রাচীন রীতি শঙ্খধ্বনি গৃহস্থের মঙ্গল বয়ে আনে পরমাণু চুক্তিতে আমেরিকাকে ফেরাতে ভারত বড় ভূমিকা নিতে পারে আশাবাদী ইরান ধার শোধে বাবার সহায়তায় ১৩ বছরের মেয়েকে নিয়মিত ধর্ষণ, রাজি না হলে নির্যাতন রক্তপাত ছাড়াই কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে ১৫ দেশের রাষ্ট্রদূতদের সন্তোষ প্রকাশ যুদ্ধ পরিস্থিতির মাঝেই মহাকাশ দখলে স্যাটেলাইট পাঠাচ্ছে ইরান কবর খুঁড়তেই বেরিয়ে এলো জীবন্ত নবজাতক ২ সন্তানের বেশি আর নয়, জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রনে দেশজুড়ে প্রচারে নামল RSS জেনে নেই ফজর নামাজ পড়তে না পারলে কি করণীয় মিয়ানমারের সঙ্গে ৩৩টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সই চীনের

কালের স্বাক্ষী হয়ে টিকে আছে ৩০০ বছরের পুরনো ফুলবাড়ীর ইন্দারা

রতি কান্ত রায়, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: কালের স্বাক্ষী হয়ে টিকে আছে ৩০০ বছরের পুরনো ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা গ্রামের মানিক মিয়ার ইন্দারা। আধুনিকতার যুগে ইন্দারার প্রয়োজনীয়তা না থাকলেও ইতিহাসের স্বাক্ষী হয়ে টিকে আছে ৩০০ বছরের পুরোনো ইন্দারাটি।
মানিক মিয়ার বংশধর এর মধ্যে সবচেয়ে বয়স্ক উত্তরসুরী মো. আহাদ আলী (৮০) বলে, মানিক মিয়ার বংশধরদের মধ্যে তাদের তিন ভাই (মফিজ উদ্দিন, আলহাজ্ব মোহাম্মদ আলী, আহাদ আলী) এর বংশধরাই কেবল বেঁচে আছেন। তাদের তিন ভাইয়ের পিতা নৈমুদ্দিন সরকার, তার পিতা- ধনাই, তার পিতা- মনাই, তার পিতা-মানিক, তার পিতা- ঘাউয়া। পারিবারিক দলিল থেকে জানা যায় মনাই পেশায় জোরদার ছিলেন।
মনাইয়ের পিতা- মানিক এলাকাবাসীর পানির কষ্ট নিবারনের জন্য ইন্দারাটি নির্মাণ করেন।
একসময় গ্রামের সকলেই এই ইন্দারা থেকে পানি তুলে ব্যবহার করত। বর্তমানে সংস্কারের অভাবে ইন্দারাটি ব্যবহারে অনুপযোগী হয়ে গেছে। সন তারিখের উল্লেখ না থাকলেও ইন্দারাটির বয়স প্রায় তিনশত অথবা সাড়ে তিনশত বছর হতে পারে। এর নির্মাণ কৌশল অন্য ইন্দারার নির্মাণ কৌশল থেকে আলাদা এর গোলাকার মুখের মাঝে বাড়তি করে ফুলের নকশায় নির্মাণ করা। গোলাকার মুখে একটি ক্রংক্রিটের বেড় দেয়া। এই বেড়ের গায়ে পানি তোলার জন্য দড়ির ঘষার অনেক রকম দাগ দেখা যায়। এই দাগ গুলো নিয়ে লোক মুখে ছড়িয়ে আছে একটি কাহিনী।
ন্যাংড়ি, (খোঁড়া) নামের এক মেয়ে  তার সৎ মায়ের আদেশে প্রতদিনি চার পাঁচ কলসী পানি তুলে কাঠের চাকা ওয়ালা গাড়ীতে করে টেনে নিয়ে যেত। ন্যাংড়ি পক্ষা ঘাতে হাটতে অক্ষম হলেও হামাগুড়ি দিয়ে চলতে পারতেন। ইন্দারার পাশে জঙ্গলে বাঘের ভয় ছিল। দাঁড়াতে পারতেন না বলে অতি কষ্ঠে হাতের শক্তি দিয়ে পানির বালতী তাড়াতাড়ি টেনে তুলতে গিয়েই এই দাগ গুলোর সৃষ্টি হয়। ন্যাংড়ি দেখতে সুন্দরী ছিলেন।
পরে এলাকার এক হৃদয়বান মানুষ ন্যাংড়িকে বিয়ে করে তাকে কষ্টের হাত থেকে রক্ষা করে। ন্যাংড়িকে তিনি আর পানি তুলতে দেননি। নিজেই ইন্দারা থেকে পানি তুলে নিয়ে যেতেন। সংস্কার করলে ইন্দারাটি থেকে এখনো পানি ব্যবহার করা সম্ভব। মানিক মিয়ার বর্তমান বংশধররা সমাজে প্রতিষ্ঠিত বৃত্তশালী।
তাদের ও এলাকাবাসীর এখন আর ইন্দারাটির পানি ব্যবহার করার প্রয়োজন হয় না। তবে প্রাচীন এই ইন্দারাটির স্মৃতি চিহ্ন যেন মুছে না যায় সে দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit