সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১০:০৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ভারতের বৈধ নাগরিক না হয়ে বাংলাদেশের উইপোকা হওয়াই বেশি আকর্ষণীয় -টিভি উপস্থাপক প্যারোলে আবেদন করলেই যে মুক্তি দেয়া হবে বিষয়টি সেরকম নয় -তথ্যমন্ত্রী ইংরেজির পাশে বাংলা তারিখ ব্যবহারে রুল জারি ইজতেমায় বাংলাদেশ ও পাকিস্তানিদের নিষিদ্ধ করল নেপাল সারাদেশে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগ পাচ্ছেন আরও ১৮ হাজার ১৪৭ জন শিক্ষক বেনাপোল সীমান্তে পৃথক অভিযানে মাদক সহ আটক-২ গ্রামের মাটিতে পা রাখলেন বিশ্বকাপ জয়ী পারভেজ হোসেন ইমন শার্শায় ১০৫ বোতল মদ সহ মাদক ব্যবসায়ী আটক  নবীগঞ্জ প্রেসক্লাবের নেতৃবৃন্দের সাথে কমিউনিটি লিডারশীপদের মতবিনিময় ও সংবর্ধনা সভা নবীগঞ্জে হাম-রুবেলা ক্যাম্পেইনের প্রশিক্ষন বর্জন

আশাশুনিতে নেশার জগতে নতুন সংযোজন “ডান্ডি”

নেশার জগতে নতুন নাম ডাণ্ডি

সচ্চিদানন্দদেসদয়,আশাশুনি, : আশাশুনিতে এখন সর্বনাশা মরণ নেশা ডান্ডি সেবনে শতশত শিশুরদের জীবন যাচ্ছে অন্ধকার পথে। সর্বনাশা মাদকের ছোবলে যুবক ও বয়স্কদের পাশাপাশি আসক্ত হয়ে পড়ছেন আশাশুনির শতশত শিশু ও যুবক। এসব শিশু ও যুবকরা মাদকে নির্ভর হয়ে চলে যাচ্ছে অন্ধকার জীবনে। যাদের বেশির ভাগের বয়স ১০ থেকে ২৫ বছরের মধ্যে। দেশে নেশার বাজারে প্রতিনিয়তই যোগ হচ্ছে নতুন নতুন নেশার নাম। যেমন-হেরোইন, মদ, গাঁজা, ফেনসিডিল, ইয়াবার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে পলিথিন আর গামের (টলুইন) সমন্বয়ে তৈরি নতুন নেশা ‘ডান্ডি’সেবীদের সংখ্যা।

জানা গছে, পলিথিন ব্যাগের ভিতরে ‘আইকা’ বা জুতোয় ব্যবহৃত এক ধরনের আঁঠা ব্যাগের ভীতরে ঢুকিয়ে কয়েক বার ঝাঁকি দিলেই প্রস্তত “ডান্ডি”। এর পর শুধু নাক লাগিয়ে ঘ্রাণ নেয়া। কম দামের এ নেশার নাম ডান্ডি। ‘ডান্ডি’ নামে অধিক পরিচিত নেশাটি স্বল্প মূল্যের কারণে শিশু,যুবক ও ছিন্নমূল নারী-পুরুষ সবচেয়ে বেশি আসক্তে ঝুকিয়ে পড়ছে এই নেশায়। এ ডান্ডি নেশা এখন আশাশুনি রাস্তা-ঘাট ও নির্জন এলাকায় চলছে নির্বিঘেœ সেবন। বুধহাটার শশ্মান ঘাট এলাকা,কাছারিবাড়ী,গোলাবেড়,শে^তপুর জোড়া আম তলা এলাকা,বল ফিল্ড,ইঁভাটা সংলগ্ন,বুধহাটা সোনালী সিনেমা হল এলাকা,কুল্যার মোড় এলাকায় এর ব্যাপকতা লাভ করেছে।এসব নেশাখোররা আবার উঠতি মস্তানে পরিনত হচ্ছে কেইকেউ।

আশাশুনির এসব নেশাখোর রা নিজেদের বাঁচিয়ে রাখতে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে, ময়লা- আবর্জনা থেকে বোতল ভাঙারি খোঁজা, কাঁচা বাজারের কুলি, হোটেলে পানি দেওয়া, হোটেল বয়, ভিক্ষাবৃত্তি, পরিবহনের কাজ, ভাসমান যৌনকর্মী, মাদক বিক্রেতা, মাদক গ্রহণ করা, ধান্দাবাজ, চুরি করা ও পকেট কাটার মত ভয়াবহ অপরাধ মূলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ছে। ডান্ডি নেশার সাথে
জড়িত অধিকাংশ নাম পরিচয় হীন উঠতি বয়সের যুবক।এদের অধিকাংশ সময় কাটে অলস আড্ডায় নতুবা রাস্তার মোড়ে চায়ের দোকানে।

অনেকেরই নাম আছে কিন্তু পরিচয় নেই। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তাদের সবাই মাদকাসক্ত। বিভিন্ন ধরনের সস্তা নেশায় আসক্ত তারা। এসব নেশাগ্রস্তরা মাদক সেবনের টাকা যোগান দিতে অনেক সময় জড়িয়ে পড়ছে চুরি, ছিনতাই, এমন কি দিনমুজুর কৃষক ও ভিক্ষুককে কিল ঘুষি দিয়ে, টাকা ছিনিয়ে নিয়ে তারা নেশা করছেন । এছাড়া নানা ধরনের আইনি অপরাধে তারা জড়িয়ে যাচ্ছে।

ডান্ডি-সেবন করলে কি হয় এমন প্রশ্নের জবাবে জানা যায়, ডান্ডি সেবনের পর প্রচুর ঘুম আসে এবং ক্ষুধামান্দ্য দেখা যায়। ডান্ডি নেওয়ার ফাঁকে পলিথিনের ভেতরে জুতো কিংবা ফোমের কাজে ব্যবহৃত আঠা রয়েছে। এই আঠা থেকে একধরনের গন্ধ বের হয়। ওই গন্ধ বারবার টানলে নেশা হয়। এতে মাথা ঝিম ঝিম করে। নেশায় মনে হয় আকাশে উড়ছি।গ্রামগঞ্জের ছোট বড় দোকান সহ হার্ডওয়্যারের দোকানে পাওয়া যায় সলিউশন গামের কৌটা ‘ডান্ডি’। জুতো পলিশওয়ালা, মোটরসাইকেল বা সাইকেল মেরামতের দোকানিদের কাছ থেকেও এটা কিনে নেয় তারা। এটা ২০ টাকা বিক্রি হলেও এখন তা ৮০ থেকে ৯০ টাকায় দোকানিরা বিক্রি করছেন বলে জানা গেছে।

মনোরোগ বিশঞ্জের কাজ থেকে জানা যায়, ডেনড্রাইট (ডান্ডি) স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। জুতো তৈরির আঠায় টলুইন নামের একধরনের তরল পদার্থ থাকে, যা বাষ্পীভূত হয়ে নিশ্বাসের সঙ্গে
সেবনকারীদের দেহে ঢোকে। টলুইন সেবনে ক্ষণস্থায়ীভাবে ঝিমুনি, মাথাব্যথা, ক্ষুধা না লাগা ও নিয়ন্ত্রণহীনতার উদ্রেক করে। নিয়মিত এ নেশা গ্রহণে লিভার, কিডনিসহ ব্রেইনের গুরুত্বপূর্ণ অংশ নিষক্রিয় করে ফেলে ডান্ডিসেবীদের। বেনজিন মিথাইলের প্রভাবে মস্তিস্ক বিকৃতির আশঙ্কা রয়েছে শতভাগ।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
15161718192021
22232425262728
29      
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ ||
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit