ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজ ভ্রাতৃদ্বিতীয়া বা ভাই ফোঁটা উৎসব

ডেস্ক
October 27, 2022 10:47 am
Link Copied!

আজ ভ্রাতৃদ্বিতীয়া বা ভাই ফোঁটা উৎসব। ভাই এবং বোনের অটুট সম্পর্ক একটি উত্‍সব হিসাবে পালিত হয় এ দিনটি। দীপাবলির দ্বিতীয় দিনে ভাইফোঁটা পালিত হয়। তিথির কাকতালীয় কারণে এ বছর ভাইফোঁটা দু’দিন পালিত হচ্ছে। ভাইফোঁটা ২৬ অক্টোবর এবং ২৭ অক্টোবর পালিত হচ্ছে। বোনেরা অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে ভাই ফোটার জন্য। এই দিনে বোনেরা তাদের ভাইয়ের দীর্ঘায়ু কামনা করে পূজা করে, তার মঙ্গল কামনা করে এবং তিলক করে।

ভাইফোঁটা দেবার সময়ঃ

২৬ অক্টোবর বুধবার ভারতীয় সময় বিকেল ৩ টা ২৯মিঃ আর বাংলাদেশ সময় ৩ টা ৫৯মিঃ  থেকে আজ ২৭ অক্টোবর বৃহস্পতিবার ভারতীয় সময় দুপুর ২টা ৫মিনিট আর বাংলাদেশ সময় দুপুর ২টা ৩৫ মিনিট পর্যন্ত।

 

এই উৎসবের আরও একটি নাম হল যমদ্বিতীয়া। কথিত আছে, এই দিন মৃত্যুর দেবতা যম তার বোন যমুনার হাতে ফোঁটা নিয়েছিলেন। অন্য মতে, নরকাসুর নামে এক দৈত্যকে বধ করার পর যখন কৃষ্ণ তার বোন সুভদ্রার কাছে আসেন, তখন সুভদ্রা তার কপালে ফোঁটা দিয়ে তাকে মিষ্টি খেতে দেন। সেই থেকে ভাইফোঁটা উৎসবের প্রচলন হয়। অনেক সময় এই ছড়াটি বিভিন্ন পরিবারের রীতিনীতিভেদে পরিবর্তিত হয়ে থাকে।

কথিত আছে, ভাই ফোটার দিন তিলক লাগালে ভাই দীর্ঘায়ুর পাশাপাশি সুখ-সমৃদ্ধির আশীর্বাদও পায়।

ভাইফোঁটা উপলক্ষে সব বোনেরা ভাইয়ের দীর্ঘায়ু কামনা করে এবং কপালে তিলক লাগিয়ে তার মুখ মিষ্টি করে। ভাইরা বোনদের উপহার দেয় এবং তাদের নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতি দেয়।

ভ্রাতৃদ্বিতীয়া বা ভাই ফোঁটা উৎসব কি এবং কেন করা হয় ?

পুরাণে উল্লেখ আছে- কার্তিকেয় শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতে যমুনাদেবী তাঁর ভাই যমের মঙ্গল কামনায় গভীর ধ্যানমগ্ন হয়ে পুজা করেন। তাঁরই পুণ্যপ্রভাবে যমদেব অমরত্ব লাভ করেন। বোন যমুনা দেবীর পুজার ফলে ভাই… যমের এই অমরত্ব লাভের চেতনায় উদ্ভুদ্ধ হয়ে বর্তমান কালের বোনেরাও এই সংস্কার বা ধর্মাচার পালন করে আসছে।

এই দিন আমাদের বোনেরা উপবাস রেখে ভাইয়ের কপালে বাঁ হাতের অনামিকা আঙ্গুল দিয়ে চন্দন, ঘি, কাজল, মধু , শিশির,দিয়ে ফোঁটা দিয়ে ভাইয়ের দীর্ঘায়ু কামনা করে থাকে।

অন্য মতে, নরকাসুর নামে এক দৈত্যকে বধ করার পর যখন কৃষ্ণ তাঁর বোন সুভদ্রার কাছে আসেন, তখন সুভদ্রা তাঁর কপালে ফোঁটা দিয়ে তাঁকে মিষ্টি খেতে দেন। সেই থেকে ভাইফোঁটা উৎসবের প্রচলন হয়। ভাইফোঁটার দিন বোনেরা তাদের ভাইদের কপালে চন্দনের ফোঁটা পরিয়ে দিয়ে ছড়া কেটে বলে-

“ভাইয়ের কপালে দিলাম ফোঁটা,

যমের দুয়ারে পড়ল কাঁটা।

যমুনা দেয় যমকে ফোঁটা,

আমি দেই আমার ভাইকে ফোঁটা।

যম যেমন হন চিরজীবী

আমার ভাই যেন হয় তেমন চিরজীবী।”

এইভাবে বোনেরা ভাইয়ের দীর্ঘজীবন কামনা করে। তারপর ভাইকে মিষ্টি খাওয়ায়। ভাইও বোনকে কিছু উপহার বা টাকা দেয়।

পশ্চিম ভারতে এই উৎসব ভাইদুজ নামেও পরিচিত। সেখানে ভ্রাতৃদ্বিতীয়া পাঁচ-দিনব্যাপী দীপাবলি উৎসবের শেষদিন। আবার, মহারাষ্ট্র, গোয়া ও কর্ণাটকে ভাইফোঁটাকে বলে ভাইবিজ। নেপালে ও পশ্চিমবঙ্গের দার্জিলিং পার্বত্য অঞ্চলে এই উৎসব পরিচিত ভাইটিকা নামে। সেখানে বিজয়াদশমীর পর এটিই সবচেয়ে বড় উৎসব। আমাদের ভাই বোনের এই অটুট বন্ধনকে স্মরণ করে সবাইকে জানাই ভ্রাতৃদ্বিতীয়ার প্রীতি ও শুভেচ্ছা।

কেন কড়ে আঙ্গুল দিয়ে ভাইফোঁটা দেওয়া হয়ঃ 

বাহ্যিক আচার বিচারের থেকে পরম সত্যের জ্ঞানকে সর্বদাই মুখ্য স্থান দেয়। তাই এই বিষয়ে সনাতন ধর্মের ব্যাখ্যা অনুযায়ী, মানুষের হাতের ৫টি আঙ্গুল ৫ টি ইন্দ্রিয়ের প্রতীক। এই ৫টি আঙ্গুলের মধ্যে কড়ে আঙ্গুলকে মনে করা হয় মহাশূন্যের প্রতীক। ক্ষিতি, অপ, তেজ, মরুৎ, ব্যোমের মধ্যে ব্যোমই হচ্ছে  মহাশূন্যে যা কড়ে আঙ্গুলকে মনে করা হয়।

ভাইফোঁটায় আমাদের কী করা উচিত?
 ভাইফোঁটায় স্নানের পরে পরিষ্কার কাপড় পরতে হয়। এই দিনে, বোনেরা নতুন পোশাক পরেন।
 ভাইয়ের দীর্ঘজীবন কামনা করে ফোঁটা দেওয়ার আগে পর্যন্ত বোনেদের উপোস করতে হয় এবং পরে বাম হাতের কড়ে আঙ্গুলদিয়ে ভাইয়ের কপালে ফোঁটা দিয়ে কল্যাণ কামনা করতে হয়।
 ভাইকেও উপবাস করতে হয়।
 ভাইফোঁটা দেওয়া হয়ে গেলে ভাই-বোন একসঙ্গে খাবার খান।

এইভাবে বোনেরা ভাইয়ের দীর্ঘজীবন কামনা করে। তারপর ভাইকে মিষ্টি খাওয়ায়। ভাইও বোনকে কিছু উপহার বা টাকা দেয়।

অতঃপর, বোন তার ভাইএর মাথায় ধান এবং দুর্বা ঘাসের শীষ রাখে। এই সময় শঙ্খ বাজানো হয় এবং হিন্দু নারীরা উলুধ্বনি করেন। এরপর বোন তার ভাইকে আশীর্বাদ করে থাকে (যদি বোন তার ভাইয়ের তুলনায় বড় হয় অন্যথায় বোন ভাইকে প্রণাম করে আর ভাই বোনকে আশীর্বাদ করে থাকে)। তারপর বোন ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি দ্বারা ভাইকে মিষ্টিমুখ করায় এবং উপহার দিয়ে থাকে। ভাইও তার সাধ্যমত উক্ত বোনকে উপহার দিয়ে থাকে।

পশ্চিমবঙ্গে ভাইফোঁটা একটি ঘরোয়া অনুষ্ঠান হলেও ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে দিয়ে পালিত হয়। পশ্চিম ভারতের ভাইবিজ একটি বর্ণময় অনুষ্ঠান। সেখানে এই উপলক্ষে পারিবারিক সম্মেলনেরও আয়োজন করা হয়। মহারাষ্ট্রে মেয়েদের ভাইবিজ পালন অবশ্যকর্তব্য। এমনকি, যেসব মেয়েদের ভাই নেই, তাদেরও চন্দ্র দেবতাকে ভাই মনে করে ভাইবিজ পালন করতে হয়। এই রাজ্যে বাসুন্দি পুরী বা শ্রীখণ্ড পুরী নামে একটি বিশেষ খাবার ভাইবিজ অনুষ্ঠানের জন্য তৈরি করার প্রথা প্রচলিত আছে।

সনাতন ধর্মকে বলা হয় পৃথিবীর প্রাচীনতম ধর্ম। কারন এটি প্রাচীনযুগে আর্বিভূত হয়েছে। এই ধর্মাবলম্বীরা একে সনাতন ধর্ম যা চিরন্তন নিয়ম বা চিরন্তন পথ বলে মনে করা হয়। পশ্চিমা পন্ডিতরা সনাতন ধর্মকে বিভিন্ন ভারতীয় সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যের সংমিশ্রণ এবং সংশ্লেষণ হিসেবে গন্য করেন। যার মূলে একক কোন ব্যক্তির অবদান নেই এবং এর একাধিক উৎপত্তি উৎস রয়েছে। এটি সনাতনি বা চিরন্তন যেমন সততা, অহিংসা, ধৈর্যশীলতা, সমবেদনা ও আত্মনিয়ন্ত্রনের পাশাপাশি আরও অনেক মানবিক উৎকর্ষ জনক উপায়ের কথা বলে।

http://www.anandalokfoundation.com/