আজ কন্যা শিশু দিবসে শুভেচ্ছা নয় সমবেদনা জানাতে ইচ্ছা করে

    Rai Kishori
    September 27, 2020 7:44 pm
    Link Copied!

    সম্পা নন্দী বীর: আজ কন্যা শিশু দিবস। এ দিনে শুভেচ্ছা নয় সমবেদনা জানাতে ইচ্ছা করছে সকল কন্যার জনক জননী কে। কারন বর্তমান বাংলাদেশে কন্যা শিশু জন্ম দেওয়া একটা পাপ

    আমাদের সোনার বাংলায় গড়ে প্রতিদিন ১৫-২০ জন কন্যা ধর্ষিত হচ্ছে। কিছু কিছু মিডিয়ার সামনে প্রকাশ হচ্ছে, বাকিটা হয়তো ক্ষমতার জোরে প্রকাশিত হচ্ছে না। এখনে মেয়েরা আতংকে, ভয়ে থাকে।  কখন সেই না পত্রিকার পাতায় হেডলাইন হয়। তার ছবি ভাইরাল হয়, ধর্ষিতা নামে। বর্তমান সমাজ এতটাই পিশাচ যেখানে বাবাও মেয়েকে র্ধষণ করে। যা আমাদের লজ্জিত করে। এই সমাজের বাবারা কি ৭১ এর পাকিস্তানীদের বীর সন্তান, যারা তাদের থেকে এক ধাপ এগিয়ে। কারণ পাকিস্তানী সেনাদের কাছে বাঙ্গালী মেয়েরা নিরাপদ ছিল না আর বর্তমান বাংলাদেশেতো বাবাদের কাছেই নিরাপদ নয় বাইরের লোক তো পরের কথা।

    সমীক্ষা বলছে গত এক বছরে ১০০০ এর ও বেশি শিশু ধর্ষণ হয়েছে বাংলাদেশে। এখন প্রায়ই দেখা যায় ধর্ষণ করে প্রমান লোপাটের জন্যে ধর্ষিতাকে মেরে ফেলা হয়। মানুষ এত নরখাদক হয়ে যাচ্ছে যে মৃত লাশ কে পর্যন্ত ছাড় দেয় না।

    পাকিস্তানীরা মুক্তিযুদ্ধের সময় যত অত্যাচার করেছে বাঙালি মেয়েদের উপর, পাকিস্তানী মেয়েদের উপর নয়। কিন্তু বর্তমানে সেই নৃশংসতাকেও ছাপিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। দেখা যায় ধর্ষনের পর প্রমান লোপাটের জন্যে হয়তোবা আগুন দিয়ে নুতবা বস্তা ভরে নদীতে ফেলে দিয়ে অথবা গলা কেটে বিভিন্ন কায়দায় মেয়েটাকে মেরে ফেলা হয়।

    শিশু ধর্ষণের পর হত্যার খবর আমরা প্রায়ই পত্রিকায় দেখি। আরও আছে নির্মম ও লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ডের নিত্য খবর। ধর্ষণের পর হত্যা আজকাল হরহামেশা পাওয়া যায়। বিচিত্র উপায়ে হত্যাকাণ্ড ঘটানো হয়। শ্বাসরোধে হত্যা, ঘুমন্ত অবস্থায় বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা, টেঁটাবিদ্ধ করে হত্যা, গলা কেটে হত্যা, এমনকি পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়েও হত্যার ঘটনা ঘটছে। হত্যা করে ঘরের বিছানার নিচে, মাটিতে মৃতদেহ লুকানোর চেষ্টাও চলছে।

    দেশ স্বাধীন হয়ে কি লাভ হল যেখানে আজ মেয়েরা এত অত্যাচারিত হচ্ছে।  এমন দেশকে সোনার বাংলা বলতেও লজ্জা হয়, কারন এ দেশে ধর্ষকের পক্ষে লড়াই করার জন্য উকিল পাওয়া যায়। আর ধর্ষিতাকে হতে হয় এক ঘরে।

    কি হবে এ দেশে নারী অধিকার চেয়ে, নারী ক্ষমতায়ন কি জন্য দরকার। যেখানে নারীর নিরাপত্তা নেই, নারী ধর্ষিত হলে ধর্ষক কে দেখা যায় রাজ পথে বুক ফুলিয়ে হাটতে। চাইনা মেয়ের ক্ষমতায়ন, চাইনা সমান অধিকার, চাইনা স্বাধীনতা।
    আবার সে রোকেয়ার যুগ চাই, অন্দরমহল টাই বোধ হয় আমাদের জন্য নিরাপদ। অন্তত আর কোন মেয়েকে ধর্ষিত হতে হবে না, আর কোন মেয়ে ধর্ষিতার সার্টিফিকেট পাবে না। সমাজে কলংকিত হবে না। পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ভালো থাকুক। আর যেন কখনো কন্যা সন্তান না হয়। যে সমাজে মেয়েদের মনে করা হয় শুধুই ভোগ্য বস্তু। যে দেশে মেয়েরা এত পর্দা করে চললেও রেহাই নেই।