13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আওয়ামী লীগই আওয়ামী লীগের প্রতিপক্ষ

admin
August 19, 2015 9:51 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ হঠাৎ করেই বেপরোয়া হয়ে উঠেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ-সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। আধিপত্য বিস্তার, ব্যবসায়িক দ্বন্দ্ব, টেন্ডার নিয়ন্ত্রণ, দলীয় পদ নিয়ে দ্বন্দ্বসহ বিভিন্ন ঘটনাকে কেন্দ্র করে হানাহানিতে গত দুই মাসে নিহত হয়েছেন দলটির ১৭ জন নেতা-কর্মী। এ সব ঘটনাকে ‘বিচ্ছিন্ন’ ও ‘বৈশ্বিক অস্থিরতার অংশ’ হিসেবেই দেখছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। তাদের দাবী, আওয়ামী লীগ লাখ লাখ নেতা-কর্মীর দল। এই দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে এ রকম বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটতে পারে। এগুলো সামাজিক অস্থিরতার বহিঃপ্রকাশ।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘আইন কিন্তু কাউকে ক্ষমা করছে না। আইন নিজের গতিতে চলছে। যারা এ সব ঘটনা ঘটাবে তাদের ছাড় দেওয়া হবে না। আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের এক আলোচনা সভায় গত ৫ আগস্ট আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, ‘আমাদের প্রতিপক্ষ দুর্বল হয়ে গেছে। মাঠে এখন প্রতিপক্ষ খুব দুর্বল। প্রতিপক্ষ দুর্বল হলে নিজেদের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। ১৫ আগস্টের আগে এমনটাই হয়েছিল। তখন আমরা নিজেরা যুদ্ধ করেছিলাম বলেই মোস্তাকের মতো বেঈমান বিশ্বাসঘাতকতা করার সুযোগ পেয়েছিল। মোস্তাক আমাদের মধ্যেই ছিল। প্রতিপক্ষকে দুর্বল মনে করে আমরা যদি নিজেদের মধ্যে যুদ্ধ শুরু করি তাহলে আমাদের সামনে বিপদ আসবে।

দলটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘পৃথিবীর সব দেশেই এখন সামাজিক অস্থিরতা বিরাজ করছে। বাংলাদেশেও সামাজিক অস্থিরতা আছে। আমাদের দেশে সামান্য জমির সীমানা নিয়ে অসংখ্য মানুষ মারা যায়। বাচ্চাদের খেলাধুলা নিয়েও সংঘর্ষ হয়। আমাদের দলে হাজার হাজার, লাখ লাখ নেতা-কর্মী আছে। এটার ব্যাপারে আমরা কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা নিয়েছি। যাতে ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা না ঘটে সে বিষয়ে আমরা সবাইকে সতর্ক করেছি। তবে কিছুটা ভিন্ন মত প্রকাশ করেছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ ও সমাজ বিশ্লেষকরা। তাদের মতে, শক্তিশালী বিরোধীপক্ষ না থাকা, আইনের শাসনের অভাব ও বিচারহীনতার কারণেই এ ধরনের ঘটনা ঘটছে। রাজনীতিহীনতার কারণেই সামাজিক অস্থিরতা বিরাজ করছে। তারই বহিঃপ্রকাশ ঘটছে রাজনৈতিক সংগঠনসমূহের নেতাকর্মীদের কর্মকান্ডে।

সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজন সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, ‘সারা দেশে একটা অস্থিরতা বিরাজ করছে। আপাত দৃষ্টিতে শান্ত মনে হলেও আমাদের রাজনীতি হল মূল উৎস। নির্বাচন নিয়ে সমস্যা ও রাজনৈতিকভাবে বিরোধের জন্য এই সামাজিক অস্থিরতা। এটার প্রতিফলন হল বিচারহীনতার সংস্কৃতি। আমাদের দেশে সব সরকারের সময় সরকারি দলের সঙ্গে যুক্তরা অন্যায় করে পার পেয়ে গেছে। তাদের কোনো সময় শাস্তি দেওয়া হয় না। ড. বদিউল আলম মজুমদার আরও বলেন, ‘দুর্বলের ওপর সবলের বাড়াবাড়িও রয়েছে। নারী, শিশু ও নিম্নআয়ের মানুষ এই ধরনের সহিংসতার শিকার হচ্ছে। সরকারি দলের তো এখন প্রতিপক্ষ নাই। তারা নিজেরাই নিজেদের প্রতিপক্ষ।

রাজনৈতিক বিশ্লেষক মিজানুর রহমান শেলী এ বিষয়ে বলেন, ‘সার্বিক সুশাসনের অভাব থাকলে যেকোনো রাজনৈতিক দল লাগাম ছাড়া ব্যবহার করে। ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীরা না বুঝে, কেন্দ্রীয় নেতাদের উদ্দেশ্য না বুঝে অথবা বুঝেও না বুঝার ভান করে তাদের নিজস্ব স্বার্থের জন্য সহিংসতার পথ নেয়। তিনি আরও বলেন, ‘সরকারি দলের নেতা-কর্মীরা মনে করে তাদের বিচার হবে না। সমাজ হচ্ছে রাজনীতি, অর্থনীতি ও সামাজিক মূল্যবোধের একটা সমষ্টি। এক অংশের মধ্যে দূষণ দেখা গেলে অন্যান্য অংশের মধ্যেও দূষণ সঞ্চারিত হয়। বিরোধী দল যদি সুসংগঠিত না হয় তাহলে সরকারি দল মনে করে আমাদের তো আর কোনো বাধা নেই। যেহেতু আমরা সরকারি দলে আছি আমাদের কেউ বাধা দেবে না। পুলিশের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, দলীয় হানাহানি গত দুই মাসে দেশের বিভিন্ন জেলায় আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ-সহযোগী এবং ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সদস্যদের মধ্যে সংঘর্ষে ১৭ জন নিহত হয়েছেন।

জাতীয় শোক দিবসে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে রবিউল ইসলাম নামে এক আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত হন। একই দিনে কুষ্টিয়ায় শোক দিবসের র‌্যালি শেষে জেলা আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের সংঘর্ষে নিহত হন যুবলীগ কর্মী সবুজ হোসেন। শোক দিবসের অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিতে বুধবার রাতে রাজধানীর বাড্ডায় আয়োজিত প্রস্তুতি বৈঠকে নিহত হন আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের দুই নেতাসহ তিনজন। ঝুট ব্যবসার দখলদারী নিয়ে হানাহানিতে প্রাণ যায় তাদের। দলীয় সহিংসতার আগুন থেমে নেই ছাত্রলীগের মাঝেও। বুধবার সিলেটের মদন মোহন কলেজে নিজ সংগঠনের অপর কর্মীর ছুরির আঘাতে মারা যান আব্দুল আলী (১৯) নামে অপর এক ছাত্রলীগ কর্মী। গত ১০ আগস্ট রাতে রাজধানীর কাজীপাড়ায় দলীয় কোন্দলে খুন হন কাফরুল থানা সৈনিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রুবেল। এ ছাড়া ৭ আগস্ট নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার দেওটি ইউনিয়ন যুবলীগের দফতর সম্পাদক মিলন সরকারকে (২৮) কুপিয়ে হত্যা করা হয়। একই দিন বরিশালের আগৈলঝাড়ায় রাসেল ব্যাপারী (২৩) নামে ছাত্রলীগের এক কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। এ ছাড়া ১ আগস্ট সন্দ্বীপের মগধরা ইউনিয়নের নামারবাজার এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে যুবলীগের এক কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়।

http://www.anandalokfoundation.com/