13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চীন-ভারত সম্পর্কের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট : বন্ধু থেকে শত্রু

Link Copied!

চাইনিজ সভ্যতা ও ভারতীয় সভ্যতা – দু’টোই পৃথিবীর অন্যতম প্রাচীন সভ্যতা। চাইনিজ ও ইন্ডিয়ানদের মধ্যে হাজার হাজার বছরব্যাপী যে বন্ধুত্ব ও সুসম্পর্ক ছিল; পাশাপাশি অবস্থানকারী দু’টো জাতির মধ্যে এতটা সুমধুর সম্পর্ক – পৃথিবীর অন্য কোন জাতির মধ্যে কোনদিন ছিল না।

১৯৫২ সালে চীন সফর করেছিলেন ৩২ বছর বয়সী তরুণ নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। সেই ভ্রমণ কাহিনীতে বঙ্গবন্ধু লিখেছেন, “পাকিস্তানের চেয়ে ভারতকে অনেক বেশি পছন্দ করে চীন এবং অধিক গুরুত্ব দেয়, অগ্রাধিকার দেয়।” সেইসময় একটা জনপ্রিয় স্লোগান ছিল ‘চীনা-হিন্দি ভাই ভাই’।

১৯৫৯ সালে তিব্বতের বৌদ্ধ ধর্মগুরু দালাই লামা সঙ্গীদের নিয়ে ভারতে এসে আশ্রয় নেন। ভারত সরকার তাদের ব্যয়ভার নির্বাহের পাশাপাশি- দালাই লামাকে প্রবাসী স্বাধীন তিব্বত সরকার গঠনের অনুমতি দেয়। এতে চীন সাংঘাতিক ক্ষুব্ধ হয়। এখান থেকেই চীন-ভারত সুসম্পর্কের অবনতির সূচনা। ১৯৬২ সালে উভয় দেশের মধ্যে সীমান্ত যুদ্ধ হয়, ভারত ‘অক্ষয় চীন’ হারায়।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে, ভারত ও সোভিয়েত রাশিয়ার মধ্যে মৈত্রী স্বাক্ষরিত হওয়ার পর –  পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে চীনের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দেয় আমেরিকা। ফলশ্রুতিতে তাইওয়ানকে জাতিসংঘ থেকে বহিষ্কার করা হয়; চীনকে দেওয়া হয় ভেটো পাওয়ার। শুধু তাই নয়, চীনের মুদ্রাকে আন্তর্জাতিক মুদ্রার স্বীকৃতি দেওয়া হয় এবং চীনের ম্যান্ডারিন চাইনিজ ভাষা আন্তর্জাতিক ভাষার স্বীকৃতি লাভ করে।

ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী পি. ভি. নরসিমা রাও (১৯৯১–১৯৯৬) ‘লুক ইস্ট পলিসি’ নিয়েছিলেন। পূর্ব এশিয়ায় তখন আলোচনায় ছিল শুধু জাপান। তাইওয়ান ও দক্ষিণ কোরিয়া সেইসময় আজকের মতো এতটা গুরুত্বপূর্ণ অবস্থানে ছিল না। চীনের অর্থনীতি তখন ভারতের চেয়ে ছোট, মাথাপিছু আয় ভারতের চেয়ে কম। তবুও নরসীমা রাও হয়তো অনুমান করতে পেরেছিলেন যে, আগামী দিনে চীন হতে চলেছে বিশ্ব অর্থনীতির ভরকেন্দ্র; এজন্য তিনি চীনের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছিলেন।

চীনের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছিল, অটল বিহারী বাজপেয়ী এবং মনমোহন সিংয়ের সরকার। ২০১৪ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নিজের বাড়িতে, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর সঙ্গে একই দোলনায় বসে – উভয় দেশের মধ‍্যকার সম্পর্ক অন্যান্য উচ্চতায় উন্নীত করার অঙ্গীকার করেছিলেন।

২০১৭ সালের ১৬ জুন চীনের সৈন‍্যরা ভুটানের ডোকলামে ঢুকে রাস্তা নির্মাণ করতে আরম্ভ করে। ২৭০ জন সশস্ত্র ভারতীয় সৈন্য- ভুটানে ঢুকে রাস্তা নির্মাণে বাধা দেয়। চীন তখন ভারতকে বাষট্টির পরাজয়ের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। জবাবে ভারত বলে, বাষট্টির ভারত আর ২০১৭ সালের ভারত এক নয়। উভয় দেশের সৈন্যদের বের হয়ে যেতে বলে ভুটান।

চীন ও ভারতের মধ্যে ৭৪ দিন ধরে উত্তেজনা চলে। ভারত ডোকলাম উপত্যকা থেকে সেনা প্রত্যাহার করে নিলে, উত্তেজনার অবসান ঘটে। চীন রাস্তা নির্মাণ সমাপ্ত করে। ভুটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “ডোকলাম নিয়ে কথা বলার অধিকার চীনের রয়েছে।”

ডোকলাম উত্তেজনার পর থেকে সীমান্তে ভারতের উপর ক্রমাগত চাপ সৃষ্টি করতে থাকে চীন। ২০২০ সালের ১৫ই জুন, গালওয়ান উপত্যকায় চীন ও ভারতের সামরিক বাহিনীর সদস্যদের মধ্য রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়।

২০২৩ সালের শুরুর দিকে ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লিতে শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তাদের বার্ষিক এক সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল উপস্থিত ছিলেন। তখন ভারতশাসিত লাদাখের অন্যতম প্রধান শহর লেহর পুলিশ সুপার পি ডি নিত্যর পেশ করা এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে : লাদাখ সীমান্তের পশ্চিম অংশে ৬৫টি টহল পয়েন্টের মধ্যে ২৬টিতে প্রবেশের অধিকার হারিয়েছে ভারত।

পুলিশ কর্মকর্তা পি ডি নিত্যর প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, “পরবর্তী সময়ে চীন আমাদের এ সত্য মেনে নিতে বাধ্য করেছে যে, এসব এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে ভারতের নিরাপত্তা বাহিনী অথবা ভারতের বেসামরিক নাগরিকদের উপস্থিতি দেখা যায়নি ― যে কারণে এই অঞ্চলে চীনারা উপস্থিত হয়েছে। শেষ পর্যন্ত ওই অঞ্চলগুলোর ওপর নিয়ন্ত্রণ হারাতে পারে ভারত। চীনের সামরিক বাহিনীর ইঞ্চি ইঞ্চি করে জমি দখলের এই কৌশল ‘সালামি স্লাইসিং’ নামে পরিচিত।”

এই সংবাদ ভারতীয় মিডিয়ার শিরোনামে উঠে আসে। বিরোধী দলগুলো ক্ষমতাসীন বিজেপিকে চেপে ধরে। তবে এই বিষয়ে সরকারের তরফ থেকে কোন আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দেওয়া হয়নি। যদিও চীন এখনো ভারতের প্রধান ব্যবসায়িক অংশীদার। ভারতের সঙ্গে বিশাল বাণিজ্য উদ্বৃত্ত উপভোগ করছে চীন – যেটা ভারতের মোট প্রতিরক্ষা ব্যয়ের প্রায় সমান।

আমি নিজের ক্ষুদ্র জ্ঞানে যতটুকু জানতে পেরেছি, তাতে আমার কাছে মনে হয়েছে – পৃথিবীতে যদি বিস্ময়কর উন্নতি কোন জাতি করে থাকে, সেটা দক্ষিণ কোরিয়া ও সিঙ্গাপুর। এরপরে চীন(তাইওয়ান)। চীন যেহেতু বড় দেশ, তাই চীনের এই মহাউত্থান – আমেরিকার একক বিশ্ব কর্তৃত্বকে কার্যকর চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বসেছে।

আমি একসময় বিশ্বাস করতাম, চীন যখন এতটা উন্নতি করতে পেরেছে; ভারতও নিশ্চয়ই পারবে। কিন্তু ভারতীয় বিশেষজ্ঞরা বলছে ভিন্ন কথা। তাদের ধারণা, ভারত কখনোই চীনের মতো এতটা উন্নতি করতে পারবে না।

ভারতীয় বিশেষজ্ঞদের মতে, মুষ্টিমেয় কিছু অতি-ধনী পরিবার, বিভিন্ন কৌশলে ভারতের অধিকাংশ সম্পদ কুক্ষিগত করে ফেলেছে। আগামী ২৫/৩০ বছর জনসংখ্যার ডিভিডেন্ট থেকে যে উচ্চ-প্রবৃদ্ধি আসবে – তার সুফল ভারতের অতি-দরিদ্র মানুষেরা খুব একটা ভোগ করতে পারবে না। উচ্চ-প্রবৃদ্ধির অধিকাংশই অতি-ধনীদের ভোগ বিলাস তথা অনুৎপাদনশীল খাতে ব্যয় হবে।

চাইনিজরা তাদের দেশকে বলে ‘চুংগুয়া’। বাংলাদেশকে বলে ‘মনঞ্জেলা গুয়া’। ভারতকে বলে ‘ইন্দু’। একটি জনপ্রিয় গল্প প্রচলিত রয়েছে : চাইনিজরা ভারতবর্ষে চিনি নিয়ে এসেছিল; সেই চিনি থেকে ‘চীন’ শব্দটি এসেছে।

চীন থেকে যুগে যুগে বহু মানুষ ভারতবর্ষে এসে বসতি গড়েছে, স্থানীয়দের সঙ্গে বৈবাহিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে। ভারতীয় রক্তধারার সঙ্গে তারা মিশে গেছে। আবার ভারতবর্ষ থেকে বৌদ্ধ ধর্ম চীনে গেছে। আজও চীনের এক তৃতীয়াংশের বেশি মানুষ বৌদ্ধ ধর্মালম্বী। তারা ইন্ডিয়ান লেগাছি স্বীকার করে। এমন চাইনিজ বৌদ্ধের সঙ্গেও আমার কথা হয়েছে, যারা বাচ্চাদের ঘরোয়া ইন্ডিয়ান নাম রাখে।

http://www.anandalokfoundation.com/