13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৫ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি শুরু করবে সরকার

admin
October 12, 2016 11:25 am
Link Copied!

বিশেষ প্রতিনিধিঃ ব্যবসায়ীরা চালের দাম না কমালে বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকার খোলাবাজারে ১৫ টাকা কেজি দরে চাল বিক্রি শুরু করবে বলেও ঘোষণা দেন খাদ্য মন্ত্রী কামরুল ইসলাম।

গত রোববার সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, সরকারের কাছে ২৪ লাখ মেট্রিক টন চাল উদ্বৃত্ত রয়েছে। খাদ্যভাণ্ডারে স্টক আছে ৭ লাখ মেট্রিক টনেরও বেশি চাল। মিলমালিকদের কাছ থেকে ১ লাখ ৪০ হাজার টন চাল সংগ্রহ হলে এই মাস শেষে খাদ্যভাণ্ডারে জমা থাকবে ৯ লাখ টন।

খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এ প্রসঙ্গে বলেন, বর্তমানে চালের যে দাম সেটি অযৌক্তিক। এটি পরিকল্পিতভাবে করা হচ্ছে। একশ্রেণীর অসৎ ব্যবসায়ী চাল আমদানির ওপর থেকে শুল্ক উঠিয়ে নিতে হয়তো বাজার থেকে অসৎ মুনাফার চেষ্টা করছে। কিন্তু সবাই জানেন দেশে এখন চালের কোনো সঙ্কট নেই। আমরা এখন চাল রফতানিও করছি। সরকারি গোডাউনে পর্যাপ্ত চাল মজুদ রয়েছে। ব্যবসায়ীদের কাছেও বিপুল মজুদ আছে। এর পরও দাম বাড়ানো হচ্ছে। এভাবে আমদানির পথ উন্মুক্ত করা যাবে না।

সচিবালয়ে গত ১৭ মে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ দাবি করেছেন, বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পন্ন। সরকারের কাছে ৩০ থেকে ৪০ লাখ মেট্রিক টন চাল উদ্বৃত্ত রয়েছে। এসব চালই রফতানি করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের এ বছর রফতানি ল্যমাত্রা ৩৩ দশমিক শূন্য ৫ বিলিয়ন ডলার ধরা হলেও, ইতোমধ্যে তা ছাড়িয়ে গেছে। আমরা আশা করছি, বছর শেষে এর পরিমাণ দাঁড়াতে পারে ৩৫ বিলিয়ন ডলার।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী, গত বছর শ্রীলঙ্কায় ৫০ হাজার টন চাল রফতানি করেছে বাংলাদেশ। আবার এ বছর লিবিয়াসহ আফ্রিকার সাতটি দেশে বাংলাদেশ থেকে চাল রফতানির আলাপ-আলোচনা চলছে। অথচ গত অর্থবছরে ভারত থেকে বাংলাদেশ আমদানি করেছে ১৪ লাখ ৯০ হাজার টন চাল। অন্য দিকে ২০ শতাংশ আমদানি শুল্ক থাকার পরও এ অর্থবছর ভারত থেকে ইতোমধ্যে আমদানি হয়েছে ৫ লাখ ৪৬ হাজার টন চাল।

খাদ্য অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী, দেশে এ বছর চালের চাহিদা ৩ কোটি ২৮ লাখ টন। উৎপাদন হয়েছে ৩ কোটি ৮৬ লাখ টন। উদ্বৃত্ত রয়েছে ৫৮ লাখ টন। সরকার ১০ টাকা কেজি দরে দরিদ্র পরিবারের কাছে নিয়মিত চাল বিক্রি করছে। খাদ্যমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছেন, সরকার শিগগির ১৫ টাকা কেজি দরে খোলাবাজারে চাল বিক্রি শুরু করবে।

এমনই সব বিপরীতধর্মী ও পরস্পরবিরোধী তথ্য যখন জাতির সামনে, তখন দেশে হঠাৎ করে চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ৬ থেকে ১০ টাকা। ২৮ টাকা কেজি দরের মোটা চাল কিনতে হচ্ছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকায়। সরু চালের কেজি এখন ৫২ থেকে ৫৭ টাকা। সরকারের পক্ষ থেকে এ জন্য মিলমালিকদের দায়ী করা হলেও অভিযুক্তরা দায়ী করছেন খোদ সরকারকেই। সরকার নিজেই মজুদদারিতে নেমেছে বলে অভিযোগ মিলমালিকদের। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, চাল নিয়ে কেবল চালবাজিই চলছে। কাজের কাজ কিছু হচ্ছে না।

ব্যবসায়ীরা জানান, কোরবানির আগে প্রতি কেজি মোটা চালের দাম ছিল ২৮ টাকা। এখন সে চাল পাইকারি বাজারেই বিক্রি হচ্ছে ৩৩ থেকে ৩৫ টাকা দরে। বাজারে মানভেদে ৫০ কেজির প্রতি বস্তা মোটা চাল ১ হাজার ৭০০ টাকা, স্বর্ণা ১ হাজার ৯৫০ টাকা, মিনিকেট ২ হাজার টাকা, পাইজাম ২ হাজার টাকা, জিরাশাইল ১ হাজার ৩০০ টাকা, চিনিগুঁড়া ৪ হাজার ৭৫০ থেকে ৪ হাজার ৮৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মিলমালিকরা জানান, দেশে বর্তমানে প্রায় ১৭ হাজার হাস্কিং মিল আছে। এসব মিল প্রতিদিন গড়ে প্রায় এক লাখ টন চাল উৎপাদন করতে পারে। কিন্তু ধানের সরবরাহ না পাওয়ায় বর্তমানে শত শত মিল বন্ধ রয়েছে। সরকারের পাশাপাশি চালকল মালিকেরাও যাতে বাজার থেকে ধান সংগ্রহ করতে পারে সে জন্য মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছিলেন তারা। কিন্তু খাদ্য মন্ত্রণালয় তা আমলে নেয়নি। সরকার এককভাবেই ৮৫ ভাগ ধান কেনায় বেসরকারি মিলমালিকরা ধানের সঙ্কটে পড়েছেন। তারা কৃষকের কাছ থেকে বেশি দামে ধান কিনে চাল করতে বাধ্য হচ্ছেন। এ কারণে চালের দাম বেশি পড়ছে বলে দাবি করেন মিলমালিকরা।

অনুসন্ধানে জানা যায়, বর্তমানে ইরি-বোরো এবং আমন মওসুমের মধ্যবর্তী সময় চলতে থাকায় বাজারে ধানের সরবরাহ কম। এই সুযোগ নিচ্ছে চাল ব্যবসায়ীদের অসাধু সিন্ডিকেট। তারা চাল ধরে রাখায় দাম বাড়ছে। সরকারের পক্ষ থেকে ব্যাপক হারে চাল সংগ্রহের ঘোষণা দেয়ার পর থেকে এ সিন্ডিকেট চাল মজুদ শুরু করে। এ ছাড়া মিলার, পাইকার ও খুচরা ব্যবসায়ী নিজ অবস্থান থেকে চেষ্টা করছেন অতি মাত্রায় মুনাফার। মাত্র ১২ থেকে ১৫ মিলমালিকের কাছে চালের বাজার জিম্মি হয়ে পড়েছে। পর্যাপ্ত মজুদ থাকার পরও তারা চাল নিয়ে কারসাজি করছেন। তারা ইচ্ছেমতো চালের সরবরাহ কমিয়ে দিয়েছেন। যদিও তাদের অভিযোগ, চলতি মওসুমে সরকার বেশি দামে বাজার থেকে ধান কিনছে। সরকারের সংগ্রহ মূল্যের কারণে বাজারে ধানের দাম বেশি। ফলস্বরূপ দুই মাসের ব্যবধানে মণপ্রতি মোটা চালের দাম বেড়েছে প্রায় পাঁচ শ’ টাকা। সরু চালের দাম বেড়েছে তিন শ’ টাকা।

http://www.anandalokfoundation.com/