13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হত্যাকান্ডের পনেরদিনেও আসামী ধরছে না পুলিশ

admin
September 30, 2016 8:22 pm
Link Copied!

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি: নাটোরের বড়াইগ্রামের বনপাড়া পৌরশহরের কালিকাপুর এলাকায় পারিবারিক বিরোধের জের ধরে চাচা ও চাচাতো ভাইদের হাতে নৃশংসভাবে আবু তালেব নামে এক ব্যক্তি খুন হওয়ার দীর্ঘ ১৫ দিন পার হলেও মূল চার আসামীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। এদিকে নিহতের স্ত্রী ও মামলার বাদী শাহনারা বেগম সহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের অভিযোগ পুলিশ ইচ্ছে করেই আসামীদের ধরছে না।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আবু তালেব (৪৫)কে কালিকাপুরস্থ তাঁর নিজ বাড়িতে চাচা আসগর আলী (৬০) ও চাচাতো ভাই (আসগর আলীর তিন ছেলে) নিয়াজ মোর্শেদ মিন্টু (৩২), আনিসুর রহমান (২৬) ও  তোজাম্মেল হক রিপন (২৪) ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে। এ সময় পিতাকে বাঁচাতে গিয়ে আবু তালেবের ছেলে আনোয়ার (২০), মেয়ে তানিয়া আক্তার (২৫)  মারাত্মকভাবে জখম হন।

আনোয়ারকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করার পর অবস্থার অবনতি ঘটলে ঢাকায় নেয়া হয় এবং বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনার পর ঘাতকরা পালিয়ে যায়। নিহতের স্ত্রী পরেরদিন ১৫ সেপ্টেম্বর বাদী হয়ে উল্লেখিত চারজন সহ আসগর আলীর স্ত্রী মর্জিনা বেগম  (৪৫) ও আনিসুর রহমানের স্ত্রী স্বপ্না বেগম (২০) কে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ ওই দিনই মর্জিনা ও স্বপ্নাকে আটক করে নাটোর জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ঘটনার কিছুদিন আগে ২০ হাজার টাকা ধার নেন চাচাতো ভাই আনিসুর রহমান। এই পাওনা টাকা চাওয়া নিয়ে প্রথমে কথা কাটাকাটি  ও  পরে একপর্যায়ে আবু তালেবের উপর হামলা চালায় আসগর ও তাঁর ছেলেরা। এতে আবু তালেব ঘটনাস্থলেই খুন ও ছেলে আনোয়ার জখম হন।

এদিকে নিহতের স্ত্রী ও পরিবারের সদস্যরা জানান, মামলার অন্যতম আসামী আসগর আলী পাশ্ববর্তী লালপুর উপজেলায় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছেন। পুলিশ এই তথ্য জানলেও রহস্যজনক কারণে তাঁকে আটক করছেন না।

এ ব্যপারে লালপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাবিবুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আসগর আলী নিয়মিতভাবে অফিস করছেন। তিনি একটি হত্যা মামলার অন্যতম ও পলাতক আসামী এটা জানা সত্ত্বেও  তাকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশকে কেন সাহায্য করছেন না জানতে চাইলে তিনি জানান, তাঁকে গ্রেফতার করা না করা সেটা পুলিশের বিষয় আমার নয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বনপাড়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ দয়াল কুমার ব্যাণার্জি জানান, মামলার তদন্ত কার্যক্রম অব্যহত রয়েছে। এজাহারভুক্ত দুই আসামী বর্তমানে জেল হাজতে আছেন।

বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  মো. শাহ্রিয়ার খান জানান,  আসগর আলীকে গ্রেফতারের জন্য তাঁর কর্মস্থলে পুলিশ পাঠানো হলে কৃষি অফিস থেকে জানানো হয়েছে তিনি ছুটির দরখাস্ত দিয়ে কর্মস্থলে অনুপস্থিত আছেন। এছাড়া অন্যান্য আসামীদের ধরতে পুলিশ জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

http://www.anandalokfoundation.com/