13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সন্দেশখালির বহুল আলোচিত হিন্দু নির্যাতনকারী তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখ গ্রেফতার

Link Copied!

সন্দেশখালির বহুল আলোচিত হিন্দু নির্যাতনকারী তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখ গ্রেফতার। ৫৫ দিনের টালবাহানার অবসান। অবশেষে মিনাখাঁর খ্রিস্টান পাড়া থেকে গ্রেফতার হলেন পশ্চিমবঙ্গের সন্দেশখালির বহুল আলোচিত হিন্দু নির্যাতনকারী তৃণমূল নেতা শাহজাহান শেখ। তাকে বসিরহাট আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আদালতের লকআপে রাখা হয়েছে তাকে। বৃহস্পতিবারই তাকে আদালতে হাজির করানো হবে।

মিনাখাঁ থানার বামনপুকুর থেকে গ্রেফতার শাহজাহান। জানালেন এডিজি (দক্ষিণবঙ্গ) সুপ্রতিম সরকার। তবে কার বাড়ি থেকে শাহজাহানকে গ্রেফতার করা হয়েছে সেই বিষয়ে কিছু বলেননি তিনি। এদিকে সন্দেশখালির ২৩ জায়াগায় জারি ১৪৪ ধারা। একইসঙ্গে শেখ শাহজাহানের বাড়িতে বিশাল পুলিশ বাহিনী ও RAF মোতায়েনও করা হয়েছে।ইতিমধ্যেই তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে বেশকিছু জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। সেক্ষেত্রে ১৪৭, ১৪৮,১৪৯ সহ বেশকিছু ধারা দেওয়া হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। যাতে কোনওরকম বিশৃঙ্খলা না ঘটে তার জন্য র‍্যাফ ও পুলিশে ছয়লাপ বসিরহাট মহকুমা আদালত চত্বর। পাশাপাশি সন্দেশখালির বিভিন্ন জায়গাতেও মোতায়েন করা হয়েছে বাড়তি পুলিশ বাহিনী।

আজ বৃহস্পতিবার সাংবাদিক বৈঠকে পুলিশের তরফে জানান হল, শেখ শাহজাহানের বিরুদ্ধে সম্প্রতি যে অভিযোগগুলি হয়েছে সেগুলি ২ -৩ বছর আগের। সেগুলির তদন্তও শুরু হয়েছে। কিন্তু যেহেতু সেগুলি ২ -৩ বছর আগের তাই সেগুলির তথ্যপ্রমাণ সংগ্রহ করতে কিছুটা সময় লাগছে। তবে গত জানুয়ারি মাসের ৫ তারিখে ইডির ওপর যে হামলার ঘটনা, সেই ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছিল পুলিশ। কিন্ত কিছু আইনি বাধ্যবাধ্যকতা থাকায় সেই তদন্ত প্রক্রিয়া এগোন যাচ্ছিল না। ফলে এতদিন গ্রেফতার করা যায়নি শাহজাহানকে। সম্প্রতি আদালতের তরফে সেউই বাধ্যবাধকতা তুলে নেওয়ার পরেই গ্রেফতার করা হয়েছে। সেটা আদালতে জানান হবে বলেই জানিয়ে দেন সুপ্রতিম সরকার। আদালতে পেশ করে শেখ শাহজাহানকে নিজেদের হেফাজতে চাওয়া হবে বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

গত মাসের ৫ তারিখ ইডির ওপর হামলার ঘটনার দিন থেকেই আর কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না শাহজাহানের। পুলিশই তাকে লুকিয়ে রেখেছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছিল বিরোধীদের পক্ষে থেকে। যদিও সেই অভিযোগ যে সঠিক নয়, তা এদিন সাফ জানিয়ে দেন এডিজি দক্ষিণবঙ্গ সুপ্রতিম সরকার। একইসঙ্গে যে সমস্ত জনপ্রতিনিধিরা সন্দেশখালিতে যাচ্ছেন, তারা যেন উস্কানিমূলক কোনও বক্তব্য না রাখেন- এদিন সেই আবেদনও জানান হয় পুলিশের পক্ষ থেকে।

রেশন দুর্নীতিতে জ‍্যোতিপ্রিয় মল্লিকের ঘনিষ্ঠ শেখ শাহজাহানের বাড়িতে তল্লাশি চালাতে গিয়েছিলেন ইডি আধিকারিকরা। সেদিন বাংলা এক বেনজির ঘটনার সাক্ষী থেকেছিল। অভিযোগ ওঠে, শেখ শাহজাহানের বাড়ির দরজার তালা ভাঙার চেষ্টা করতেই হাজার হাজার মহিলা পুরুষ  ইডি-র দিকে তেড়ে এসেছিলেন লাঠি, বাঁশ, লোহার রড হাতে। তাঁদের কাছে শেখ শাহজাহান ভগবান, তিনি কোনও দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকতেই পারেন না। সেদিন ইডি আধিকারিকদের মার খেতে হয়েছিল। সিআরপিএফ জওয়ানদের কলাবাগান থেকে দৌড়ে পালাতে হয়েছিল। মাথা ফেটেছিল ২ ইডি আধিকারিকের। তখন থেকেই শেখ শাহাজাহান বেপাত্তা।

রাজ্য BJP-র সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বলেন, ‘রাজ্য BJP-র লাগাতার চাপের জেরে শেষ পর্যন্ত শাহজাহানকে গ্রেফতার করতে বাধ্য হল সরকার। আমি তো আগেই বলেছিলাম, আমরা সরকারকে এই গ্রেফতারি করতে বাধ্য করব। আজ BJP এবং সন্দেশখালির মহিলাদের লাগাতার ধরনা এবং বিক্ষোভের ফলে শেষ পর্যন্ত মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তার সরকার শেখ শাহজাহানকে গ্রেফতার করতে বাধ্য হল।’

এর আগে গত ২৫ তারিখ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, ‘শেখ শাহাজাহানকে ধরার ক্ষেত্রে রাজ্যের হাত বেঁধে রেখেছে বিচার ব্যবস্থা’। তবে এর একদিন পরই ২৬ ফেব্রুয়ারি, হাই কোর্টের তরফ থেকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্য়ায়ের সেই দাবি কার্যত খারিজ করে দেওয়া হয়েছিল। সঙ্গে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল, শেখ শাহজাহানকে গ্রেফাতারি কোনও বাধা নেই। পাশাপাশি সন্দেশখালি মামলায় শেখ শাহজাহানকে যুক্ত করার নির্দেশও দিয়েছিলেন উচ্চ আদালতের প্রধান বিচারপতি টিএস শিবজ্ঞানম।

http://www.anandalokfoundation.com/