13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লিবিয়ায় মতৈক্যের সরকার গঠনের চুক্তিতে সম্মত

admin
December 12, 2015 7:36 pm
Link Copied!

নিউজ ডেস্কঃ লিবিয়ায় বিরোধী দুই পক্ষ, জাতিসংঘের অধীনে ১৬ ডিসেম্বর একটি মতৈক্যের সরকার গঠনের চুক্তি করতে সম্মত হয়েছে। এদিকে, লিবিয়ায় আইএসের অবস্থানে বিমান হামলার পরিকল্পনা নেই বলে জানিয়েছে রাশিয়া। এছাড়া, ২০১১ সালে কর্নেল গাদ্দাফিকে রক্ষার চেষ্টা করেননি বলে জানিয়েছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার।

আরব বসন্তের ঢেউ ও আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপে লিবিয়ায় ২০১১ সালের অক্টোবরে দীর্ঘদিনের স্বৈরশাসক গাদ্দাফির পতন ঘটে। অস্থিতিশীল হয়ে ওঠা দেশটিতে ২০১৪’র আগস্টে কট্টর ইসলামপন্থী একটি মিলিশিয়া জোট রাজধানী ত্রিপলি দখলে নেয়। সেই থেকে ত্রিপলি ও পূর্বাঞ্চলীয় তোবরুকে চলছে দুই সরকারের শাসন। এর ওপর মধ্যপ্রাচ্যের বিষফোঁড়া- আইএসও সম্প্রতি দেশটিতে ঘাঁটি গেড়েছে।

এ ঘোলাটে অবস্থা থেকে উত্তরণে যুদ্ধ-বিধ্বস্ত লিবিয়ায় বিবদমান দুই পক্ষ আগামী ১৬ই ডিসেম্বর জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে একটি মতক্যৈর সরকার গঠনে চুক্তি করতে সম্মত হয়েছে। জাতিসংঘের মধ্যস্থতাকারীদের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানায়, শুক্রবার তিউনিসিয়ায় আলোচনার পর দু’পক্ষ এ সিদ্ধান্তে পৌঁছায়।

তবে, এ চুক্তি কোথায় হবে? সে ব্যাপারে পরে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানান তোবরুক-ভিত্তিক সরকারের প্রতিনিধি। এ মতৈক্য আরব বিশ্বের চলমান অস্থিরতায় লিবিয়াকে আশার আলো দেখাবে বলে জানান, ত্রিপলি-ভিত্তিক সরকারের ডেপুটি স্পিকার- সালেহ-আল-মাখজৌম।

তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘের অধীনে হওয়ায় এ চুক্তির আন্তর্জাতিক ভিত্তি থাকবে। আমরা নিজেদের সার্বভৌমত্বের প্রশ্নে আপোস করতে পারি না। পাশের দেশগুলোর যুদ্ধ-সংঘাতের প্রভাব লিবিয়ায় পড়ুক- তা আমরা কোনোভাবেই চাই না।’

এদিকে, লিবিয়ায় আইএসের অবস্থানে বিমান হামলার পরিকল্পনা নেই বলে জানিয়েছে রাশিয়া। শুক্রবার দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভ, ইতালির পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে রোমে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন। রাশিয়া ও ইতালি, লিবিয়া-সংকটের শান্তিপূর্ণ সমাধানে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে তাগিদ দিচ্ছে বলেও জানান ল্যাভরভ।

এদিকে, ২০১১ সালে লিবিয়ায় সংঘর্ষ চলাকালে স্বৈরশাসক কর্নেল গাদ্দাফিকে কোনোভাবে বাঁচানোর চেষ্টা করেননি বলে জানিয়েছেন সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার।

শনিবার বিবিসি জানায়, হাউজ অব কমন্সের বিদেশ বিষয়ক কমিটির সঙ্গে ৯০ মিনিটের এক আলোচনায় একথা জানান ব্লেয়ার।

তিনি বলেন, ‘ব্যক্তিগত সম্পর্ককে কাজে লাগিয়ে আমি তাকে সরে যাওয়া কিংবা অভ্যন্তরীণ নীতিতে পরিবর্তনের পরামর্শ দিয়েছিলাম। এক পর্যায়ে বুঝতে পারি তার এমন কোনো ইচ্ছে নেই। তখন, তাকে সরিয়ে দেয়া হবে বলেও সাবধান করেছিলাম আমি।’

তবে সেসময় একদিন ২৪ ঘণ্টায় গাদ্দাফির সঙ্গে তার ২-৩ বার ফোনে কথা হয় বলে স্বীকার করেন তিনি।

http://www.anandalokfoundation.com/