ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাজনীতিতে শূন্যতা মাঠ আ’লীগের জন্য বিপজ্জনক দুর্বল বিএনপি

admin
September 8, 2015 7:55 pm
Link Copied!

দীর্ঘদিন ধরে রাজপথে অনুপস্থিত দেশের বড় রাজনৈতিক দল বিএনপি। কোনো কর্মসূচি দিয়ে রাজপথে নামতে পারছে না দলটি। দু’দফা আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে সাংগঠনিকভাবে বিপর্যস্ত। বার বার দল গোছানোর কথা বলেও তা করতে পারছে না। মামলা-হামলা, গুম-খুনের শিকার নেতাকর্মীরা। দলের হাজার হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে। এখন চার্জশিট দেওয়া হচ্ছে। এতে রাজনীতিতে যে শূন্যতা তৈরি হয়েছে তাতে শুধু বিএনপি নয়, আওয়ামী লীগও সঙ্কটে পড়েছে।

দীর্ঘদিন ধরেই রাজপথে বিএনপি নেতাকর্মীদের অনুপস্থিতি বেশ স্পষ্ট। সর্বশেষ গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে গত ৬ সেপ্টেম্বর দেশব্যাপী প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিলের ঘোষণা দেয় বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট। কিন্তু কেন্দ্রীয়ভাবে রাজধানী ঢাকার কোথাও বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হবে কিনা তা-ই জানতেন না এ জোটের অধিকাংশ নেতা। এর একদিন আগে ৫ সেপ্টেম্বর সাংগঠনিক দুর্বলতার পাশাপাশি দলের সিনিয়র নেতাদের প্রতি বিএনপির সম্মান জানানোর বিষয়ে দীনতার চিত্র ফুটে উঠেছে।

দলের স্থায়ী কমিটির সাবেক সদস্য ও সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের নীচে ওইদিন বাদ আসর ঘোষণা দিয়ে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে দলটি। কিন্তু এতে বিএনপির সহ-তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-দফতর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন, মুক্তিযোদ্ধা দলের সভাপতি ইসতিয়াক আজিজ উলফাত, ওলামা দলের সভাপতি মাওলানা এম এ মালেক, সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. নেছারুল হক ছাড়া উল্লেখ করার মতো অন্য কোনো নেতা উপস্থিত হননি। এমনকি দলের মুখপাত্র আসাদুজ্জামান রিপনকেও এ কর্মসূচিতে দেখা যায়নি। বিএনপির এই দুর্বল অবস্থান দেশে রাজনৈতিক শূন্যতা সৃষ্টি করেছে। যা ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের জন্য বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তাদের মতে, সামনে কোনো শক্তিশালী প্রতিপক্ষ না থাকায় বেপরোয়া হয়ে উঠেছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

লুটপাট, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের খবরে প্রতিদিনের সংবাদপত্রের পাতা ভরে উঠছে। তাতে ইমেজ সঙ্কটে পড়তে হচ্ছে দলটিকে। এ রকম শূন্য রাজনৈতিক পরিস্থিতি দেশকে ও আওয়ামী লীগকে গভীর সঙ্কটে ফেলে দিতে পারে বলে মনে করছেন তারা। তাদের মতে, রাজনৈতিক শূন্য অবস্থায় দেশে উগ্রবাদী সংগঠনের বিস্তার লাভ করে। সেটা হতে পারে ধর্মীয় বা চরমপন্থী বাম কোনো সংগঠনের সহিংস আন্দোলন। ’৭৫-এর ১৫ আগস্ট পূর্ববর্তী সময়ে এমনটিই ঘটেছিল। সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমের বক্তব্যের মধ্যে এমন সঙ্কটের আভাস খুঁজছেন বিশ্লেষকরা।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম জাতীয় শোক দিবসের এক অনুষ্ঠানে আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, ‘১৫ আগস্ট ইতিহাসের কালো দিন। কলঙ্কের দিন। বাংলাদেশে যেন এ রকম কিছু আর না ঘটে জনগণকে সতর্ক থাকতে হবে। গত ৫ আগস্ট শোক দিবসের এক আলোচনায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘আমাদের প্রতিপক্ষ দুর্বল হয়ে গেছে। মাঠে এখন প্রতিপক্ষ খুব দুর্বল। প্রতিপক্ষ দুর্বল হলে নিজেদের মধ্যে যুদ্ধ শুরু হয়ে যায়। ১৫ আগস্টের আগে এমনটাই হয়েছিল। তখন আমরা নিজেরা যুদ্ধ করেছিলাম বলেই মোস্তাকের মতো বেঈমান বিশ্বাসঘাতকতা করার সুযোগ পেয়েছিল। মোস্তাক আমাদের মধ্যেই ছিল। প্রতিপক্ষকে দুর্বল মনে করে আমরা যদি নিজেদের মধ্যে যুদ্ধ শুরু করি তাহলে আমাদের সামনে বিপদ আসবে।

এ বিষয়ে রাজনীতি বিশ্লেষক ও সাবেক তথ্যমন্ত্রী ড. মিজানুর রহমান শেলী বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা কর্তৃপক্ষের নজরদারী না থাকলে এবং সার্বিক সুশাসনের অভাব হলে সেক্ষেত্রে যেকোনো রাজনৈতিক দল লাগামছাড়া আচরণ করে। ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা না বুঝে অথবা বুঝেও না বুঝার ভান করে তাদের নিজস্ব স্বার্থের জন্য সহিংসতার পথ বেছে নেয়। তিনি বলেন, ‘সরকারি দলের নেতাকর্মীরা মনে করে তাদের বিচার হবে না। সমাজ হচ্ছে রাজনীতি, অর্থনীতি ও সামাজিক মূল্যবোধের একটা সমষ্টি। এক অংশের মধ্যে দূষণ দেখা গেলে অন্যান্য অংশের মধ্যে দূষণ সঞ্চার হয়। বিরোধী শক্তি (বিএনপি জোট) যদি সুসংগঠিত না হয়, তাদের শক্তির যদি সৎ প্রকাশ না থাকে তাহলে সরকারি দল মনে করে আমাদের তো আর কোনো বাধা নেই। যেহেতু আমরা সরকারি দলে আছি আমাদের কেউ বাধা দেবে না। এটাই রাজনীতিতে ভাল ফল বয়ে আনে না।

আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ হানাহানির কথা বললেও বিএনপির দুর্বলতা মানতে রাজী নন দলটির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান। তিনি বলেন, ‘আমাদের কাছে জনগণদের প্রত্যাশা আছে। কিন্তু সরকারের বাহন দিয়ে আমাদের আটকে রাখা হয়েছে। রাজপথে নামতে দিচ্ছে না। মামলা-হামলা, গুম-খুন করা হচ্ছে। দলের হাজার হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে। এখন চার্জশিট দেওয়া হচ্ছে। এভাবে অবশ্য বেশী দিন চলতে পারবে না। গ্যাস-বিদ্যুতের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলের কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা হয়েছে, কর্মসূচি দেওয়া হবে’ এমনটা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বিএনপিকেও আন্দোলন করতে হবে। জনগণের মধ্যেও একটা ক্ষোভ আছে, বিএনপি কেন আন্দোলন করে না।

আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেন, ‘সরকার প্রশাসনের ওপর ভর করে টিকে আছে। নিজেরা বোমা মারে আমাদের ওপর চাপিয়ে দেয়। এখন বিএনপি কী কৌশল অবলম্বন করবে সেটাও আলোচনায় আছে। নোমান আরও বলেন, ’৭৫-এ পারে নাই, এখন পারবে না। আওয়ামী লীগের হাতে এখন আর তাদের অঙ্গসংগঠনগুলো নেই। রাজনৈতিক দল তাদের হাতে নেই। যার যার কর্তৃত্ব নিয়ে ব্যস্ত আছে, অভ্যন্তরীণ সংকট তীব্র হচ্ছে। একটা সময় তাদের ভেতরের কোন্দল ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট সবকিছু মিলেই আওয়ামী লীগ পরাজিত হয়ে যাবে। আমাদের আন্দোলন ওইভাবে হচ্ছে না, কিন্তু সরকার আনপপুলার হচ্ছে’ উল্লেখ করে বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ‘জনগণ উপলব্ধি করেই রাজপথে নামবে, আন্দোলন সফল হবে। কারণ জনগণ ছাড়া তো আন্দোলন সফল হবে না। সরকারের অভ্যন্তরীণ কোন্দল পরাজয়ের একটা বাহন। আজকে সরকারের পতন শুরু হয়ে গেছে।

ভোটারবিহীন নির্বাচন করে এভাবে তো আর বেশী দিন ক্ষমতায় টিকে থাকা যায় না। পৃথিবীর ইতিহাসে এমন ঘটনা নেই। তাদের (আওয়ামী লীগ) একদিন চলে যেতে হবে। আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, ‘এটা বিএনপির বিষয় না। সারাবিশ্বেই এক ধরনের অস্থিরতা বিরাজ করছে। সে দিক থেকে এ ধরনের দু’-একটি ঘটনা ঘটতে পারে। বাংলাদেশে বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় থাকতে যেভাবে জঙ্গীবাদের উত্থান ঘটিয়েছিল, সেটার কিছুটা ঢেউ আছেই। অনেক জায়গায় জঙ্গী বা ধর্মীয় মনোভাবের কারণে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এটা এখন নিয়ন্ত্রণে আছে। এ বিষয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কোনো কারণ নেই। সরকার এ বিষয়ে প্রশ্রয় দিবে না। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, ‘মাঠে শক্তিশালী বিরোধী দল না থাকলে রাজনৈতিক দলগুলো অভ্যন্তরীণ কোন্দলে জড়িয়ে পড়ে। এটা সত্য, এটা বাস্তবতা।

সম্প্রতি আমাদের মধ্যে যারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েছিল, সেটি আমরা শক্ত হাতে দমন করার চেষ্টা করছি। এক্ষেত্রে আমরা অনেকখানি সফলকাম হয়েছি। আমরা নেতাকর্মীদের সংযত এবং রাজনৈতিক কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকার অনুরোধ করছি। বিএনপির দুর্বলতা তথা শক্ত বিরোধী দলের অভাবে সৃষ্ট রাজনৈতিক শূন্যতার বিপরীতে আওয়ামী লীগের অন্তঃকোন্দল দিনকে দিন আরও স্পষ্ট হয়ে উঠছে। সারাদেশে এ প্রবণতা আজ স্পষ্ট। সর্বশেষ গত ৩০ আগস্ট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা শিক্ষকদের টেনে-হিঁচড়ে লাঞ্ছিত করেছে। এর আগে জাতীয় শোকদিবসে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে রবিউল ইসলাম নামে এক আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত হয়। একই দিনে কুষ্টিয়ায় শোক দিবসের র‌্যালি শেষে জেলা আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের সংঘর্ষে নিহত হন যুবলীগকর্মী সবুজ হোসেন। এর আগে শোক দিবসের অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিতে বুধবার (১২ আগস্ট) রাতে রাজধানীর বাড্ডায় আয়োজিত প্রস্তুতি বৈঠকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের দুই নেতাসহ তিনজনকে। ওইদিনই সিলেটের মদন মোহন কলেজেও নিজ সংগঠনের ক্যাডারের ছুরিকাঘাতে আব্দুল আলী (১৯) নামে এক ছাত্রলীগকর্মী খুন হয়েছেন।

এদিকে গত ১০ আগস্ট রাতে রাজধানীর কাজীপাড়ায় নিজেদের কোন্দলে খুন হন কাফরুল থানা সৈনিক লীগের সাধারণ সম্পাদক রুবেল। ৭ আগস্ট নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার দেওটি ইউনিয়ন যুবলীগের দফতর সম্পাদক মিলন সরকারকে (২৮) কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। একই দিন বরিশালের আগৈলঝাড়ায় রাসেল ব্যাপারী (২৩) নামে ছাত্রলীগের এক কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। ১ আগস্ট সন্দ্বীপের মগধরা ইউনিয়নের নামারবাজার এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে যুবলীগের এক কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

http://www.anandalokfoundation.com/