13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যশোরে তরিকুল্লাহ ওয়াক্ফ এস্টেটের মোতওয়াল্লী বকুলের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ

admin
September 11, 2017 5:37 pm
Link Copied!

যশোর অফিসঃ  যশোরে তরিকুল্লাহ বিশ্বাস ওয়াক্ফ এস্টেট এর মোতওয়াল্লী এম এ কুদ্দুস ওরফে বকুলের বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। দীর্ঘদিন যাবত ওয়াক্ফের সম্পত্তি দেখভালের নামে তিনি শরিকদের ন্যায্য প্রাপ্তি না দিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। কেউ প্রতিবাদ করলে উল্টো তার বিরুদ্ধে মামলা জুড়ে দেন। এছাড়া মোতওয়াল্লী কর্তৃক সম্পত্তি বিক্রির নিয়ম না থাকলেও তিনি সুচতুরভাবে শহরের ৩১/৩১ (এ) এইচ এম এম রোড়ের ৩ শতক জমি বিক্রি করে দিয়েছেন। ওয়াক্ফের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে সীমাহীন অনিয়মের পরও তিনি রয়েছেন ধরাছোঁয়ার বাইরে।

একাধিক নির্ভরযোগ্যসুত্রে জানা যায়, যশোর সদর উপজেলায় তরিকুল্লাহ বিশ্বাস ওয়াক্ফ এস্টেট এর সাড়ে ৩ শ’ বিঘা জমি রয়েছে। যার অধিকাংশই শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অবস্থিত । এ সম্পতি দেখভাল করেন শহরের এইচ এম এম রোড় এলাকার বাসিন্দা মৃত মাওলা বক্স এর ছেলে এম এ কুদ্দুস ওরফে বকুল। তার পূর্বপুরুষরা ওই সম্পতি বাংলাদেশ ওয়াক্ফ এস্টেট এর নামে দান করায় তিনি মোতওয়াল্লী হিসাবে নিযুক্ত হন। কিন্তু দেখভালের দায়িত্ব পেয়ে বকুল ওয়াক্ফ এর নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে অর্থের লোভে একের পর এক অনিয়ম করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন। তিনি বাংলাদেশ ওয়াক্ফের সম্পতি নিজের মতই ভোগদখল করছেন।

ওয়াক্ফের নীতিমালা অনুসারে, ওই সম্পতি থেকে উপার্জনের লভ্যাংশ শরীকদের মধ্যে বন্টনের যে নিয়ম রয়েছে বকুল তার কোনটাই মানেন না। তিনি লভাংশের পুরো অর্থ একাই আত্বসাত করে থাকেন।

সুত্র বলছে, ওয়াক্ফে দানকৃত সম্পতি বিক্রির নিয়ম নেই। কিন্তু তরিকুল্লাহ বিশ্বাস ওয়াক্ফ এস্টেট এর মোতওয়াল্লী বকুল সুচতুরভাবে শহরের ৩১/৩১ (এ) এইচ এম এম রোড়ের ৩ শতক জমি বিক্রি করে দিয়েছেন। ওই জমির দাগ নং ১২৪। বিক্রয় দলিল নং-১০৮০৯। এছাড়া যশোর ক্যান্টমেন্ট এলাকার কয়েকটি জমি তিনি বিক্রি করে দিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

সুত্র মতে, বকুল ওয়াক্ফ দপ্তরের প্রাপ্ত চাঁদা ফাঁকি দিয়ে লাখ লাখ টাকার মালিক হয়েছেন। এমনকি কোন ভাড়াটিয়াকে রশিদ পর্যন্ত দেন না। যশোর শহরের ১৫ এইচ এম এম রোড়ের রেজা এন্টার প্রাইজ, রহমান বন্ত্রালয়, মনির সু , চকম ক্লথ ষ্টোর ও একই স্থানে অবস্থিত রহমান ক্লথ এ্যান্ড সু এবং দড়াটানা জামে মসজিদ উত্তর গেট সংলগ্ন রুপালী ট্রের্ডাস ও একই স্থানে অবস্থিত আল মদিনা ষ্টোর থেকে যে ভাড়া আদায় করা হয় তার সঠিক তথ্য গোপন করে নাম মাত্র ভাড়া আদায় দেখানো হয়। এছাড়া নিজেই ওয়াক্ফের সম্পত্তির মালিক হওয়ার জন্য ওয়াক্ফের কাছ থেকে ইজারা নেয়া শহরের এইচ এমএম রোড়ের রহমান ক্লথ ষ্টোর এর সাথে করা চুক্তির পত্রের কাগজপত্র জালিয়াতি করে তার বুনিয়াদে আদালতে মামলা করছেন। প্রশাসনকে ভুল বুঝিয়ে ও দোকানের ভাড়া পরিশোধের সুযোগ না দিয়ে কৌশলে দায়েরকৃত মামলাটির রায় না হলেও জোরপূর্বক রহমান ক্লথ ষ্টোরটি দখল করে নিয়েছেন। বর্তমানে ওয়াক্ফ এস্টেট এর সব শর্ত ভঙ্গ করে বকুল লাগামহীনভাবে অবৈধ টাকা উপার্জন করে যাচ্ছেন।

সুত্রগুলো বলছে, ওয়াক্ফ প্রশাসকের সহকারী প্রশাসক কামরুজামানকে মোটা অংকের উৎকোচ দিয়ে সকল অনিয়ম করেও তিনি পেয়ে যান। কোন ভাড়াটিয়া প্রতিবাদ করলে তাদের নামে মিথ্যা মামলা জুড়ে দেন। ইতিপূর্বে যশোরের সাবেক জেলা প্রশাসক ও দড়াটানা মসজিদ কর্তৃপক্ষের নামেও মামলা করেছেন ধুরন্ধর বকুল। ফলে হয়রানির ভয়ে কেউ তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায় না। অবিলম্বে তদন্ত পূর্বক যশোর সদরের তরিকুল্লাহ বিশ্বাস ওয়াকফ এস্টেট এর মোতওয়াল্লী বকুল এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছে একালাবাসী।

এ ব্যাপারে যশোর শহরের এইচ এমএম রোড়ের রহমান ক্লথ ষ্টোর মালিক জাহিদ চাকলাদার জানান, তরিকুল্লাহ বিশ্বাস ওয়াক্ফ এস্টেট এর মোতওয়াল্লী বকুল অত্যান্ত ধুরন্ধর। ওয়াক্ফ প্রশাসনের উদ্ধর্তন এক অফিসারকে ম্যানেজ করে সে নানা অনিয়ম করে যাচ্ছে। দুর্নীতি দমন কমিশন বিষয়টি সঠিক তদন্ত করলে অনিয়মের বিষয় ধরা পড়বে। অভিযোগের ব্যাপারে তরিকুল্লাহ বিশ্বাস ওয়াক্ফ এস্টেট এর মোতওয়াল্লী এম এ কুদ্দুস ওরফে বকুলের সাথে কথা বলার জন্য তার ব্যাক্তিগত সেলফোন নাম্বারে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে ওয়াক্ফ প্রশাসকের যশোর আঞ্চলিক অফিসের হিসাব নিরীক্ষক শামীমুল হক বলেন, তরিকুল্লাহ বিশ্বাস ওয়াক্ফ এস্টেট এর মোতওয়াল্লী বকুলের সাথে ভাড়াটিয়াদের সমস্যার বিষয়টি দেখার জন্য যশোর জেলা প্রশাসকে দায়িত্ব দেয়া হয়। দোকান বিক্রির চেষ্টা করেছিল কিন্তু পারেনি। অনিয়মের বিষয়গুলো উদ্ধর্তন কর্র্তৃপক্ষকে জানানো হবে। অভিযোগের ব্যাপারে কথা বলার জন্য ওয়াক্ফ প্রশাসকের সহকারী প্রশাসক কামরুজামানের মোবাইল ফোনে কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেনি।

http://www.anandalokfoundation.com/