13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যশোরের দপ্তরী হত্যার প্রধান সন্দেহভাজক মাসুদুর রহমান ৭ দিন যাবত লাপাত্তা

admin
June 4, 2016 8:15 pm
Link Copied!

যশোর প্রতিনিধি: ৮ দিন অতিবাহিত হলেও যশোরে দপ্তরী হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করা যায়নি। হত্যাকান্ডের প্রধান সন্দেহভাজন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান শিক্ষক ঘটনার পর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। তাকে গ্রেফতার করা হলে হত্যার মেটিভ উম্মোচন করা সম্ভব বলে মনে করছে স্থানীয়রা। কিন্তু রাজনীতিক নেতাদের ব্যবহার করে  ঘটনাটি ধামা চাপা দেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। ফলে হত্যার মুল রহস্য উদঘাটনের সম্ভাবনা ক্রমেই ফিকে হয়ে যাচ্ছে।

গত ২৫ মে যশোর সদর উপজেলার বাজুয়াডাঙ্গা সরকারি প্রথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরী সাগর দত্তের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ৮ দিন পার হলেও হত্যার বিষয়টি অনুসন্ধানে প্রশাসনের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি নেই। প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মাসুদুর রহমান ঘটনার পরের দিন থেকে স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দিয়েছেন।

পুলিশ তার বাড়িতে গিয়েও খুঁজে পাচ্ছে না। তিনি হত্যার পরে তড়িঘড়ি করে অসুস্থতার ভান করে ৫ দিনের ছুটি নেন। তারপর থেকে কোথায় আছে তা কেউ বলতে পারছেন না । স্ত্রী ও সন্তানেরা তার সন্ধান দিতে পারছেনা। ফলে সঙ্গত কারণে প্রশ্ন উঠেছে মাসুদুর রহমানই কী হত্যাকান্ডের নায়ক?

সুত্র বলছে, দপ্তরী খুনের রহস্য উদঘাটনের জন্য প্রতিষ্ঠানে প্রধান শিক্ষক হিসাবে মাসুদুর রহমানের বলিষ্ঠ ভূমিকা পালন করার কথা। কিন্তু তিনি উল্টো পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। এমনকি ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জন্য রাজনীতিক নেতাদের ব্যবহার করছেন। ২৯ মে জেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি শহিদুল ইসলাম তার পক্ষে তদবীরের জন্য জেলা আওয়ামীলীগের শীর্ষ এক নেতার কাছে যান। এসময় তার সাথে আরও ৬/৭ জন প্রধান শিক্ষক ছিলেন।

যার সত্যতা স্বীকার করেছেন সদর উপজেলার শিক্ষা কর্মকর্তা জামাল হোসেন। তবে মাসুদুর রহমান পলাতক কিনা সেটা তিনি জানেন না এই শিক্ষা কর্মকর্তা।

সুত্র বলছে, হত্যাকান্ডের সাথে সংশ্লিষ্টতা না থাকলে মাসুদুর রহমানের পক্ষে রাজনীতিক তদবীর কেন ? আর কেনই বা লুকিয়ে থাকবেন? এসব প্রশ্নের কোন সুদুত্তর মিলছেন।

সুত্র বলছে, সাগর দত্ত হত্যার পর গত ২৯ মে বাজুয়াডাঙ্গা সরকারি স্কুলে যায় পুলিশ। এ সময় স্কুলের সহকারী শিক্ষক মহিবুল মিলনকে থানায় নিয়ে আসে । এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। কিন্তু তার কাছ থেকে উল্লেখযোগ্য রহস্য উদঘাটন করা যায়নি। অন্যান্য শিক্ষকদের জিজ্ঞাসাবাদ করেও হত্যার কোন তথ্য মেলেনি।

সুত্র বলছে, নিয়োগ সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরেই সাগর দত্তকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। ৩ বছর মেয়াদের প্রকল্পের আওতায় সাগর দত্ত দপ্তরী কাম নেশ্য প্রহরী পদে নিয়োগ হয়। গত মে মাসে যার মেয়াদ শেষ হয়ে যায়। নতুন করে নিয়োগ লাভ করতে হলে প্রতিষ্টানের প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির সাথে পুনরায় চুত্তির প্রয়োজন। সাগর দত্তকে নিয়োগের জন্য নতুন একটি চুক্তিনামা তৈরি করা হয়। কিন্তু বাঁধ সাধে অর্থ। সাগর দত্ত যে টাকা দিতে চেয়েছিল তার থেকে ৪/৫গুন টাকা দিয়ে অপর এক ব্যক্তি ওই পদে যোগদান করতে চায়। আর এ ঘটনার থেকেই সাগর দত্তের সাথে প্রধান শিক্ষকের বিরোধ সৃষ্টি হয়। অর্থের মোহে প্রধান শিক্ষক সাগর দত্তকে বাদ দিতে চায়। তাকে প্রত্যাহার করে নতুন কাউকে নিয়োগ দেয়া হলে মামলার হুমকি দেয় সাগর দত্ত। এ ঘটনা থেকেই হত্যা কান্ডের সুত্রপাত।

সুত্র বলছে, মাসুদুর রহমানকে নিয়ে লুকোচুরি খেলছেন পুলিশ। মাসুদুর রহমানের পারিবারিক একটি সুত্রে জানা গেছে, লুকিয়ে থেকেও কোতয়ালী থানার ওসি সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন মাসুদুর রহমান। তার সাথে দেনদরবারও চলছে। অথচ পুলিশ তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না বলে প্রচার চালাছে। এ ব্যাপারে কোতয়ালী থানা অফিসার ইনর্চাজ (ওসি ) ইলিয়াস হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি রাগন্বিত হয়ে বলেন, ‘তাতে আপনার সমস্যা কী?’

সুত্র বলছে, সাগর দত্ত হত্যাকান্ডের পর থেকেই মাসুদুর রহমান অসুস্থ বলে ছুটি ভোগ করছেন। তার ছুটি ভোগ করা নিয়েও সন্দেহ সৃষ্টি হয়েছে। যশোর সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জামাল হোসেনের কাছে এ ব্যাপারে জানতে তিনি বলেন,‘ মাসুদুর রহমান ছুটিতে আছেন কিনা তার জানা নেই।’ কে জানে এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘সহকারী শিক্ষা অফিসারের কাছে খবর নেন।, তবে সদর উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া জানালেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন,

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার নির্দেশেই তাকে ৫ দিনের ছুটি দেয়া হয়েছে।’ ছুটির পর স্কুলে যাচ্ছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কাল খোঁজখবর নিয়ে জানাবো।’

http://www.anandalokfoundation.com/