13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

মাম্পি সিং(১৬)কে তুলে নিয়ে গিয়ে গণধর্ষণ শেষে বিষ প্রয়োগে হত্যা ফিরোজ আলীর

Rai Kishori
July 22, 2020 3:48 pm
Link Copied!

দেবাশীষ মুখার্জী, কূটনৈতিক প্রতিবেদক: গত শনিবার শেষরাতে পশ্চিম বঙ্গের উত্তর দিনাজপুর জেলার চোপড়ায়, সদ্য মাধ্যমিক-উত্তীর্ণ নাবালিকা মাম্পি সিং(১৬)-কে, বাড়ি থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে গণধর্ষণ করে, বিষ প্রয়োগে হত্যা করা হয়। নিহত-ধর্ষিতার পরিবার, স্থানীয় যুবক ফিরোজ আলীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করে। পুলিশ ছিল নির্বিকার। এজন্য প্রচণ্ড গণঅসন্তোষ দেখা দেয়। মমতা ব‍্যানার্জীর পুলিশ, রাতারাতি একটা ময়না তদন্ত রিপোর্ট তৈরি করে, ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনাকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দিয়ে, ফিরোজ আলীকে রক্ষা করার চেষ্টা করে। প্রতিবাদে সাধারণ জনতা রাস্তায় নেমে আসে। পুলিশ তাদের প্রতিহত করার চেষ্টা করলে,পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে।

গত সোমবার খুন ও ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত ফিরোজ আলীর মৃতদেহ উদ্ধারের পর, মমতা ব্যানার্জীর নির্দেশে তৃণমূল সাংসদ মৌসম নুর-এর নেতৃত্বে, পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবসহ তৃণমূল কংগ্রেসের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল – ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে অভিযুক্ত ফিরোজ আলীর শোকসন্তপ্ত পরিবারকে গিয়ে সান্ত্বনা দিয়ে আসে। ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে অভিযুক্ত কোনো ব্যক্তির বাড়িতে গিয়ে, কোন সংসদীয় প্রতিনিধিদলের সান্ত্বনা দিয়ে আসার দৃষ্টান্ত – সভ‍্য সমাজে অচিন্তনীয়।

পৃথিবীর অষ্টম আশ্চর্যের দৃষ্টান্ত স্থাপন করে, মমতা ব‍্যানার্জীর পুলিশ, নিহত-ধর্ষিতা কিশোরীর বাবা, দুই দাদা ও জ্যাঠাকে গ্রেফতার করেছে। গতকাল মঙ্গলবার তাদের ইসলামপুর অতিরিক্ত মুখ্য দায়রা আদালতে তোলা হয়। বিচারক মহুয়া রায় বসু তাঁদের ১০ দিনের পুলিশ হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কার্তিকচন্দ্র মণ্ডল জানিয়েছেন, ধর্ষণ  ও খুনের দায়ে অভিযুক্ত ফিরোজ আলীর  পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে নিহত মাম্পি সিং-এর পরিবারের পুরুষ সদস্যদের গ্রেফতার করা হয়েছে।

মাম্পি সিং-এর  মৃত্যুর দিন রাতেই তড়িঘড়ি করে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট প্রকাশ্যে এনেছিল পুলিশ। অথচ অভিযুক্ত খুনি ও ধর্ষক ফিরোজ আলীর ময়নাতদন্তের রিপোর্টের ক্ষেত্রে উল্টো চিত্র দেখা গেল। গতকাল মঙ্গলবার গভীর রাত পর্যন্ত পুলি ময়নাতদন্তের রিপোর্ট প্রকাশ্যে আনেনি। এনিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে। এ ব্যাপারে বক্তব্য জানতে চেয়ে পুলিশ সুপার শচীন মক্করকে বারংবার ফোন করা হলে, তিনি লাইন কেটে দিয়েছেন।

ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেসের ঘনিষ্ঠ – প্রভাবশালী আনন্দবাজার পত্রিকা লিখেছে, প্রশাসন সূত্রে তারা জানতে পেরেছে, অভিযুক্ত খুনি-ধর্ষক ফিরোজ আলী বিষপানে আত্মহত্যা করেছে।

স্থানীয় মানুষের অভিযোগ, চরম হিন্দু-বিদ্বেষী তৃণমূল কংগ্রেস সরকারের সাম্প্রদায়িকতা পাকিস্তানের বর্বরতাকেও হার মানিয়ে দিয়েছে। পশ্চিমবঙ্গে একজন হিন্দু কিশোরী, মুসলমান যুবক কর্তৃক ধর্ষিত ও খুন হওয়ার পর, পুলিশ নিষ্ক্রিয় থাকে; ভুয়া ময়নাতদন্ত রিপোর্ট বানিয়ে ধর্ষণ ও হত্যাকাণ্ডকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়া হয়। অথচ ইসলাম ধর্মালম্বী একজন খুনি ও ধর্ষক  বিষপানে আত্মহত্যা করলে, ময়নাতদন্ত রিপোর্ট গোপন রেখে, নিহত-ধর্ষিতার পরিবারের পুরুষ সদস্যদের গ্রেফতার করে, নির্লজ্জভাবে সংখ্যালঘু তোষণ করা হয়। বর্বরতার এখানেই শেষ নয়, মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির নির্দেশে সংসদ সদস্যরা এসে খুনি ও ধর্ষক পরিবারের সদস্যদের অভয়বাণী শুনিয়ে আস্বস্ত করে যায়।

http://www.anandalokfoundation.com/