13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভোট ইস্যুতে ঝন্টু মন্ডলের হাত পা ভেঙ্গে স্ত্রী-কন্যার শ্লীলতাহানি, বাড়ীঘর ভাংচুর লুট

Link Copied!

মাদারীপুরে ভোট দেওয়াকে ইস্যু করে বাড়ীঘর ভাংচুর, স্ত্রী ও কন্যার শ্লীলতাহানি করে ঝন্টু মন্ডলের হাত-পা গুড়িয়ে দিয়ে লক্ষাধিক টাকা, ঘরের সমস্ত জিনিসপত্র-গবাদি পশু লুটপাট, জোর পূর্বক সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে ভারতে পাঠিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে কালকিনি পৌরসভা ৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা আনোয়ার বেপারী ও তার সহযোগীরা। স্ত্রী ও কন্যার শ্লীলতাহানি

৭-৮ জানুয়ারি (রবিবার রাতে ও সোমবার) মাদারীপুর জেলার কালকিনি পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডের নয়াকান্দি গ্রামে এমন বিধ্বংসী ঘটনা ঘটে।

ভুক্তভোগী পরিবার সূত্র জানা যায়, ৭ জানুয়ারী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কালকিনি পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডে নয়াকান্দি ভোটকেন্দ্রে নৌকার এজেন্ট ছিলেন ঝন্টু মন্ডলের ছেলে উজ্জ্বল চন্দ্র মন্ডল। কিন্তু নির্বাচনের আগেই সংখ্যালঘু বেশ কয়েকটি পরিবারকে ভোটকেন্দ্রে না যাওয়ার জন্য হুমকি ধমকি দিয়ে আসছিলেন সাবেক কাউন্সিলর আনোয়ার বেপারি। তার কথা না শুনে নির্বাচনের দিন নৌকার এজেন্ট থাকার কারণে এবং নৌকা প্রতীক সতন্ত্র প্রার্থীর কাছে হেরে যাওয়ায় এরা নৌকা সমর্থকদের বাড়িঘরে হামলা করে লুটপাট ভাংচুর করতে শুরু করে।

এরই ধারাবাহিকতায় ঝন্টু মন্ডলের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাংচুর করে তার কিশোরী মেয়ে, স্ত্রী ও নারীদের  গায়ে হাত তুলে লাঞ্ছিত সহ গবাদিপশু লুটপাট করে। ঝন্টু মন্ডলকে আনোয়ার কমিশনার এর নেতৃত্বে পিটিয়ে হাতপা ভেঙে বাড়িতে ফেলে রেখে পাহারা দিতে থাকে যাতে চিকিৎসার জন্য নিকটস্থ চিকিৎসা কেন্দ্রে না যেতে পারে, পরবর্তীতে আহত ঝন্টু চন্দ্র মন্ডলের রক্তক্ষনের ফলে ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়লে প্রতিবেশীরা চিকিৎসার জন্য নিকটস্থ চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যায়।

 ঝন্টু মন্ডল এর ছেলে উজ্জ্বল চন্দ্র মন্ডল জানান, ৭ জানুয়ারি নির্বাচনের পরপরই ভোট গগনা শেষে রাত হতেই তাদের বাড়িতে বোমা ফাটিয়ে হামলা চালায় আনোয়ার বেপারি। আলমগীর বেপারি, জাহাঙ্গীর বেপারি, রিক্তা বেগম, রিয়াজ বেপারি, সাব্বির বেপারি সহ ২০ থেকে ৩০ জন সন্ত্রাসী গভীর রাত থেকে সকাল পর্যন্ত তারা আমাদের বাড়িতে ৮/১০ টি বোমা ফাটিয়ে মটরসাইকেল নিয়ে ঢুকে দীর্ঘক্ষন তান্ডব চালায়।

পরের দিন ০৮/০১/২৪ ইং সংঘবদ্ধ ১০০/১৫০ জনের  দল পুনরায় সকাল ১০ টা থেকে ঘরবাড়ি যথেচ্ছভাবে কোপায় ও লুট করে গরু নিয়া যায়, টিভি ভাঙ্গে ফ্রিজ নিয়ে যায়, আলমারি ভেঙ্গে কাঁসা পিতলের থালা বাসন সমস্ত কিছু এবং সোনাদানা টাকা নিয়ে যাওয়ার সময় তার পরিবার থেকে জোরপূর্বক স্ট্যাম্পে সই করিয়ে নিয়ে সম্পত্তি দখল করার জন্য তাদেরকে সবকিছু রেখে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার জন্য হুমকি দেয়। বাড়িতে যাকে পায় তাকেই মারে। এমনকি ভাতের পাতিল পর্যন্ত কুপিয়ে ভেঙ্গে রেখে যায়। এমন সময় বাড়ির পিছে ধানের জমিতে কাজ করা ঝন্টু চন্দ্র মন্ডলকে ধাওয়া করে। অবস্থা বেগতিক বুঝে ঝন্টু মন্ডল ধান ক্ষেতের ভিতর দিয়ে দৌঁড়ে পান্নু বেপারীর বাড়ি গিয়ে ওঠে। সন্ত্রাসীরা ধাওয়া করে সেখান থেকে ধরে নিয়ে পিটিয়ে হাত, পা ভেঙ্গে দেয় এবং সেই বাড়িও ভাংচুর করে। তারপর অচেতন ঝন্টু মণ্ডলকে ভ্যানে করে এনে বাড়ির উঠোনে ফেলে রেখে যায়।

স্থানীয়রা জানান, গত পৌর নির্বাচনে প্রথমবার কমিশনার হয়েই বিভিন্ন লোককে নির্যাতন করে। কমিশনার অবস্থায় ৬ টা জিআর মামলা হয় তার ও তার ভাই গং দের বিরুদ্ধে। গত ৩০/০৫/২০২২ইং এই ঝন্টু মণ্ডলের বাড়িতে ঢুকে হামলা ও লুট করে একই ব্যাক্তিরা।

গত ২০২২ সালের মামলা নং – জিআর -৭৫, কালকিনি থানা এর সাজা স্বরুপ গত ১০/১২/২০২৩ ইং রিয়াজ ও সাব্বিরের ১ বছর ৫ মাস করে সাঁজা দেয় মাদারীপুর আদালত। এই মামলার একমাত্র নিরপেক্ষ স্বাক্ষী ছিলো শিবাই মন্ডল। স্বাক্ষী দেয়ার জন্য তাকে হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে, ড্যাগার দিয়ে কুপিয়ে আহত করে। ঐ ঘটনায় পুনরায় মামলা হয় যা এখনও চলমান। মামলা নং- জিআর-১২৮/২৩, কালকিনি থানা।  কিছুদিন পূর্বে ঘুষ দিয়ে আপিল করে জামিনে বের হয়।

স্থানীয়রা জানায়, ঝন্টু মণ্ডল পরিবার সহ পরিচিত, শুভাকাঙ্ক্ষী সকল হিন্দু পরিবার নৌকা সমর্থন করে। ঝন্টু মন্ডলের ছেলে উজ্জ্বল মন্ডল নৌকার এজেন্ট ছিল নয়াকান্দি প্রাইমারি সেন্টারে। ওই সেন্টারে পৌরসভার মধ্যে নৌকা সবচেয়ে বেশি ৭০৮ ভোট পায় আর ঈগল পায় ৮২০ ভোট। আনোয়ার কমিশনার তখন সতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থক ছিলো। নির্বাচনকে সামনে ফেলে এইবার নৌকা হেরে যাওয়ার ওজুহাতে পুরাতন ক্ষোভ পূরণ করলো, উজ্জ্বলের বাড়িঘর লুট করে, মা-বোনের গায়ে আঘাত, বোনকে তুলে নিয়ে যাওয়ার হুমকির পর বাবাকে পঙ্গু করে দিলো। উজ্জ্বল মন্ডলকে পেলে ওইদিন জবাই করতো বলে জানান প্রতিবেশীরা।

এ বিষয়ে এখন পর্যন্ত ভুক্তভোগী পরিবার কোন প্রশাসনিক ও আইনি সহায়তাও পাননি বলে জানান ঝন্টু মণ্ডলের স্ত্রী ঊর্মিলা মন্ডল। তিনি বলেন, ৮ জানুয়ারি সকালে এসে প্রথমে আমাকে আর আমার ১৪ বছরের মেয়েকে পেটায়। আনোয়ারের স্ত্রী রিক্তা বেগম আমার মেয়েকে তুলে নিয়ে যেতে যুবকদের নির্দেশ দিলে আমি আমার মেয়েকে রক্ষার্থে দৌঁড়ে পালিয়ে যাই। তখন মাঠের দিকে আমার স্বামীকে ধাওয়া করে। এরা আমাদের বাঁচতে দেবে না। আমাদের আশেপাশের সমস্ত হিন্দুদের এভাবেই মেরে তাড়িয়ে তাদের সমস্ত সম্পত্তি দখল করে এখন বিপুল সম্পত্তির মালিক আনোয়ার বেপারি। আমার আত্মীয় স্বজন পাড়া প্রতিবেশী কেউ ভয়ে আমাদের বাড়ি আসতে পারে না। এই কয়টা দিন আমি একা বাড়িতে থাকি। জানিনা কখন না জানি আমার উপর আক্রমণ হয়। আমি এখনো পর্যন্ত আমার আহত স্বামীর কাছে যেতে পারিনি। প্রাণের ঝুকি নিয়ে আমি একা একজন মহিলা এখন বাড়িতে আছি। পুলিশ, প্রসাশন সব আনোয়ারের কেনা। আমরা কি এর  কোন বিচার পাবো?

http://www.anandalokfoundation.com/