ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বড় হচ্ছে শিক্ষকদের আন্দোলন দীর্ঘমেয়াদে সেশনজটের আশঙ্কা

admin
September 9, 2015 9:46 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিনিধিঃ অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামো ও পদমর্যাদা নিশ্চিতকরণের জন্য শিক্ষকদের আন্দোলন বড় হতে যাচ্ছে। ৩৭টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের অভিন্ন এ আন্দোলন নিয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের ‘অবমাননাকর’ মন্তব্যের প্রেক্ষিতে ক্ষোভে ফুঁসছেন শিক্ষকরা। ইতোমধ্যেই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি দু’দিনের পূর্ণ কর্মবিরতির ডাক দিয়েছে।

শিক্ষকদের এ আন্দোলনের ফলে দীর্ঘমেয়াদে সেশনজট তৈরি হতে পারে আশঙ্কা করছেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। গত ১৪ মে থেকে অষ্টম বেতন কাঠামোয় অন্তর্ভূক্তি ও নিজেদের পদমর্যাদার বিষয়ে সুষ্পষ্ট ধারণার জন্য আন্দোলন শুরু করে ৩৭টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা। গত তিন রোববার তারা তিন ঘণ্টা করে কর্মবিরতিতে যান। মঙ্গলবার তারা পূর্ণদিবস কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেন। ওইদিনই সচিবালয়ে শিক্ষকদের আন্দোলন নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্দোলন কর্মসূচিকে ‘জ্ঞানের অভাবে আন্দোলন’ বলে মন্তব্য করেন।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, ‘দেশের সবচেয়ে শিক্ষিত জনগোষ্ঠী জ্ঞানের অভাবে আন্দোলন করছে। পে-কমিশন নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আন্দোলনের কোনো যৌক্তিকতা নেই। পে-কমিশনে কী রয়েছে তারা সেটা বুঝতেই পারেনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা সবাই প্রফেসর হতে চায়। শিক্ষকদের পদোন্নতিতে দুর্নীতির অভিযোগ এনে তিনি বলেন, ‘আন্দোলন বাদ দিয়ে তাদের (শিক্ষক) নিজেদের দুর্নীতি কমানোর দিকে বেশি নজর দেয়া উচিৎ। শিক্ষকদের প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রীর এ মন্তব্যকে ‘অনভিপ্রেত’ ও ‘অসংলগ্ন’ দাবি করেছে শিক্ষকদের আন্দোলনের সমন্বয়ের দায়িত্ব পালন করা সংগঠন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশন।

ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ ও মহাসচিব অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল স্বাক্ষরিত এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা পরিতাপের সঙ্গে লক্ষ্য করেছি যে, অর্থমন্ত্রী সংবাদ মাধ্যমে শিক্ষকদের বিষয়ে কিছু বিরূপ মন্তব্য করেছেন, যা শুধু অনভিপ্রেতই নয় অসংলগ্নও বটে। অর্থমন্ত্রী অতীতে অন্যদের ক্ষেত্রেও বিরূপ মন্তব্য করেছেন। এসবের মাধ্যমে তিনি জাতির কাছে নিজেকে ইতোমধ্যে হাস্যকর করে তুলেছেন। অর্থমন্ত্রীকে আমলাদের প্রতিনিধি আখ্যা দিয়ে শিক্ষক নেতারা বলেছেন, উচ্চশিক্ষার উৎকর্ষ সাধন ও প্রকৃত মানবসম্পদ সৃষ্টি এবং শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য শিক্ষকরা যে কোনো গঠনমূলক প্রস্তাব মেনে নেবেন। কিন্তু গণমাধ্যমে প্রচারিত মন্ত্রীর কথায় মনে হয়েছে, তিনি জনগণের প্রতিনিধি নন, আমলাদের প্রতিনিধি। সুতরাং তার কাছ থেকে শিক্ষকরা সুবিচার পাবেন বলে অমরা মনে করি না।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, শিক্ষকদের পদোন্নতি ঘিরে তিনি যখন দুর্নীতির কথা বলেন, অন্যদিকে হলমার্ক কেলেঙ্কারিকে তিনি কিছুই মনে করেন না এবং বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারি অত্যন্ত হালকাভাবে দেখেন, তখন তার মুখে অন্তত জাতি গঠনের কারিগর শিক্ষকদের বিষয়ে এরূপ অবাঞ্ছিত বক্তব্য নিতান্তই অশোভন। একে তো শিক্ষকরা অষ্টম বেতন কাঠামো নিয়ে অসন্তুষ্ট ছিলেন, ঠিক তখনই অর্থমন্ত্রীর মন্তব্য ‘আগুণে ঘৃতদান’- এর মতো হয়ে গেছে। অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদে ইতোমধ্যেই জাহাঙ্গীনগর ও জগন্নাথ বিশ্ববিশ্ববিদ্যালয় টানা দুই দিনের পূর্ণ দিবস কর্মবিরতিতে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মোহাম্মদ মাফরুহী সাত্তার বলেন, ‘আমাদের আন্দোলনকে কটাক্ষ করে অর্থমন্ত্রীর বক্তেব্যের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে শিক্ষক সমিতি। এই বক্তব্য প্রত্যাহার করে তাকে আমরা নিঃশর্ত ক্ষমার আহ্বান জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে তিনি তার বক্তব্য প্রত্যাহার না করলে তাকে মন্ত্রিসভা থেকে বরখাস্তের জন্যও সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি। স্বতন্ত্র বেতন স্কেল গঠন, উচ্চশিক্ষা কমিশন গঠনের পাশাপাশি অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের প্রতিবাদে বুধবার ও বৃহস্পতিবার পূর্ণ কর্মবিরতি ঘোষণা করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শিক্ষক সমিতি।মঙ্গলবার দুপুরে এক জরুরি সাধারণ সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

জবি শিক্ষক সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ড. মো. মনিরুজ্জামান বলেন, ‘অষ্টম বেতন স্কেল অনুমোদন নিয়ে শিক্ষকদের সাথে লুকোচুরি করা হয়েছে। শিক্ষকদের অবমাননা করে একটি দেশের শিক্ষাব্যবস্থা চলতে পারে না। অষ্টম বেতন কাঠামো অন্তর্ভূক্তি ও অর্থমন্ত্রীর মন্তব্যের প্রতিবাদে আগামী বুধবার ও বৃহস্পতিবার কোনো ধরনের ক্লাস বা পরীক্ষায় অংশ নেবেন না শিক্ষকরা। এছাড়া বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সব কর্মসূচি পালন করবেন জবি শিক্ষকরা।

প্রসঙ্গত, বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে দেশের ৩৭টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে ১৪ হাজার ৬৮৫ শিক্ষক কর্মরত আছেন। এর মধ্যে অধ্যাপক পদে রয়েছেন ৫ হাজারেরও ওপরে। বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাপকদের ২৫ শতাংশ সিলেকশন গ্রেড পান, এই হিসাবে তাদের সংখ্যা প্রায় ১ হাজার ২৫০।  ‘সিলেকশন গ্রেড’প্রাপ্ত অধ্যাপক হিসেবে তারা সরকারের সর্বোচ্চ বেতন স্কেলধারী হন। সপ্তম বেতন স্কেলে সিলেকশন গ্রেডপ্রাপ্ত অধ্যাপকের সংখ্যা ১ হাজার ২৫০। এই শিক্ষকরা সরকারের সচিব পদমর্যাদায় বেতন-ভাতা পেতেন। দুই বছর আগে ‘সিনিয়র সচিব’ পদ চালু করা হলে শিক্ষকরা এক ধাপ পিছিয়ে পড়েন। মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত অষ্টম জাতীয় বেতন স্কেল নিয়ে সচিব কমিটির করা সুপারিশে ‘পদায়িত সচিব’ ও ‘সচিব’ নামে পৃথক দু’টি স্কেল চালুর প্রস্তাব করা হয়েছে। এতে শিক্ষকরা দুই ধাপ পিছিয়ে পড়ছেন। সিলেকশন গ্রেডপ্রাপ্ত অধ্যাপকরা জাতীয় বেতন স্কেলে দুই ধাপ পিছিয়ে পড়লে ক্রমান্বয়ে অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক ও প্রভাষকরাও একইভাবে পিছিয়ে পড়বেন।

http://www.anandalokfoundation.com/