13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বেনাপোলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের গাফিলতিতে নবজাতকের মৃত্যু 

Link Copied!

বেনাপোলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও ডাক্তারের গাফিলতিতে  এক  গর্ভবতী নারীর ঠিক সময়ে সিজার না করায়  নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে।  ভুক্তভোগী নারী নাজমা খাতুন  বেনাপোল পৌর এলাকার মনির হোসেনের স্ত্রী।
শনিবার ( ৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বেনাপোলে নগর মাতৃসদন কেন্দ্র নামের একটি হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটেছে।
ভুক্তভোগী নারীর স্বামী মনির হোসেন জানান, গতকাল রাত ১০ টার সময়  তার গর্ভবতী স্ত্রী অসুস্থ হওয়ায় নগর মাতৃসদন কেন্দ্রে নিয়ে আসে। এসময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাদেরকে বলে  বাচ্চা সুস্থ আছে। শনিবার সকাল ৯ টার সময় সিজার করা হবে। পরে সকালে সিজার কখন করা হবে বলে  হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে জানতে চায়লে তারা বলে ডাক্তার আসলেই রুগীকে সিজার করা হবে। এসময়  হাসপাতালে  কর্তৃপক্ষের কাছে আরো বেশ কয়েকবার গেলে তারা বলেন ডাক্তার আসছে। পরে ডাক্তার দুপুর ১২ টার সময় হাসপাতালে এসে কয়েকজন রুগীকে চিকিৎসা দিয়ে তিনি সিজারের জন্য ওটিতে প্রবেশ করেন। পরবর্তীতে সিজার শেষে হওয়ার আধা ঘণ্টা পরে বলে নবজাতকটি মৃত হয়েছে।
তিনি আরো জানান, সকাল সাড়ে ১১ টার সময় ও তার বাচ্চা জীবিত ছিলো। কিন্তু ডাক্তার ঠিক সময় সিজার না করায় তার বাচ্চাটি মারা গিয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেন।
এদিকে নগর মাতৃসদন কেন্দ্র হাসপাতালে দায়িত্ব রতো প্রজেক্ট ম্যানেজার পলাশের কাছে বিষয়টি জানতে চায়লে তিনি ছুটিতে আছে।  এ বিষয়ে  কোন মন্তব্য করবে না বলে তিনি জাননা।
অভিযুক্ত ডাক্তার নাইমুল হাসান নাইম জানান, নগর মাতৃসদন কেন্দ্র থেকে তাকে সকাল সাড়ে ৯ টার সময় ফোন দিয়ে সিজারের বিষয়টি জানান। এসময় তিনি রুগীকে (Anesthetist) (এ্যানেসথেটিস) অজ্ঞান করানোর ডাক্তার না পাওয়া এবং তিনি দুরে থাকার কারনে হাসপাতালে আসতে তার সাড়ে ১১ টা বেজে যায়। পরবর্তীতে তিনি কয়েকটি রুগীকে চিকিৎসা দিয়ে সিজারের জন্য রুগীর কাছে গেলে দেখেন রুগীর অবস্থা খারাপ। এতে তিনি হাসপাতালে থাকা কর্তব্যরত চিকিৎসক   ও সেবিকাদের কাছে বাচ্চার বিষয়ে জানতে চায়লে তারা তাকে বলে কিছু সময় আগেও বাচ্চার পালর্স ও হার্ডবিট ঠিক ছিলো। এসময় তিনি দ্রুত ভুক্তভোগী নারীকে সিজার করেন এবং বাচ্চাটি পেটের মধ্যে মৃত পায় বলে তিনি জানান।
বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন  জাননা, এখনো পর্যন্ত কেউ কোনো অভিযোগ দেয়নি। তবে অভিযোগ দিলে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
http://www.anandalokfoundation.com/