ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বেতন বৃদ্ধির হারে ‘শুভঙ্করের ফাঁকি

admin
September 9, 2015 8:16 pm
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ সদ্য অনুমোদন পাওয়া অষ্টম বেতন কাঠামোতে ‘সিলেকশন গ্রেড’ ও ‘টাইম স্কেল’ বাদ দেওয়ার মাধ্যমে বৈষম্য বিলোপ করা হয়েছে বলে দাবি সরকারের। কিন্তু এই দু’টি সুযোগ যাদের পাওয়ার সম্ভাবনা ছিল তারা বলছেন, এটা শুভঙ্করের ফাঁকি।

অষ্টম বেতন কাঠামোকে সকল শ্রেণীর সরকারি চাকুরেরা স্বাগত জানালেও আপত্তি শুধু এই দু’টি বিষয়ে। সরকারি চাকরির প্রায় সবাই প্রথম চার বছরের মধ্যে সিলেকশন গ্রেড পেতেন। নিচের স্তরের ও ব্লকপদধারীরা (যাদের পদোন্নতির সুযোগ কম বা নেই) ৮, ১২ ও ১৫ বছরের মাথায় তিনটি টাইম স্কেল পেতেন। কিন্তু এখন এই সুবিধা দু’টি বাতিল করে প্রতি বছর সংশ্লিষ্ট গ্রেডে নির্দিষ্ট হারে বেতন বাড়ানোর নিয়ম করা হয়েছে।

গত সোমবার পাস হওয়া নতুন এই বেতন কাঠামো অনুযায়ী, নিচের স্তরের কর্মচারী ও ব্লকপদধারীরাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন বলে মত দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। নতুন নিয়ম অনুযায়ী ২০ থেকে ষষ্ঠ গ্রেড পর্যন্ত বেতন বৃদ্ধির হার হবে ৫ শতাংশ, পঞ্চম গ্রেডের ক্ষেত্রে হবে চার দশমিক পাঁচ শতাংশ, তৃতীয় ও চতুর্থ গ্রেডের ক্ষেত্রে চার শতাংশ, দ্বিতীয় গ্রেডের ক্ষেত্রে তিন দশমিক ৭৫ শতাংশ। প্রথম গ্রেডে কোনো বেতন বৃদ্ধি হবে না। ‘বিদ্যমান বেতন কাঠামো অনুযায়ী যে পরিমাণে বেতন বৃদ্ধি হচ্ছে বা হতো নতুন নিয়ম চালু করার পর তার চেয়ে বেশি বেতন বাড়বে। বৈষম্য কমবে এবং বিষয়টা সর্বজনীন হবে’— বলে মন্তব্য করেছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা। তবে এই বিষয়টি যে শুভঙ্করের ফাঁকি তা হিসাব করে দেখিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের একজন দ্বিতীয় শ্রেণীর কর্মকর্তা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই কর্মকর্তা জানান, নতুন পে-স্কেলের সাথে সিলেকশন গ্রেড থাকলে ১৬ হাজার টাকার (মূল বেতন) চাকরিতে যোগ দেওয়ার পর চার বছরের মাথায় প্রতি বছর ৯০০ টাকা হারে ইনক্রিমেন্টসহ আমার বেতন হতো ২৩ হাজার ৪৮০ টাকা। তিনি আরও বলেন, ‘নতুন পে-স্কেলে সিলেকশন গ্রেড তুলে দিয়ে ৫% হারে বেতন বাড়ানোর কারণে চার বছর পর আমার বেতন দাঁড়াবে ১৯ হাজার ২০০ টাকা। এই কর্মকর্তার দেওয়া হিসাব অনুযায়ী নতুন বেতন কাঠামোতে সিলেকশন গ্রেড না থাকায় তিনি ৪ হাজার ২৮০ টাকা কম পাচ্ছেন।

দ্বিতীয় শ্রেণীর এই কর্মকর্তার মতো তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণীসহ সকল শ্রেণীর ব্লকপদধারী চাকুরেদেরও একই অবস্থা। এই বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ব্লকপদে চাকরি করা আইন মন্ত্রণালয়ের লাইব্রেরিয়ান এ এম হান্নান বলেন, ব্লকপদধারীদের পদোন্নতির ব্যবস্থা করা হলে নতুন বেতন কাঠামো নিয়ে কোনো আপত্তি থাকত না। কারণ বাতিল হওয়া সুবিধা দু’টি আমাদের মতো পদোন্নতি বঞ্চিতদের সান্ত্বনার সম্বল ছিল। কিন্তু আমাদের পদোন্নতির ব্যবস্থা না করে যারা নিয়মিত পদোন্নতি পেয়ে সম্মান এবং আর্থিক সুযোগ লাভ করছেন তাদের সঙ্গে আমাদেরও যোগ করেছে সরকার। এতে সবাইকে সমান করা হয়েছে বলে আপাতদৃষ্টিতে মনে হলেও আমাদের পদোন্নতির সুযোগ যে তৈরি হয়নি তা বরাবরের মতোই ভুলে থাকছেন বা ঢেকে রাখছেন নীতিনির্ধারকরা। এই হিসাব-নিকাশের বিশ্লেষণ করে নিচের স্তরের চাকুরেরা গত মে মাসে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছিলেন। অর্থমন্ত্রী তাদের উত্থাপিত যুক্তি খতিয়ে দেখার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিলেন। কিন্তু বেতন কাঠামোতে সেই প্রতিশ্রুতির কোনো প্রতিফলন দেখছেন না সংশ্লিষ্টরা।

সচিবালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারী ঐক্য পরিষদ, এ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ অফিসার এ্যাসোসিয়েশন, পার্সোনাল অফিসার এ্যাসোসিয়েশন, কর্মচারী সংযুক্ত পরিষদের নেতারা আন্দোলনে যাবার জন্য এ সব এ্যাসোসিয়েশনের সদস্যদের চাপের মুখে রয়েছেন। জানতে চাইলে ঐক্য পরিষদের মহাসচিব মো. রুহুল আমিন বলেন, বেতম কাঠামো ঘোষণাই বড় কথা নয়। এর বাস্তবায়ন কীভাবে হবে সেই পথরেখা জানা জরুরী। তাই পরিপত্র জারির পর পরিষদে সিদ্ধান্ত নিয়ে আমাদের অবস্থান জানাব।

http://www.anandalokfoundation.com/