13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিদেশে পালানোর সময় পলাতক আসামি বাবলা গ্রেফতার

Link Copied!

বিদেশে পালানোর সময় একাধিক মামলার পলাতক আসামি বিপ্রজিত গুণ বাবলাকে (৪০) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ১২ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সকালে দেশ থেকে পালিয়ে যাওয়ার সময় হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে তিনি গ্রেফতার হন। বিপ্রজিৎ সিলেট মহানগরের মোগলাবাজার থানাধীন আলমপুর এলাকার রবিন্দ্র কুমার গুণের ছেলে। গ্রেপ্তারের পর তাকে সিলেটে আনার জন্য মোগলাবাজার থানা পুলিশের একটি টিম রাতেই ঢাকায় রওনা হয় বলে জানা গেছে।  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মোগলাবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা এস এম মাইনুল ইসলাম।

তিনি বলেন, বিপ্রজিৎ গুণ বাবলার বিরুদ্ধে অসংখ্য লোকের কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের মামলা রয়েছে। আমার থানায়ই ৫টি মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি বিপ্রজিৎ। তাই শাহজালাল বিমানবন্দর ইমিগ্রেশন পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর তাকে শুক্রবার সিলেটে আনা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিপ্রজিৎ গুণ বাবলা উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের নাম ভাঙিয়ে চলাফেরা করতেন। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে ওঠাবসা এবং সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে এবং নিজেকে বিরাট ব্যবসায়ী হিসেবে জাহির করে ব্যক্তি জীবনে এক চিকিৎসককে বিয়ে করেছেন।

তার ফাঁদে পা দিয়ে কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করে প্রতারিত উচ্চপদস্থ একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা, সচিব, অবসরপ্রাপ্ত ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তা, অসংখ্য চিকিৎসক, আইনজীবীসহ শত মানুষ। অনেককে পথের ফকির করেছেন বাবলা। এসব টাকা বিদেশে পাচার করার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে।

সিলেটের আদালতে ভুক্তভোগীদের করা কয়েক ডজন মামলা তার ওপর। এরমধ্যে ডজনের ওপর মামলায় আদালত থেকে পরোয়ানাভুক্ত হয়ে ফেরারি ছিলেন বিপ্রজিৎ।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, চা বাগানসহ বিভিন্ন ব্যবসায় বিনিয়োগের কথা বলে উচ্চপদস্থ লোকদের সঙ্গে চলাফেরা দেখিয়ে কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন বিপ্রজিৎ। তার টার্গেট ছিল ডাক্তার, ব্যবসায়ীসহ সমাজের উচ্চপদস্থ ব্যক্তিবর্গ।

প্রতারণার মাধ্যমে তার আত্মসাৎকৃত টাকার পরিমাণ ৩০-৪০ কোটি ছাড়িয়ে যাবে ধারণা করা হচ্ছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে. সাবেক অ্যাডিশনাল আইজিপি পদ মর্যাদার কর্মকর্তার কোটি টাকা, সিলেটের সাবেক এক পুলিশ কমিশনারের ৯০ লাখ টাকা, সাবেক এক সচিবের ১ কোটি ৪ লাখ টাকা ও সামরিক কর্মকর্তা ছাড়াও সিলেটের দুই ডজনের ওপর চিকিৎসক, আইনজীবী, পদস্থ পুলিশ কর্মকর্তা, এয়ারপোর্টের এভিয়েশন কর্মকর্তাসহ শতাধিক লোকের কোটি কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ বিপ্রজিৎ বাবলার বিরুদ্ধে। এছাড়া তার এলাকা আলমপুরের একাধিক লোককে ঠকিয়ে কোটি টাকার বেশি হাতিয়ে নিয়েছেন।

এসএমপির সাবেক কমিশনারের টাকা আত্মসাতের ঘটনায় ২০২১ সালে তাকে সিলেট মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে। তখন তার ভাই ও আয়কর আইনজীবী আরেক স্বজনের মাধ্যমে পাওনা ৯০ লাখের মধ্যে ২০ লাখ টাকা দিয়ে মুচলেকার মাধ্যমে ছুটে আসেন।
এরপর গা ঢাকা দিলে এসএমপির সাবেক ওই পুলিশ কর্মকর্তার টাকা উদ্ধার সম্ভব হয়নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক আয়কর আইনজীবী বলেন, ব্যবসায় বিনিয়োগের কথা বলে, বিপ্রজিৎ বাবলা ১৫ লাখ টাকা নিয়ে ফেরত দেননি। এ কারণে আদালতে তার বিরুদ্ধে এনআই অ্যাক্টের ৫টি মামলা করেন। এরমধ্যে ৩টি মামলা ওয়ারেন্ট তামিলের পর্যায়ে।

বিপ্রজিতের গ্রামের বাড়ি দক্ষিণ সুরমার আলমপুরের এক বাসিন্দা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, জায়গা দেওয়ার কথা বলে বিপ্রজিৎ ৩টি চেকের বিপরীতে তার ১ কোটি ২০ লাখ টাকা নিয়েছেন। এ ঘটনায় ৫টি মামলা করেছেন। এভাবে অসংখ্য লোক বিপ্রজিতের বিরুদ্ধে এনআই অ্যাক্টের মামলা করেছেন।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বিপ্রজিত গুণ বাবলা এমিরেটস এয়ারলাইন্সের (ইকে ৫৮৩) ফ্লাইট যোগে গোপনে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে দুবাই পালাতে চেয়েছিলেন। তার বিরুদ্ধে এসএমপির ৩ থানায় ৯টি মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। কোতোয়ালি সিআর ৩৩৭/২০২৩, ১৭২৪/২০২২ ও ৬৭০/২০২৩, মোগলাবাজার থানা সিআর ১৫৭/২০২৩,১৪৭/২০২৩ ও ১৪৮/২০২৩। এছাড়া দক্ষিণ সুরমা থানায় সিআর-১৫৭/২৩, ১৪৮/২৩ এবং ১৪৭/২০২৩ গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তামিলের জন্য রয়েছে।

http://www.anandalokfoundation.com/