ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিদেশি হত্যায় জামায়াত জড়িত

admin
October 7, 2015 9:52 am
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ বাংলাদেশে সম্প্রতি দুই বিদেশি হত্যাকাণ্ডে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি  গোষ্ঠী ইসলামিক  স্টেটের (আইএসের) নাম এলেও দুই ঘটনায় বাংলাদেশেরই রাজনৈতিক দল জামায়াতে ইসলামীর সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে বলে সন্দেহ করছে ভারতীয়  গোয়েন্দারা।

মঙ্গলবার টাইমস অফ ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ঢাকায় ইতালীয় নাগরিক চেজারে তাভেল্লা ও রংপুরে জাপানি কুনিও  হোশির হত্যায় আইএসের জড়িত থাকার কারণ খুঁজে পাচ্ছেন না গোয়েন্দারা।বরং যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে কয়েকজন নেতার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হওয়া এবং আরও কয়েকজনের দণ্ড কার্যকরের ক্ষেত্র প্রস্তুত হওয়ায় মরিয়া জামায়াতে ইসলামীর নেতৃত্ব বাংলাদেশের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করতেই এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা ভারতের গোয়েন্দাদের।তারা বলছেন, এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে আইএসের উপস্থিতির বিষয়ে পশ্চিমা বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করাটাই হতে পারে নেপথ্যের উদ্দেশ্য।দুই বিদেশি হত্যাকাণ্ডে বিএনপি-জামায়াতকে দিকে ইঙ্গত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য ইতোমধ্যে এসেছে।

বিএনপি সেই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে। জামায়াতে ইসলামীও এক বিবৃতিতে বলেছে, সরকারের ব্যর্থতা ঢাকতেই তাদের দোষারোপ করা হয়েছে।গত ২৮  সেপ্টেম্বর রাজধানীর গুলশানে গুলি চালিয়ে হত্যা করা হয় ইতালির এনজিওকর্মী চেজারে তাভেল্লাকে। সপ্তাহ না  পেরোতেই রংপুরে একই কায়দায় খুন করা হয় জাপানি নাগরিক কুনিও হোশিকে।টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে ভারতের এক  গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, সামনে জামায়াতে ইসলামীর আরও কয়েকজন শীর্ষ নেতাকে ফাঁসিতে ঝোলানো হতে পারে। এদের মধ্যে মৃত্যুদণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মতিউর রহমান নিজামীর আপিল শুনানির পর্যায়ে রয়েছে।

মনে হচ্ছে, পশ্চিমা বিশ্বের নজর কাড়তেই বিদেশিদের ওপর হামলা হয়েছে। তাছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে আইএসের উপস্থিতি প্রমাণ করাটাও একটা উদ্দেশ্য। জামায়াত নিজেদের জঙ্গিদের দিয়ে এসব কাজ করিয়ে তার দায় আইএসের ওপর চাপানোর চেষ্টা করতে পারে। এর মধ্যে দিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে পশ্চিমা বিশ্বের দৃষ্টি আকর্ষণ করা সম্ভব হবে এবং হাসিনা সরকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় অকার্যকর, তা প্রমাণ করার চেষ্টা হতে পারে।ভারতীয় গোয়েন্দা কর্মকর্তারা বলছেন, আইএসের মানুষ হত্যার পদ্ধতির সঙ্গে বাংলাদেশে দুই বিদেশি নাগরিক হত্যার সঙ্গে মেলে না। শিরশ্ছেদের মাধ্যমে মানুষ হত্যা এবং সেসব ভিডিও প্রচার করে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে ভীতি ছড়ানোর জন্য কুখ্যাত আইএস। কিন্তু বাংলাদেশে দুই বিদেশিকে হত্যা করা হয়েছে গুলি করে।

তাভেল্লা হত্যায় কাউকে আটক করা না হলেও কুনিও হত্যাকাণ্ডে বিএনপির দুই নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাংলাদেশের ঘটনার দিকে নজর রাখা ভারতের আরেকজন  গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, যাদের আটক করা হয়েছে, তারা হয়ত ঘটনার মূল নায়ক নয়, তবে এখনও অনুসন্ধান চলছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত এমন কোনো তথ্যপ্রমাণ পাওয়া যায়নি, যাতে এসব ঘটনায় আইএসের সংশ্লিষ্টতা প্রমাণ হয়।এখানে একটাই ব্যাখ্যা হতে পারে, আর তা হচ্ছে জামায়াত সংশ্লিষ্টতা, যারা হয়ত যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে নিজেদের শীর্ষনেতাদের বিচারে ক্ষুব্ধ হয়ে বিদেশি হত্যার মাধ্যমে হাসিনা সরকারকে বেকায়দায়  ফেলতে চায়।

জামায়াতের উদ্দেশ্য সম্পর্কে আরেক গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, আন্তর্জাতিক সমর্থন নিয়ে শক্ত অবস্থানে থাকা হাসিনা সরকারকে  পেছনে  ঠেলে দেওয়াটাও একটা উদ্দেশ্য হতে পারে।দেশটির শীর্ষ এক  গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেন, আগামীতে জামায়াতে ইসলামীর বেশ কয়েকজন শীর্ষ নেতার ফাঁসি কার্যকর হতে পারে। দলটির অন্যতম শীর্ষ  নেতা মতিউর রহমান নিজামীর আপিল শুনানি চলছে। ঠিক এই সময়েই বিদেশিদের ওপর এই হামলা পশ্চিমা দেশগুলোর দৃষ্টি আকর্ষণের জন্যই করা হতে পারে।ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, বিশ্বজুড়ে আইএস জঙ্গিরা তাদের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করছে। আর জঙ্গিদের দিয়ে জামায়াত এই হামলাগুলো করিয়ে তা আইএস করেছে বলে প্রচারণা চালাচ্ছে। তারা জানে যে, পশ্চিমারা অবিলম্বে এর নিন্দা করবে এবং শেখ হাসিনা সরকার যে নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ  সেটি প্রমাণে জামায়াত সক্ষম হবে।

ভারতের আরেক কর্মকর্তা বলেন,  গোয়েন্দা সংস্থা মনে করে, বাংলাদেশে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে আইএসের কর্মকাণ্ড মেলে না। শিকারের শিরচ্ছেদ ও ভিডিওচিত্র  তোলা আইএসের হত্যাকাণ্ডের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। কিন্তু বাংলাদেশে ঘটনা দুটিতে গুলি চালানো হয়েছে। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে কয়েকজনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে এখন পর্যন্ত আইএসের সঙ্গে তাঁদের কোনো সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি।ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, আটকরা হয়তো প্রকৃত অপরাধী নয়, কিন্তু অপরাধীদের ধরতে তদন্ত চলছে। এখন পর্যন্ত এমন কোনো সূত্র পাওয়া যায়নি, যা আইএসের দাবিকে সমর্থন করে।অন্য এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা টাইমস অব ইন্ডিয়াকে বলেন, একমাত্র যে ব্যাখ্যাটি পাওয়া যায় তা হলো, জামায়াত সংশ্লিষ্টতা। দলটি নিজ ভূমিতে বিদেশি হত্যার মাধ্যমে হাসিনা সরকারকে আঘাত করছে। এর কারণ হতে পারে হাসিনা সরকারকে  পেছনে  ফেলা। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে গ্রহণযোগ্যতার লক্ষ্যে দলটি কয়েক বছর ধরে নিজেদের কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণে রেখেছে।

http://www.anandalokfoundation.com/