13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বিএনপির বিরুদ্ধে ভ​য়াবহ মিথ্যাচার !

admin
October 24, 2017 5:13 pm
Link Copied!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ভারত যা চাইবে সব দেবে বিএনপি – এরকম একটি শিরোনামে অনলাইন পত্রিকা সময়ের কণ্ঠস্বর একটি নিউজ করেছে দেখলাম। যে পেইজ ফলো করে দেশের প্রায় দেড় কোটি ইউজার।এখন কথা হচ্ছে বিএনপি সুষমা স্বরাজের সাথে কি কি আলোচনা করবে তা কি সময়ের কন্ঠস্বরের সাথে আলাপ করেছে? যদি না করে থাকে তবে এইধরনের সংবাদ পরিবেশন করার পর বিএনপি এই কন্ঠস্বরের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছেনা কেন? সেই রিপোর্টটির রেফারেন্স ধরে বিএনপির বিরুদ্ধে দেশদ্রোহীতার অভিযোগ আনতে পারে যে কেউ। কেননা ভারত যা চাইবে তা দেবে বিএনপি এরকম কথা দেশদ্রোহিতার শামিল। আর যদি না বলে তবে বিএনপির উচিৎ ঐ পত্রিকার বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যাওয়া। এই ভয়াবহ মিথ্যাচারের জন্য দেশদ্রোহিতার মামলা করা।
ফেইসবুকের জনপ্রিয়তার যুগে এইসব অনলাইন পোর্টাল ফেইসবুক পেইজেই নিউজ পড়ে প্রচুর লোকজন। সুতরাং এগুলোকে একেবারে তুচ্ছরূপে গ্রহণ করা ঠিক নয় স্পেইশালি এই জাতিয় নিউজের ক্ষেত্রে। মনে রাখা দরকার যে এর পাঠক দশ মিলিওনের বেশি এবং এর মধ্যে খুব কম সংখ্যক পাঠক সংবাদটি যাচাই করবে আর বাকিরা তা বিশ্বাস করবে।

যেমন বিশ্বাস করে প্রচুুর সংখ্যক মানুুুষ যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সত্যিই নোবেল পেয়েছেন, যা আমরা ভিডিওতে দেখেছি। ভয়াবহ এই মিথ্যে বিশ্বাস করাতে লীগের মিশন ছিলো দেখবার মত। তারা প্রথমে নোবেলের শর্ট লিস্টে শেখ হাসিনা ওয়াজেদের নাম রয়েছে দিয়ে শুরু করে। লীগের বিভিন্ন পেইজ থেকে নানারকম চটকদার শিরোনাম দিয়ে ছড়ানো হয় এসব মিথ্যে। এরপর সেটিকে বিশ্বাসযোগ্য করে তুলতে পারে তারা কিছু লোকের কাছে। সুতরাং বিএনপি নিয়ে এই সংবাদ যা মুহূর্তেই চলে গিয়েছে এক কোটি পাঠকের কাছে তা মোটেও কম গুরুত্ব বহন করেনা।

আমার ধারণা বিএনপির খুবই কম ধারণা রয়েছে গুড পাবলিক রিলেশন্স, ইমেইজ বিল্ডিং কনসেপ্ট সম্পর্কে। যদি থাকতো তবে বিএনপির মিডিয়া উইং তাদের প্রেস উইং জানতো তাদের করণীয় কি। যেটি তাদের প্রতিপক্ষ আওয়ামীলীগ খুব ভালো করে জানে এবং সফল এক্ষেত্রে।আর একারণেই ‘আল্লাহ’র মাল আল্লায় নিয়ে গিয়েছে’ কিংবা ‘উই আর লুকিং ফর শত্রুজ’ এত বেশি চাউর হয়। এর চাইতে হাজার গুণ বেশি ফাউল মাউথ লীগারদের হাসান মাহমুদিয় কথাবার্তা অথবা ‘আটচল্লিশ ঘন্টার মধ্যে মাটির নিচ থেকে অপরাধী ধরে আনবো, তালা লাগিয়ে যাবেন, পিলার ধরে নাড়াচাড়া, বেডরুম পাহাড়া দেয়া যাবেনা ইত্যাদি কথা ততটা ধর্তব্য হয়না। এও শোনা গিয়েছে যে তারেক রহমানের নামে প্রোপাগান্ডা ছড়াতে তাদের একটি বিশেষ খাতই রয়েছে যাতে বিপুল পরিমাণ অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয়। যা প্রথমবার আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় এনে দিতে সহায়ক ভূমিকা রেখেছে।

অবশ্য বিএনপির জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে বিএনপির চাইতে আওয়ামীলীগই অধিক ভূমিকা পালন করছে আজকাল এবং প্রোপাগান্ডা মেশিনের দরকার পড়ছে না তাদের। এই কাজটি লীগ নিজেই করে দিচ্ছে। সম্প্রতি পেপ্যাল ইস্যুতে মন্ত্রী জুনায়েদ পলক এবং সজীব ওয়াজেদ জয়ের ন্যাচারালি ধরা খেয়ে যাওয়া তার প্রমাণ। এই খুল্লাম খুল্লা ধোঁকা দিয়ে জনগণকে বোকা বানানোর চেষ্টা বিবসন হয়ে পড়েছে সবার সামনে এবং নির্লজ্জের মত তবুও একই ঘ্যান ঘ্যান করে যাচ্ছেন উনারা। লোকেরা জবাবগুলো কি দিচ্ছে তা পরোয়া করছেননা উনারা।

পেপ্যাল আনবো বলেছি তো বলেছি। না আনলেও বলে যাবো যে এনেছি। এবং সাথে প্রচুর সংখ্যক ফলোয়ার সম্বলিত কিছু মোটিভেশনাল স্পীকার ভাড়া করে নিয়েছে একাজে যেন তরুণ প্রজন্মকে বশে রাখা যায় তাদের সাথে অসততা করেও, তাদেরকে ঠকিয়েও। এই হলো তাদের রাজনীতি। বলাকে গুরুত্ব দিয়ে থাকে। ধরা খেলেও বলে যেতে হবে। অন্তত মূর্খ কিছু লোকে তো বিশ্বাস করবে। আর সেই মূর্খ এবং আওয়ামী ক্ষমতার সরাসরি সুবিধাভোগী এইসব লোকেরাই তাদের রাজনীতির প্রাণ।
সুতরাং বিএনপির প্রোপাগান্ডা মেশিনের দরকার না পড়লেও তাদের বিরুদ্ধে প্রোপাগান্ডার ক্ষেত্রে শক্ত অবস্থান নেয়া দরকার। মিডিয়ায় তারা উইক এই দুর্বলতম দিকের দিকে দৃষ্টি দেয়া অত্যন্ত জরুরী বলে মনে করি।

http://www.anandalokfoundation.com/