13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পুলিশের সোর্স পরিচয়ে ওরা বেপরোয়া

Brinda Chowdhury
April 10, 2021 7:19 pm
Link Copied!

সোহরাব হোসেন: রাজধানীতে অপরাধমূলক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কথিত ‘সোর্স’রা। নগরীর প্রতিটি থানা এলাকায় ঐসব সোর্সদের দৌরাত্ম্য দিনকে দিন চরমে পৌঁছাচ্ছে। পুলিশের সঙ্গে সম্পর্ককে কাজে লাগিয়ে চাঁদাবাজি ও মাদক ব্যবসাসহ নানাপ্রকার অপরাধ করে চলেছে এসব সোর্সরা। অপরাধীরা সংশ্লিষ্ট থানায় পুলিশের সহযোগিতায় অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। এসব সোর্সদের কারণে অপরাধের শিকার হয়ে সাধারণ ভিক্টিমরা থানায় গিয়েও পুলিশের সহযোগিতা পাচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।
সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, তদন্ত, বিভিন্ন অপরাধের তথ্য ও অপরাধীদের শনাক্ত করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা অনেক সময় অপরাধমূলক মামলার আসামি অথবা কোনোভাবে পুলিশের সাথে পরিচিত ব্যক্তিদের সহযোগিতা নিয়ে থাকেন। এইসব সাধারণ মানুষকে ‘সোর্স’ বলা হয়ে থাকে। নিয়মিত তথ্যদাতারাই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের ‘সোর্স’। তবে ‘সোর্স’ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোনো সদস্য নয়। সাধারণ মানুষের মধ্য থেকেই তাদের বাছাই করা হয়।
অনুসন্ধানে জানা যায়, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা মাঝে মাঝে এক সময়ের অপরাধীদের সোর্স হিসেবে বাছাই করে সংশোধনের সুযোগ দেন। এ ছাড়া এলাকার নিম্নবিত্ত শ্রেণী-পেশার ব্যক্তিদেরও সোর্স হিসেবে বাছাই করা হয়। তারা অন্যান্য কাজের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সোর্স হিসেবে কাজ করে। এতে করে তারা বাড়তি আয়ও করে। কিন্তু এ সোর্সদের বেশির ভাগই আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নামে ক্ষমতা দেখিয়ে বিভিন্ন ধরনের অপরাধ কর্মকা- চালিয়ে আসছে এবং কেউ প্রতিবাদ করলে তাকে আটকের ভয় দেখাচ্ছে। কেবল তা-ই নয়, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে চলাফেরার কারণে তাদের অনৈতিক দাপটে সাধারণ মানুষজনকে থাকতে হচ্ছে আতঙ্কে।
কড়াইল বস্তিতে মাদক ব্যবসার মহাজন খ্যাত পুলিশের সোর্স মো. শহীদ, এক সময় তিনি গুলশান থানার সোর্স ও এসআই সোহেল রানার ড্রাইভার ছিলেন। ২০০৫ সালে বোমা, অন্যান্য বিস্ফোরক ও অস্ত্রসহ বনানী-২ এর হিন্দুপাড়ার বস্তি থেকে গ্রেফতার করা হয় সোর্স শহীদকে। পরে জেল থেকে সাজা খেটে বের হওয়ার পর থেকেই শহীদ পুলিশের সোর্স হিসেবে কাজ করতে থাকে। স্থানীয়দের অভিযোগ, বনানী থানা পুলিশের সোর্স শহীদ সিসি ক্যামেরা লাগিয়ে মাদক ব্যবসা করেন এবং বর্তমানে অপরাধ কর্মকান্ডে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। স্থানীয় সূএে জানা যায়, শহীদের কাছে অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র, হাতকড়া ও পুলিশের ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জাম দেখা যায়। অনেকেই তাকে পুলিশও মনে করেন।
সূত্র জানায়, গত ২১ জুলাই ২০২১ রাতে বাড্ডার গুদারাঘাট এলাকায় সামশুল আলম ও লিপন মিয়া নামে দুই ব্যক্তির পকেটে ৩৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট ঢুকিয়ে তাদের মাদক ব্যবসায়ী হিসেবে ফাঁসানোর চেষ্টা করেন দুই সোর্স সেলিম ও বিপ্লব। এ সময় উপস্থিত পুলিশের এসআই শুভঙ্কর রায় ও এএসআই এনামুল হক তাদের দুজনকে বাড্ডা থানায় নিয়ে যান। সামশুল আলম ও লিপন মিয়া পুলিশকে বোঝানোর চেষ্টা করেন তাদের পকেটে ইয়াবা ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। পরে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গুলশান বিভাগের উপকমিশনার সুদীপ কুমার চক্রবর্তীর নির্দেশে বিষয়টি তদন্ত করা হয়। নিরপেক্ষ তদন্তে দুজন মাদক ব্যবসায়ী নন বলে পুলিশ নিশ্চিত হয়। পরে পুলিশ ওই দুই সোর্সের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। দুই দারোগাকে এ ঘটনায় জড়িত অভিযোগে ক্লোজ করা হয়।
বিমানবন্দর রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় র‌্যাবের সোর্স হিসেবে পরিচিত আলম। রেললাইন এবং ট্রেন কেন্দ্রিক বিভিন্ন ধরনের অপরাধের সঙ্গে আলমের সম্পৃক্ততার অভিযোগ আছে। চলন্ত ট্রেনে ছিনতাই করে যাত্রীকে ফেলে দেয়ার একটি ঘটনায় কারাগারে ছিলেন আলম।
সোর্সের দৌরাত্ম এতই বেশি যে, গত ২০১৬ সালের ৩ ফ্রেব্রুয়ারি রাজধানীর শাহআলীতে চাঁদার দাবিতে প্রতিদ্বন্দ্বী মাদক বিক্রেতা (চায়ের ব্যবসার আড়ালে) বাবুল মাতুব্বরকে পুলিশের সামনেই পুড়িয়ে মারে পুলিশের সোর্স দেলোয়ার, আয়ুব আলী ও রবিনসহ কয়েকজন। এ ঘটনায় ৫ পুলিশ সদস্যকে বরখাস্ত করা হয়। প্রত্যাহার করা হয় থানার ওসিকেও।
পরবর্তীতে বাবুলের ছেলে রাজু জানান, সোর্স দেলোয়ারের হাতে সবসময় হাতকড়া দেখে তারা সবাই তাকে পুলিশই ভাবতেন।
ডিএমপি সূত্রে জানা গেছে, সোর্স নামধারী অপরাধীদের বিষয়ে প্রতিটি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের (ওসি) সতর্ক হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সদর দফতর থেকে।
http://www.anandalokfoundation.com/