ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পলিথিন ব্যাগের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযানের তারিখ পেছালো

admin
October 7, 2015 7:55 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ পলিথিন ও প্লাস্টিক ব্যাগের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান শুরুর তারখি পেছানো হয়েছে। আগামী ২৫ অক্টোবরের পরিবর্তে ১ ডিসেম্বর থেকে সারাদেশে এই অভিযান চালানো হবে। এ সময়ের মধ্যে সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডোরদের প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দিয়েছেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম। ধান, চাল, গম, ভুট্টা, সার ও চিনি এই ছয় ধরনের পণ্য মোড়কজাতে পাটের ব্যাগ ব্যবহার বাধ্যতামূলক করতে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহারে এই কড়াকড়ি আরোপ করা হয়।

বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বুধবার ধান-চাল প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বিপণনকারী ব্যবসায়ী সংগঠনসহ সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তাদের মতবিনিময় সমন্বয় সভায় প্রতিমন্ত্রী এ সব কথা বলেন। এ সময় বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব ফরিদ উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদসহ ব্যবসায়ী ও অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম বলেন, দেশের ব্যবসায়ী ও এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদের সুপরিশের পরিপ্রক্ষিতে আগের সময়সীমার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করা হয়েছে। তবে এ সময়ের পর পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন-২০১০ এর বাস্তবায়নের লক্ষে পলিথিন-প্লাস্টিক ব্যাগের বিরুদ্ধে ঘোষিত সাঁড়াশি অভিযান অব্যাহত থাকবে। তিনি বলেন, ‘পাটের বস্তার সাপ্লাই লাইন ঠিক রাখতে, বস্তার মূল্য নির্ধারণ, বস্তার আকার নির্ধারণ, কোন কোন এলাকায় কী পরিমাণ বস্তা প্রয়োজন তা ঠিক করতে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটি বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টায় এফবিসিসিআই ভবনে প্রথম বৈঠক করবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, কমিটিতে বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশন (বিজেএমসি), বাংলাদেশ জুট মিলস এ্যাসোসিয়েশন (বিজেএমএ), দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ড্রাস্ট্রি (এফবিসিসিআই) ও ধান-চাল প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বিপণনকারী ব্যবসায়ী সংগঠনের একজন করে প্রতিনিধি থাকবেন। এসব পাটের বস্তা বিতরণে একটি মনিটরিং দল থাকবে। পাট অধিদফতরের মহাপরিচালক তা তদারকি করবেন। এ কমিটিতেও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি থাকবেন। আর ছয় মাস পর পর বস্তার দাম পুনঃনির্ধারণ করা হবে।’ মির্জা আজম অরও বলেন, ‘১ ডিসেম্বর থেকে ছয়টি পণ্যে ব্যবহৃত পলিথিন-প্লাস্টিক ব্যাগের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে নয়। এটা দেশের পরিবেশ রক্ষার পক্ষে ও জনগণের স্বাস্থ্যঝুকির বিরুদ্ধেই করা হবে। তাই পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন-২০১০ এর কঠোর এবং শতভাগ বাস্তবায়নের লক্ষে ব্যাপক গণসচেতনতা সৃষ্টি ও জনসম্পৃক্ততা বৃদ্ধির প্রয়োজন।’ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় ধান, চাল, গম, ভূট্টা, সার ও চিনি নির্ধারিত এই ছয় ধরনের পণ্যের সাথে জড়িতদের নিয়ে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রণালয় ধারাবাহিক সমন্বয় সভা শুরু করেছে বলেও উল্লেখ করেন প্রতিমন্ত্রী। সমন্বয় সভায় এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি আব্দুল মাতলুব আহমাদ বলেন, পাটের বস্তা সরবরাহ মনিটরিং করবে এফবিসিসিআই। এছাড়া ব্যবসায়ীরা চার মাস আগেই জানিয়ে দেবেন কার কী পরিমাণ বস্তা লাগবে। এতে সরবরাহে ব্যাঘাত ঘটবে না। ব্যবসায়ীরা যাতে নগদ টাকায় বস্তা কিনতে পারেন সে জন্য পে-অর্ডারজাতীয় বিধি বিধান শিথিল করতে হবে। তবে নির্ধারিত এই ছয়টি পণ্যের ক্ষেত্রে বাধ্যতামূলক পাটের ব্যাগ ব্যবহারে সময় প্রয়োজন বলেও মন্তব্য করেন তিনি। সভায় ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে বলা হয়, শতভাগ পাটের বস্তার ব্যবহার চালু করতে সময় প্রয়োজন। আর এটা করা অনেকটা কষ্টসাধ্য। পাটের বস্তায় চাল দীর্ঘ দিন রাখলে তা নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। পলিথিন ও প্লাস্টিক ব্যাগের চেয়ে পাটের বস্তার দাম বেশি। এটা হ্যান্ডেলিং করা কঠিন। এসব বিষয় ছাড়া ব্যবসায়ীরা পাট ও পাটজাত পণ্য ব্যবহারকে উৎসাহিত করতে গিয়ে ধান-চাল প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বিপণনকারী ব্যবসায়ীদের উপর যাতে চড়াও না হন সে বিষয়টি লক্ষ রাখার দাবি জানানো হয়। সভায় ব্যবসায়ীদের মধ্যে অটো রাইস মিলস ওনার্স এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এ কে এম খোরশে আলম, নওগাঁ চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সহ-সভাপতি মো. নূরুল ইসলাম, অটো মেজর এন্ড হাস্কিং মিলস ওনার্স এসোসিয়েশনের সভাপতি মো. আব্দুর রশীদ, জুট মিলস এসোসিয়েশনের সভাপতি মো. শামসুদ্দোহাসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

http://www.anandalokfoundation.com/