13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

পত্নীতলায় সভাপতির বিরুদ্ধে নিয়োগ বাণিজ্যের অভিযোগ

Rai Kishori
August 30, 2019 3:42 pm
Link Copied!

মো. আবু সাঈদ, পত্নীতলা (নওগাঁ) প্রতিনিধি ঃ নওগাঁর পতœীতলা উপজেলার প্ইুয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী গ্রন্থাগারিক পদে নিয়োগের নামে অর্থ বানিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে সভাপতি দুলাল হোসেনের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার (২৯ আগষ্ট) সহকারী গ্রন্থাগারিক পদপ্রার্থী মোসা. ফিন্সি আক্তার জেলা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগের অনুলিপি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রেরণ করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পুইয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে একজন সহকারী গ্রন্থাগারিক পদের জন্য ২০১৮ সালের জুলাই দৈনিক করতোয়া পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তি অনুসারে কাঞ্চন গ্রামের নূরুল ইসলাম মেয়ে মোসা.ফেন্সি আক্তার ওই পদের জন্য আবেদন করেন। ফেন্সি আক্তারকে নিয়োগ দেওয়ার কথা বলে ২০১৮ সালের শুরুর দিকে ওই প্রতিষ্ঠানের সভাপতি দুলাল হোসেন ৫ লাখ টাকা গ্রহণ করেন। কিন্তু নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ১৫ দিন পর যাচাই-বাচায়ে ফেন্সি আক্তারের আবদেনটি বাতিল করা হয়। কমিটির এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে ৯আগষ্ট আদালতে মামলা করলে ওই নিয়োগ বাতিল হয়ে যায়। এখনো মামলা চলমান থাকলেও চলতি বছরের ৯ আগষ্ট একই পদের জন্য আবারও একটি পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর পুণরায় আবেদন করেন ফেন্সি আক্তারসহ ১১জন। গত ২৬ আগষ্ট যাচাই-বাছাই শেষে তাঁর আবেদনটি বাতিল করে দেন। কিন্তু সম্প্রতি রজনিকান্ত নামে আরেক প্রার্থীকে নিয়োগ দেওয়ার কথা বলে বিদ্যালয়ের সভাপতি ১০ লাখ নিয়েছেন। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি এখন রজনিকান্তকে নিয়োগ দেওয়ার জন্য সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

অভিযোগকারী মোসা.ফেন্সি আক্তার বলেন, বিদ্যালয়ে সহকারী গ্রন্থাগারিক পদে নিয়োগ দিবে বলে ৭ বছর ৩ মাস বেকার দিয়েছি। পরর্বতীতে সভাপতি আমার কাছ থেকে ৮ লাখ টাকা দাবি করে। তাঁর দাবি অনুসারে, সুদের উপর টাকা নিয়ে ৫লাখ টাকা ইতোমধ্যে দিয়েছি। কিন্তু এখন আমাকে নিয়োগ দেওয়াতো দূরের কথা আমার আদেনটিও বাতিল করে দিয়েছেন। আমার কাছ থেকে নেয়া ৫ লাখ টাকা এখনও ফেরত দেয়নি। মামলা চলমান থাকার পর অন্য লোককে নিয়োগ দেওয়ার পাঁয়তারা করছেন তিনি। এ ব্যাপারে পুইয়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মোস্তফা আলী মন্ডল বলেন, অভিযোগকারী আমাদের বিদ্যালয়ে ৭ বছর বিনা বেতনে চাকরি করেছেন সত্য। বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির তাকে নিয়োগ দেওয়া শর্তেই এতো বছর বেকার দিয়েছেন। তবে সভাপতি টাকা নিয়েছে কি না জনিনা। এবিষয়ে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি দুলাল হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সহকারী গ্রন্থাগারিক পদে নিয়োগ দেওয়ার কথা বলে আমি তার কাছে টাকা নেইনি। আমার নামে মিথ্যা অভিযোগ করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোসাহাক আলী বলেন, আমি অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে সভাপতির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবো। একই বিষয়ে পতœীতলা উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী অফিসার মোসা. সানজিদা সুলতানা বলেন, এবিয়য়ে তদন্ত করে দেখব।

http://www.anandalokfoundation.com/