13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে কালো টাকার বিনিময়ে ভোট কেনার অভিযোগে স্বতন্ত্র প্রার্থীর

Link Copied!

মাদারীপুর-৩ (সদরের ৫ ইউনিয়ন, কালকিনি ও ডাসার) আসনের আওয়ামী লীগের নৌকার প্রার্থী আবদুস সোবহান মিয়া গোলাপের বিরুদ্ধে কালো টাকার বিনিময়ে ভোট কেনার অভিযোগ তুলেছেন কালকিনি উপজেলা আওয়ামীলীগের ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী তাহমিনা বেগম।
আজ শুক্রবার সন্ধা সাড়ে ৫টায় দিকে কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে তিনি এই অভিযোগ করেন।
এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী তাহমিনা বেগম আরও বলেন, তিনি (গোলাপ) নিরুপায় হয়ে এখন তার কালো টাকা দিয়ে ভোট কেনা শুরু করেছে। এই নির্বাচনে তার বাজেট ১৩ কোটি টাকা।
এই ১৩ কোটির মধ্যে তিনি অর্ধেক খরচ করবেন ভোট কেনার জন্য আর অর্ধেক তিনি প্রশাসনকে ম্যানেজ করার জন্য তাদের পিছনে খরচ করবেন। সিভিল প্রশাসন, পুলিশ, আর্মি, বিজিবিসহ যারা রয়েছেন তাদের তিনি এই কালো টাকা দিয়ে ম্যানেজ করার একটি পরিকল্পনা করেছেন।
তাহমিনা বেগম আরও বলেন, গোলাপের কালো টাকার বিতরণ,খুন,ভোট পিটিয়ে দেয়া ও পুলিশকে বদলি এই রকম অনেক প্রমাণসহ আমরা নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছি। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য অভিযোগ দিলেও কমিশন তার (আবদুস সোবাহন গোলাপের) বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক কোন ধরনের ব্যবস্থা নেয়নি।
আবদুস সোবাহান গোলাপের বিরুদ্ধে আচারণ বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে সতন্ত্র প্রার্থী তাহমিনা বেগম বলেন, শুক্রবার সকালে পৌরসভার দক্ষিণ কৃষ্ণনগর গ্রামের নৌকার কর্মী শারমিন জাহান (হেলেনা), জামাল তালুকদার, জামাল সরদারসহ কিছু কর্মীরা টাকা বিতরণ করতেছিল। অবৈধভাবে নৌকার কর্মীরা ভোটারদের মধ্যে টাকা বিতরণ করায় আমাদের ঈগল প্রতীকের স্থানীয় কর্মীরা তাদের অবৈধ কর্মকান্ড বন্ধের জন্য অনুরোধ করেন। কিন্তু নৌকার কর্মীরা আমার ঈগল প্রতীকের কর্মীদের ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন। বাকবিতন্ডা শুরু করলে আমার কর্মীরা ঝামেলা না জড়িয়ে চলে যায়।
নৌকার প্রার্থী গোলাপের কর্মীদের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থীর নারী এজেন্ট শোভা আক্তারকে (৫০) কুপিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ তুলেছে তাহমিনা বেগম বলেন, শুক্রবার দুপুরে কালকিনি পৌরসভার দক্ষিণ ঠেঙ্গামারা গ্রামের ২ নং ওয়ার্ডের করিম হাওলাদারের স্ত্রী শোভা আক্তার। শোভা আক্তার দক্ষিণ ঠেঙ্গামারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে ঈগল প্রতীকের নির্বাচনে পোলিং এজেন্ট। শোভা আক্তারকে নৌকার কর্মী কাউন্সিলর অলিল হাওলাদারের নেতৃত্বে এক দল সন্ত্রাসী শোভার বাড়িতে ঢুকে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টা করেন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে কালকিনি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসকর প্রাথমিক চিকিৎসা হয়। এর তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বর্তমানে শোভা আক্তারের অবস্থা আশঙ্কাজনক। শোভা আক্তারকে জখমের পাশাপাশি ওই সময়ে সন্ত্রাসীরা দুটি বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।
  সতন্ত্র প্রার্থীকে হত্যার হুমকির কথা জনিয়ে তাহমিনা বেগম বলেন, আমার কর্মীদের পাশাপাশি আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। নৌকার প্রার্থী গোলাপ নির্বাচনের পরিবেশ অস্থিতিশীল করে নির্বাচন স্থগিত করার পায়তারা করছে। নির্বাচনের ভোট গ্রহণের আগের দিন বিভিন্ন এলাকায় বোমা হামলা,ভাঙচুর ও ত্রাসের  পরিকল্পনা আছে গোলাপের।
কালকিনি থানা পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে তাহমিনা বেগম বলেন, আমার কর্মী এসকেন্দার খাঁকে কুপিয়ে হত্যার অন্যতম আসামি লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ফজলুর হক ব্যাপারী। হত্যা মামলার এই আসামি নৌকার পক্ষে প্রকাশ্যে কাজ করলেও তাকে গ্রেফপ্তার করছে না।
তাহমিনা বেগম আরও বলেন, উপরোক্ত বিষয়ে আমরা রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অবহিত করে তাদের গ্রেফপ্তারের দাবি জানানো সত্ত্বেও তাদের বিরুদ্ধে কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি এবং তারা প্রকাশ্যেই নৌকার পক্ষে নির্বাচন করে যাচ্ছে। যা ভোটারদের মধ্যে নিরপেক্ষ ও অবাধ ভোট গ্রহণ নিয়ে সংশয়ের সৃষ্টি করছে।
এ সম্পর্কে জানতে চাইলে আবদুস সোবহান গোলাপ মুঠোফোনে দৈনিক কালের কন্ঠকে বলেন, এসব আজগুবি কথা তিনি (তাহমিনা বেগম) কোথা থেকে যে পায়।  তিনি নির্বাচরে শুরু থেকে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যাচার, ভিত্তিহীন, বানোয়াট কথা বলে যাচ্ছে। ১৩ কোটির টাকার এই হিসাব তিনি পেল কোথায় থেকে ।  প্রমাণ যানতে চান আপনারা (সাংবাদিকরা)। ওই মহিলা (তাহমিনা বেগম) মক্কায় হজ্ব করে এসে এমন সব মিথ্যা কথা মানায় না। আমি নই তিনি (তাহমিনা বেগম) নির্বাচনকে  প্রশ্নবিদ্ধ করতে এসব আজগুবি মিথ্যে কথা বলে বেড়াচ্ছে।
http://www.anandalokfoundation.com/