ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দেশব্যাপী ফের নাশকতার ছক জামায়াত-শিবিরের

admin
September 9, 2015 9:32 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিনিধিঃ নাশকতা চালিয়ে ফের দেশব্যাপী অস্থিরতা তৈরির চেষ্টা করছে জামায়াত-শিবির। ঈদের আগে বেতন-বোনাস বকেয়ার দাবি তুলে গার্মেন্টস সেক্টরে আন্দোলন উসকিয়ে দিয়ে নিজেরা রাজপথ দখলের ষড়যন্ত্র করে। বাধা দিলে বিচ্ছিন্নভাবে গুপ্ত হামলার পাশাপাশি জন সমাবেশে ভয়ঙ্কর বোমা হামলা চালানোর পরিকল্পনা ছিল জামায়াত শিবিরের। এ জন্য মুজদ করা হয় শক্তিশালী বোমা ও বিস্ফোরকদ্রব্য।

গত সোমবার পল্লবী থেকে গ্রেপ্তার জামায়াত ইসলামীর সাবেক সাংসদ মজিবুর রহমান ও মিয়া গোলাম পারওয়ারসহ ১৩ জনকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এমন তথ্য পেয়েছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। বিস্ফোরক আইনের মামলায় আদালতের নির্দেশে মঙ্গলবার তাদের তিন দিনের রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ১৩ জনকে গ্রেপ্তারের সময় উদ্ধার করা বোমাগুলোর মধ্যে ১১টি ছিল শক্তিশালী বোমা। বাকি নয়টি ককটেল বোমা। এগুলো নিষ্ক্রিয় করেছে ডিবির বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল। গ্রেপ্তার নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে পল্লবী থানায় দু’টি মামলা হয়েছে।

মামলার তদারক কর্মকর্তা, ডিবির উপ-কমিশনার (ডিসি-পশ্চিম) সাজ্জাদুর রহমান মঙ্গলবার বলেন, দীর্ঘদিন ধরে জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীদের প্রকাশ্য কর্মকান্ড চোখে পড়েনি। তবে তারা সরকারকে বিপদে ফেলতে গোপন তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে বলে গ্রেপ্তার হওয়া সাবেক দুই এমপিকে প্রাথমিক  জিজ্ঞাসাবাদে তথ্য পাওয়া গেছে। জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা গেছে, শুধু গার্মেন্টস সেক্টরে আন্দোলন উসকিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্রই নয়, দেশব্যাপী ফের নাশকতা চালিয়ে অস্থিরতা সৃষ্টির চেষ্টা করছে তারা। ১৩ জামায়াত নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করার পর উদ্ধার করা ২০ বোমার মধ্যে ১১টি খুবই শক্তিশালী। বাকি নয়টি ককটেল। সারাদেশেই জামায়াত-শিবিরের ঘাঁটিতে বিপুল বোমা, বিস্ফোরকদ্রব্য অস্ত্র মজুদ  থাকার তথ্য দিয়েছে গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা। এসব উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত আছে।

গত সোমবার দুপুরে পল্লবীতে জামায়াত নেতা হারুন আর রশিদের বাড়িতে গোপন বৈঠকের সময় অভিযান চালিয়ে জামায়াতের সাবেক দুই এমপিসহ ১৩ জনকে গ্রেপ্তারের পর তাদের রাতভর রাজধানীর মিন্টু রোডের ডিবি কার্যালয়ের রাখা হয়। এর মধ্যে দুই সাংসদকে আলাদা কক্ষে নিয়ে জিজ্ঞাবাদ করে গোয়েন্দারা। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা গোয়েন্দাদের জানায়, কোরবানির ঈদের আগে ঢাকা, সাভার, আশুলিয়ায় গার্মেন্টস শিল্পে অস্থিরতা সৃষ্টির পরিকল্পনা করেন তারা। এই কাজে শীর্ষ স্থানীয় কিছু গার্মেন্টস নেতা তাদের সহযোগিতা করছে। তাদের ছাত্র সংগঠন শিবিরের নেতাকমীদের সঙ্গে গার্মেন্টের শ্রমিকদের যোগাযোগ রয়েছে। বিশেষ করে যেসব গার্মেন্টে বেতন-বোনাস ঠিকমত দেয়া হবে না, সেসব গার্মেন্টের দিকে তাদের নজর রয়েছে।

ডিবি সূত্র জানায়, সম্প্রতি ২০ দলীয় জোটভুক্ত নেতাদের বৈঠক থেকে জামায়াত-শিবির কিছু বাড়তি এজেন্ডা পায়। দুই সাবেক এমপি গোয়েন্দাদের জানান, সরকারের বিরুদ্ধে ফের আন্দোলন জোরালো করে সফল হতে জামায়াত-শিবিরের বিকল্প নেই। রাজপথে ২০ দলীয় জোটের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ অন্যান্য কিছু ইসলামিক দল তাদের সহযোগিতা করবে। কোরবানির ঈদের আগে আন্দোলন জোরালো করা হবে। আন্দোলনের শুরুতে গার্মেন্টস কর্মীদের কাজে লাগানো হলেও মূল কাজটি করবে শিবিরের নেতাকর্মীরা। গার্মেন্টস কর্মীরা শুধু আন্দোলন শুরু করবে। এরপর ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতারা নির্ধারণ করবেন পরবর্তী কর্মসূচি। ঈদের পর এভাবে লাগাতার কর্মসূচি দেয়া হবে। এতে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী বাধা দিলে মজুদ করা বোমা ও অস্ত্র ক্যাডারদের হাতে তুলে দেয়া হবে। এভাবে দীর্ঘ পরিকল্পনা করে সারাদেশে মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীদের প্রস্তুত রাখা হয়েছে। শীর্ষ নেতারা দলীয় চাঁদা সংগ্রহ, নতুন কর্মী সংগ্রহ ও দাওয়াতি কার্যক্রমের মাধ্যমে সাংগঠনিক কর্মকান্ড সবল রাখছে। সেই সঙ্গে উগ্র-মৌলবাদি গোষ্ঠির নেতাকর্মীদের সঙ্গেও তাদের যোগাযোগ রয়েছে।

জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ও খুলনা-৬ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম পরওয়ার ও জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত নায়েবে আমির রাজশাহী ‘তানোর ও  গোদাগাড়ী’ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপক মুজিবুর রহমানকে আলাদাভাবে জিজ্ঞাসাবাদ অব্যাহত আছে বলে জানান গোয়েন্দারা। তাদের সঙ্গে গ্রেপ্তার হওয়া জামায়ত নেতা অধ্যাপক হারুন- অর-রশিদ, মোহাম্মদ তসলিম, জাহাঙ্গীর আলম, আবুল কালাম আজাদ, মনসুর রহমান, জাকির  হোসাইন, এ বি এম নুরুল্লাহ, আবুল হাশেম,  মোহাম্মদ সাব্বির, মজিবর রহমান ভূইয়া ও আশরাফুল আলম ইকবালও জামায়াতের মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মী। তাদের কাছ থেকে কুরিয়ারে চট্টগ্রাম অঞ্চল থেকে আসা ২৫টি লাঠি এবং জামায়াত-শিবিরের তিন  থেকে চারশ’ সদস্যের সংগঠনে চাঁদা দেয়ার রশিদ জব্দ করা হয়েছে। এ ছাড়া ২০ টি হাতবোমা ও বিপুল পরিমাণ জিহাদি বই উদ্ধার কার হয়।

ডিএমপির যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘গ্রেপ্তার হওয়া নেতাকর্মীরা সরকারকে বিপদে ফেলতে পল্লবীর বাসায় গোপন বৈঠক করে ষড়যন্ত্র করছিলেন। তাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহীতার মামলা করা হবে। ওই বাসা থেকে উদ্ধার করা বই ও নথিপত্রের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। প্রসঙ্গত, এ মামলা দু’টি ছাড়াও গোলাম পরওয়ারের বিরুদ্ধে রাজধানীতে ১২টি, মজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে ৪৫টি ও তসলিমের বিরুদ্ধে নাশকতার নয়টি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে ২০১২ সালের ৫ নভেম্বর মতিঝিল সিটি সেন্টারের সামনে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় সাবেক দুই এমপির বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া একটি মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ চলছে।

http://www.anandalokfoundation.com/