13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

দূর্নীতির শীর্ষে শরীয়তপুরের স্বাস্থ্য বিভাগ

admin
August 14, 2016 7:20 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিনিধিঃ শরীয়তপুরের স্বাস্থ্য বিভাগের প্রধান সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মসিউর রহমানের বিরুদ্ধে ব্যাপক দূর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। তার দূর্নীতি ও অনিমের কারণে জেলার স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত শরীয়তপুরবাসী। জেলার স্বাস্থ্য সেক্টরের প্রতিটি দপ্তরের অনিয়ম নিয়মে পরিনত করে টাকার পাহাড় গড়েছে।

গত ২০১৪ সালে শরীয়তপুরে সিভিল সার্জন পদে যোগদান করার পর থেকে ১শত শয্যার হাসপাতাল চলছে এ্যাম্বুলেন্স বিহীন। প্রশিক্ষণ ও পেষনে পাঠিয়ে ডাক্তারদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারেনি। স্বাস্থ্য বিভাগের স্টাফদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ। টিএ ডিএ বিলের অংশ থেকে পার্সেন্টিস নেয়া। স্বাস্থ্য উন্নয়নের প্রশিক্ষণের নামে অর্থ আত্মসাৎ। নিজে ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র পরিদর্শন না করে বিল তুলে নিচ্ছেন। স্টেশনে না থেকে সরকারি গাড়ি ব্যবহার করে নিজ জেলা মাদারীপুর শহরে গিয়ে রোগী দেখে অর্থ উপার্জন করেন।

স্বাস্থ্য বিভাগের অভিভাবকের দায়িত্ব পালন করলেও স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে ব্যার্থ হয়েছেন। বেসরকারি ক্লিনিক গুলো থেকে নবায়নের নামে অর্থ আদায়। সরকারি ঔষুধ ব্যবস্থাপনায় অনিয়ম করে ঔষুধ কোম্পানী গুলো থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়া। জেলা ও উপজেলার সরকারি প্রতিষ্ঠান গুলোর আধুনিক যন্ত্রপাতিকে বিকল রেখে বেসরকারি ক্লিনিক থেকে সুবিধা গ্রহণ করাসহ বিভিন্ন অপকর্মের হোতা সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ মসিউর রহমান। ঢাকার শহরে একাধিক ফ্লাট ও বাড়ির মালিক বনেগেছেন। ধর্ম কর্মের দিকেও পিছিয়ে নেই তিনবার হজ্জে গমণ সহ বিদেশও ভ্রমন করেছেন। কর্মস্থলে নিজ পরিবার থাকে না।

শরীয়তপুরের স্বাস্থ্য বিভাগের আতঙ্ক দূর্নীতিবাজ সিভিল সার্জন (সিএস) ডাঃ মোঃ মসিউর রহমান। নিজে কর্মস্থলে থাকে না তাই আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ও মেডিকেল অফিসারদের কর্মস্থলে রাখতেও পারে না। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র পরিদর্শন না করে অফিসে বসে বিল দেখিয়ে সরকারী টাকা আত্মসাত করে। সে সুযোগে পরিসংখ্যানবীদ ও টেকনিশিয়ানগণ ভিজিট না করে সিএসকে খুশি করে ভ্রমন বিল তুলে নেয় সিভিল সার্জন। বিভিন্ন প্রশিক্ষণে নাম মাত্র উপস্থিতি দেখিয়ে সরকারী পুরো টাকা আত্মসাৎ করা আবার প্রশিক্ষনের খরচ ব্যায় ধরে উপস্থিতিদের কাছ থেকে ৫০ শতাংশ টাকা রেখে দেওয়াও সিএস এর অভ্যাস।

সরকারি ও বেসরকারি ভাবে স্বাস্থ্য উন্নয়নে প্রশিক্ষনের নামে ৭৫ শতাংশ অর্থ আত্মসাৎ। সদর হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্ব নিয়ে অক্সিজেন বে-সরকারি ক্লিনিক ও হাসপাতালে বিক্রির অভিযোগ রয়েছে। তাছাড়াও হাসপাতাল নোংরা রাখা ও বৈদ্যতিক পাখা খারাপ রেখে রোগীদের বে-সরকারি ক্লিনিকে যেতে বাধ্য করে বেসরকারি ক্লিনিক থেকে সুবিধা নেয় সিএস। সরকারি ঔষুধ সঠিক সংরক্ষণ না করে ঔষুধের মেয়াদ থাকতেই ঔষধ অকেজো করে ঔষুধ কোম্পানীর কাছ থেকে সুবিধা নিয়ে বেসরকারি কোম্পানীর ঔষুধ লিখতে ডাক্তারদের বাধ্য করেন তিনি।

এক্স-রে টেকনিশিয়ানের পরিবর্তে এক্স-রে মেশিনে অদক্ষ লোক বসিয়ে এক্স-রে সার্ভিস বন্ধ রেখেও বেসরকারি ক্লিনিক থেকে সুবিধা নেয়ারও অভিযোগ রয়েছে সিএস’র বিরুদ্ধে। ঔষুধ কোম্পানীগুলো সিএস কে ব্যাপক সুবিধা দেয়ার কারণে ওষুধ কোম্পানীর প্রতিনিধিগণ বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। সকল সময় হাসপাতালে ডাক্তারদের কক্ষে বসে থাকে এবং তাদের নিজ কোম্পানীর ঔষুধ লিখতে ডাক্তারদের বাধ্য করে। সুবিধা নিয়ে ডাক্তারগণ তাদের ঔষধ লিখে কিনা তা নিশ্চিত করতে ভর্তি রোগীর চিকিৎসাপত্রের ছবি করে নেয় ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধিরা। ইউনিয়ন উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ডাক্তারদের সদর হাসপাতাল সহ বিভিন্ন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পেষনে বদলী দেখিয়েও ব্যাপক টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন সিএস। এতে করে সাধারণ রোগীরা চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

জেলার প্রতিটি বেসরকারি ক্লিনিক নবায়নের নামে ৫০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা অতিরিক্ত গ্রহন করে যার কোন রশিদ দেয়া হয় না। এ বিষয়ে সিএস’র অধিনস্থ কোন স্টাফ মুখ খুললে শো-কজ করা সহ অন্যত্র বদলী করে দেয়া হুমকি প্রদর্শন করে। সিএস’র নিজের আতœীয় বানিয়ে বিভিন্ন হারবাল মেডিকেলের মালিকগ পরিচয় দিয়ে প্রতারণা ব্যবসার সুযোগ করে দেন।

সদর হাসপাতালে সরকারি এ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা না রেখে বেসরকারি এ্যাম্বুলেন্স থেকে কমিশন নেন, তাই সরকারি এ্যাম্বুলেন্স চালক জয়নাল ও জাহাঙ্গীলকে সরকারি বেতন দিয়ে এ্যাম্বুলেন্স দালালীর সুযোগ করে দিয়েছেন। ভবনের মেরামত কাজের ম্যান্টেনেন্সের নামে প্রতি মাসে বিল তুলে নিচ্ছেন সিএস আর হাসপাতাল বাউন্ডারির ভিতর পরিস্কার রাখতেও প্রতিমাসে সরকারি ২০ হাজার টাকা তুলে নেন কিন্তু কোন কাজ করা হয় না।

সদর হাসপাতালের দুটি সরকারি কোয়াটার সিএস অফিসের প্রধান সহকারি গোলাম মোস্তফা ও সদর হাসপাতালের প্রধান সহকারি বজলুর রহমান দখল করে রেখেছন। বিভিন্ন খাবার হোটেল, রেস্টুরেন্ট ও বেকারী থেকে স্বাস্থ্য সনদের নামে প্রচুর পরিমান টাকা হাতিয়ে নেন সিএস। সিএস’র হাত থেকে সাধারণ মানুষও রক্ষা পায় না। এমন কি সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সীমানা প্রাচীরও সাবান কোম্পানীর কাছে ভাড়ায় দিয়ে টাকা নেয়ার অভিযোগ রয়েছে সিএস’র বিরুদ্ধে।

http://www.anandalokfoundation.com/