13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চট্টগ্রাম নগরীতে হুন্ডি ব্যবসা জমজমাট : রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে সরকার

admin
September 29, 2017 5:28 am
Link Copied!

রাজিব শর্মা, চট্টগ্রামঃ চট্টগ্রাম মহানগরীতে ও জেলাতে হুন্ডি ব্যবসায়ীরা সক্রিয় রয়েছে। দিনরাত অবৈধ এ হুন্ডি ব্যবসার মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকার লেনদেন হওয়ায় ব্যাংক ও সরকার লক্ষ লক্ষ টাকার রাজস্ব বা বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। মহানগীর আগ্রাবাদের একটি মার্কেটের পাশাপাশি হাজারী গলি, খাতুনগঞ্জ ও রেয়াজুদ্দিন বাজারের অবৈধ ডলার বিক্রয় কেন্দ্রগুলোতে এখন চাঙ্গা ভাব। বিভিন্ন মানি এক্সেঞ্জ প্রতিষ্ঠানে এখন প্রকাশ্যে নগদ ডলার বেচাকেনা চলছে।

এ সুযোগকে পুঁজি করে চট্টগ্রামে শতাধিক হুন্ডি ব্যবাসায়ী বেশ তৎপর হয়ে ওঠায় হুন্ডি ব্যবসা বেশ জমজমাট রয়েছে।এ বৃহত্ত সিন্ডিকেটের মাধ্যমে প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকা হাতবদল হয় বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।

সূত্র জানায়, নগরী ছাড়াও মধ্যপ্রাচ্যে বসবাসরত জেলার বাসিন্দারা হুন্ডির মাধ্যমে টাকা লেনদেন করে থাকে। হুন্ডি ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে টাকা পাঠানো ঝুঁকিপূর্ণ ও অবৈধ হওয়ার পরও একশ্রেণীর প্রবাসী দেশে টাকা পাঠানোর মাধ্যম হিসাবে হুন্ডি ব্যবসাকে সহজ মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করছে। যার ফলে প্রায় সময় হুন্ডি ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে পাঠানো প্রবাসীদের কষ্ঠার্জিত টাকা মার খাচ্ছে।

এদিকে চট্টগ্রামে হুন্ডি ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের সদস্য নুরুল কবির প্রকাশ হুন্ডি কবির দীর্ঘদিন থেকে হুন্ডি ব্যবসার সাথে জড়িত থেকে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। চট্টগ্রামের আন্দরকিল্লার প্যারাগন সিটি প্লাট নং ৩/এফ থেকে এসব হুন্ডির টাকা লেনদেন করে বলেন বিভিন্ন সূত্রে নিশ্চিত করেছেন। এই হুন্ডি ব্যবসায় তাকে সহযোগিতা করছেন তার স্ত্রী রিজিয়া বেগম প্রকাশ ইয়াবা বেগম।

সূত্র জানায়, মহানগরী ছাড়াও নিজ এলাকা লোহাগাড় উপজেলার পদুয়া ফরিয়েদের কুলেও নুরুল কবির ও রিজিয়ার হুন্ডি ব্যবসা অব্যহত রয়েছে। নুরুল কবির নিজেকে হাজী পরিচয় দিয়ে ইয়াবা ও হুন্ডি ব্যবসার করে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে গেছেন। তার ইয়াবা ও হুন্ডি ব্যবসার একটি বিরাট ধরনের সিন্ডিকেট রয়েছে। তার সিন্ডিকেন্ডের সদস্যদের মধ্যে লোহাড়াগাড়ার পদুয়ায় দায়িত্ব পালন করছেন মো. আলমগীর, সাতকানিয়ায় দায়িত্বে রয়েছেন নুরুল আজিম, চট্টগ্রাম মহানগরে নুরুল কবিরের স্ত্রী রিজিয়া বেগম, মো. শাহাজাহান, মো. আরাফাত।

সূত্রে জানা গেছে, নুরুল কবির পদুয়ায় কাঠ মিস্ত্রির কাজ করতো। হুন্ডি ব্যবসা করে অনেক কিছুর মালিক বনে গেছেন। রেয়াজউদ্দিন বাজার হাজী জানু ম্যানশন এর ২৪ নং দোকান, গাজী টাওয়ার ৭১ নং দোকান, হাজী ছালেহ ম্যানশন ৫২৯/২৯ নং দোকান, আমতলা সিডিএ মাকেট এর ১৬৩ নং দোকান নিজের এসব প্রতিষ্ঠান থেকে আইনশৃংলরা বাহিনীর চোখে ফাঁকি দিয়ে হুন্ডি ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে বলে একাধিক সূত্র নিশ্চিত করছে।

জানা গেছে, আন্দরকিল্লা ও রেয়াজউদ্দিন বাজার ইসলামী ব্যাংকে নুরুল কবির টাকা লেনদেন করে থাকেন। এছাড়া তার লক্ষ লক্ষ টাকার এফডিআর রয়েছে। পদুয়া বাজারে ৫টি দোকান, পদুয়া দীঘীর দিক্ষণ পাশে হিন্দুদের জায়গা জোরপূর্বক দখল করে স্থাপনা নির্মান, কেরানী হাট রোড়ে তিনটি মাইক্রোবাস রয়েছে। সংশ্লষ্টরা বলেছেন, হুন্ডি খুবই লাভজনক ব্যবসা। নুরুল কবির আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছেন। এক সময় অভাবের তাড়নায় কাঠমিস্ত্রি নুরুল কবিরের ছোট বোন কুনসুমা বেগমকে সাতদকানিয়ার সন্তানহীন আবদুল নবীর কাছে ৫০০ টাকার বিনিময় দত্তক দেয়া হয়েছিলো। যোগাযোগ করা হলে নুরুল কবির বলেন, আমার কষ্ঠার্জিত টাকা থেকে এত কিছু হয়েছে। তিনি হুন্ডি ব্যবসার সাথে জড়িত নয় বলে জানান।

হুন্ডি ব্যবসার সাথে সংশ্লিষ্টদের সূত্রে জানা যায়, চট্টগ্রাম প্রতিটি উপজেলায় প্রায় ২০-২৫ জন হুন্ডি ব্যবসায়ী রয়েছে। চট্টগ্রামের লোহাগাড়া, সাতকানিয়া, চন্দনাইশ, বাঁশখালী, আনোয়ারা, পটিয়া, বোয়ালখালীতে মধ্যেপ্রাচ্যের সৌদি আরব, আরব আমিরাত, কাতার, দুবাই, ওমান, কুয়েত, মালয়েশিয়া সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রায় লক্ষাধিক মানুষ বসবাস করে। যাদের অধিকাংশই বছরের অন্যান্য সময়ের তুলনায় দুই ঈদে পরিবার পরিজনের জন্য খরচের টাকা পাঠায় হুন্ডি ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে। গ্রহীতারা দ্রুত টাকা পাওয়া ও কমিশন কম কাটায় অনেক প্রবাসীরা তাদের কষ্ঠার্জিত টাকাগুলো ঝুঁকি নিয়ে অবৈধ হুন্ডি ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে তাদের পরিবার পরিজন ও আতœীয়সজনদের নিকট পাঠিয়ে থাকে। দেশে টাকা পাঠানোর মাধ্যম হিসাবে হুন্ডি ব্যবসায়ীদের দারস্থ হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ইসলামী ব্যাংক এর এক কর্মকর্তা জানান, হুন্ডি ব্যবাসায়ীদের মাধ্যমে টাকা পাটানো অবৈধ ও ব্যাপক ঝুঁকিপূর্ণ। এখন খুব সহজ, নিরাপদ ও স্বল্প সময়ের মধ্যে গ্রাহকদের কাছে টাকা পাটানোর উত্তম মাধ্যম হলো সরকারী বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংকগুলো। প্রবাসীদের কষ্ঠার্জিত টাকাগুলো নিরাপদে তাদের স্বজনদের কাছে পৌছাতে মাধ্যম হিসাবে ব্যাংকগুলোই অধিক ভাল। প্রবাসীদের উচিত হুন্ডি ব্যবসায়ীদের পরিহার করা।

http://www.anandalokfoundation.com/