13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

চট্টগ্রামে বস্তিগুলোই মাদকের স্বর্গরাজ্য

admin
September 4, 2017 7:31 pm
Link Copied!

রাজিব শর্মা,চট্টগ্রামঃ চট্টগ্রাম মহানগরীতে গড়ে ওঠা অবৈধ ৫০টি বস্তিতে মাদক ব্যবসায় চলছে। এসব ব্যবসায় নিয়ন্ত্রণ করছে নারী মাদক ব্যবসায়ীরা। প্রশাসনকে অনৈতিকভাবে ম্যানেজ করে চলছে তাদের ব্যবসায়। প্রশাসনের নিষ্ক্রিয়তায় বস্তিগুলো এখন মাদকব্যবসায়ীদের স্বর্গরাজ্য। এসব বস্তিতে প্রতিদিন বিকিকিনি হয় লাখ লাখ টাকার মাদক ও নেশাজাতীয় দ্রব্য। বস্তিকেন্দ্রিক গড়ে ওঠা এসব মাদকের আখড়ায় গাঁজা, ফেনসিডিল, ইয়াবা, চোলাইমদসহ হরেক রকম মাদক বিক্রি ও সেবনের পাশাপাশি বাড়ছে অপরাধও।

চট্টগ্রাম নগরে মাদক ব্যবসায় প্রসঙ্গে উপপুলিশ কমিশনার (ডিবি) দি ক্রাইমকে জানান, ‘দেশের প্রায় জায়গায় বস্তিকেন্দ্রিক মাদক ব্যবসায় হয়। চট্টগ্রামেও আছে। তবে সিএমপির একটি বিশেষ টিম মাদকবাণিজ্য বন্ধে কাজ করছে। তারা প্রায় সময় মাদক ব্যবসায়ী ও সেবীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসছে।’
ক্রাইমের অনুসন্ধানে জানা গেছে, মাদক বিক্রির স্বর্গরাজ্যখ্যাত বস্তিগুলোর মধ্যে নগরের বিআরটিসি বয়লার এভিনিউ, চৌদ্দজামতল, ষোলশহর রেলস্টেশন, চাঁন্দগাঁও থানাধীন মোহরা কাপ্তাই রাস্তার মোড়ের এ কে খান গার্মেন্টস সংলগ্ন একাধিক বস্তি, ২ নম্বর গেট রেললাইনের পাশে গড়ে ওঠা বস্তি, বন্দর টিলা, বায়েজিদ বোস্তামী, বাকলিয়া বগারবিল বস্তি, বাকলিয়া মিয়াখান নগর বস্তি, বাকলিয়া তুলাতলি বস্তি, বউবাজার বস্তি, ছোটপুল বস্তি, পতেঙ্গা বিচ, পলোগ্রাউন্ড রেলওয়ে বস্তি অন্যতম।

বস্তিগুলোতে মাদক ব্যবসায়ীদের নিজস্ব কিছু বাহিনী রয়েছে। সে কারণে তাদের বিরুদ্ধে কিছু করতে সাধারণ মানুষ সাহস করে না। এসব মাদক ব্যবসায়ীর সাথে পুলিশ ও মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের কিছু কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সখ্য রয়েছে। র‌্যাপিড় অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-র‌্যাব প্রায় সময় মাদকদ্রব্য উদ্ধার করলেও আসামি গ্রেফতারে তেমন সাফল্য নেই।

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, বয়লার এভিনিউয়ে ইদ্দার ভাই নবী মিঞা, বাবুলের স্ত্রী হিরণী, ইদুর বোন সাহাবুদ্দিনের স্ত্রী হিরুণী, পুলিশের সোর্স আবদুল জলিলের মেয়ে আলো, দীপ্তি বেগম, আলো আক্তার, মদ ব্যবসায়ী নিলুনী, পুলিশের সোর্স শাহাজাহানের স্ত্রী সীমা বেগম মাদক বিকিকিনি করে আসছে। এ ছাড়া চার স্বামী সংসার করার অভিজ্ঞ রহিমা বেগমও রয়েছে। এদের ৫০ জনের একটি মহিলা কর্মীবাহিনী রয়েছে। বয়লার এভিনিউ ছাড়াও মসজিদ কোলোনির মুখ, রেল কলোনি, চৌদ্দ জামতলা মসজিদের গলি, বটতলী স্টেশনে ব্যবসার বিচরণ বলে স্থানীয়রা জানান। নগরের বিআরটিসি বয়লার এভিনিউ, চৌদ্দজামতল, বরিশাল কলোনিসহ কয়েকটি বস্তি থেকে মাদক সরবরাহ করা হয়। স্থানীয়রা জানান, বিআরটিসি বয়লার এভিনিউ ইউনুসের পুত্র ইদু মিয়া প্রকাশ হাতকাটা ইদ্দা মাদক সম্রাট হিসেবে পরিচিত। প্রতিনিয়ত মাদক ক্রেতারা তার কাছ থেকে নগদ ও বাকিতে বিভিন্ন ধরনের মাদক সংগ্রহ করে। এক সময় র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হলেও জমিনে এসে চালিয়ে যাচ্ছে মাদক ব্যবসায়।
মাদকদ্রব্য উদ্ধার ও মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার প্রসঙ্গে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতর চট্টগ্রাম মেট্্েরা: উপ-অঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক দি ক্রাইমকে বলেন, তাদের নিয়মিত অভিযান অব্যাহত রয়েছে। তিনি জানান, গত চার মাসে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের চট্টগ্রামের তিনটি শাখায় ১৮৯টি মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ওইসব এলাকা থেকে ১৬৭ জনকে অর্থদণ্ড ও কারাদণ্ড দিয়েছেন।
স্থানীয়রা জানান, বয়লার এভিনিউয়ে বাদলের স্ত্রী মাদক সম্রাজ্ঞী রহিমা বস্তিতে মাদক বিকিকিনি করলেও স্থায়ীভাবে বাস করে মইত্যার পুল পট বাড়িতে। ভঙ্গিশাহ মাজার থেকে কদমতলী রেলগেট, সিআরবিতে তার নিয়ন্ত্রণে ৩০ জন পুরুষ-মহিলা মাদক বিক্রির কর্মী রয়েছে। এ ছাড়া তার রয়েছে সন্ত্রাসী বাহিনী। বরিশাল কলোনি ভেঙে দেয়ার পর এখানে এসে সে আস্তানা গড়ে তোলে। এ ছাড়া এখানে আবু তাহেরের স্ত্রী নিলু বেগম নিয়মিত চোলাইমদ বিক্রি করে থাকে। এ দিকে চৌদ্দজামতল মাদক সম্রাট বাদশা একক মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করলেও বর্তমানে তার মা এ ব্যবসায় পরিচালনা করে আসছে। পারিবারিক ঐতিহ্য টিকিয়ে রাখতে মাদক ব্যবসায় চালিয়ে আসছে বলে সে জানায়।
এ দিকে চৌদ্দজামতলা ফেনসিডিল হেরোইন ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করছে জালাল আহমদের ছেলে মো: জসিম, অস্ত্রধারী সুরুজ, রাজুসহ ২৫ জনের একটি গ্র“প। কেউ কোনো প্রতিবাদ করলে অস্ত্র দেখিয়ে হুমকি দেয় বলে স্থানীয়দের অভিযোগ রয়েছে। এ ছাড়া জামতলায় ইয়াবা বিক্রি করে আসছে গাঁজা ব্যবসায়ী অজিউল্লাহর ছেলে আফছার, আফজাল, ইয়াবা ব্যবসায়ী ইসহাকের স্ত্রী রোকেয়া বেগম, গাঁজা ব্যবসায়ী ফারুকের স্ত্রী নুনি বেগম, লাইলী বগম, আবদুর রহমানের ছেলে আনোয়ারসহ ২০ জনের একটি গ্র“প।
এ দিকে আবদুর রব কলোনি ইয়াবা বিক্রিতে হাসানের স্ত্রী নুরজাহান, মোটা কামালের স্ত্রী কদুনী বেগম, এক বাসচালকের স্ত্রী মোমেনা বেগমসহ ১৬ জনের গ্র“প সক্রিয় রয়েছে। এখানে ইয়াবা ছাড়াও গাঁজা ও ফেনসিডিল বিক্রি করে আসছে মৃত বাদশা মিয়ার ছেলে ফয়সাল, অজিউল্লাহর ছেলে আকতার হোসেন, গাঁজা ব্যবসায়ী অজিউল্লাহর স্ত্রী মনেকা বেগম, মৃত বাবুল মিয়ার স্ত্রী নুর জাহান, ছালে আহমদের স্ত্রী পেয়ারা বেগম, আনোয়ারের স্ত্রী পাখি, মতলব সওদাগরের স্ত্রী মরিয়ম বেগম, মতলব সওদাগরের মেয়ে বানু বেগম, সুজনের স্ত্রী শুকতারা, নুর মিয়ার পুত্র সুজন, নাছির। এদের গ্র“পে প্রায় ৪০ জন সদস্য রয়েছে।

চৌদ্দজামতলে মোছাম্মৎ মনেকা বেগম তার স্বামী এবং ছেলে আবছার ও আকতারকে নিয়ে প্রতিনিয়ত গ্রাহকের কাছে মাদক তুলে দিচ্ছে। এ ছাড়া মদ ব্যবসায়ী নুর নাহার বেগমও এখানে মাদক ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। বালুরঘাট এলাকায় ওপেন মাদক বিকিকিনি হয়। এ দিকে চাঁন্দগাঁও থানাধীন মোহরা কাপ্তাই রাস্তার মাথার এ কে খান গার্মেন্টসংলগ্ন বস্তিগুলো এখন মাদকের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। প্রতিদিন বস্তিগুলোতে লাখ টাকার মাদক বিক্রি হলেও সংশ্লিষ্ট প্রশাসন নির্বিকার। তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে, মোহরার বিভিন্ন স্পটে একাধিক মাদক বিক্রেতা সক্রিয় থাকলেও উপরোক্ত বস্তির রৌশন আরা একক আধিপত্য বিস্তার করে মাদক ব্যবসা চালাচ্ছে বছরের পর বছর। প্রশাসনের একাধিক কর্মকর্তা রৌশন আরার মাদককের আখড়ায় নিয়মিত যাতায়াত করে আসছে। স্থানীয়রা জানান, সংশ্লিষ্টদের নিয়মিত মাসোয়ারা দেয় বলে রৌশন কোনো বাধা ছাড়াই হেরোইন বিক্রি করে আঙুল ফুলে কলাগাছ বনে গেছে। এ ছাড়া ষোলশহর রেলস্টেশন, ২ নম্বর রেললাইনের পাশে গড়ে ওঠা বস্তি, তুলাতলী, বন্দর টিলা, বায়েজিদ বোস্তামী, ছোট পুলসহ নগরীর অর্ধশত বস্তি এখন মাদকের আখড়ায় পরিণত হয়েছে। প্রতিদিন এসব বস্তিতে প্রায় তিন কোটি টাকার মাদক বিক্রি হয়।

http://www.anandalokfoundation.com/