13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কোম্পানীগঞ্জ খাদ্য গুদামে সিন্ডিকেট করে ধান ক্রয় বঞ্চিত সাধারণ কৃষক

Link Copied!

সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে চলতি বছর বোরো মৌসুমে কৃষকদের পরিবর্তে পাথর ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ধান ক্রয় করে সরকারি খাদ্য গুদামে তোলার অভিযোগ উঠেছে। জানা যায়, সরকারি গুদামের কর্মকর্তাদের যোগসাজশে গড়ে উঠেছে একটি সিন্ডিকেট। এতে বঞ্চিত হচ্ছেন সাধারণ কৃষকেরা। দীর্ঘদিন ধরে এ অবস্থা চললেও সিন্ডিকেটের সবাই ছিলেন ধরাছোঁয়ার বাইরে।

সম্প্রতি রোববার (২৬ মে) এই সিন্ডিকেটের সকল তথ্য বেরিয়ে আসে। সেই সঙ্গে উপজেলা খাদ্য গুদামের কর্মকর্তাদের যোগসাজেশ ও অনিয়মের বিষয়টি আলোচনায় ওঠে আসে।

পরে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অভিযান চালিয়ে সিন্ডিকেটের মূল হোতা পাথর ব্যবসায়ী আব্দুল আলীর গোডাউন থেকে সরকারি বস্তাভর্তি ধান ও সরকারের সীলযুক্ত খালি বস্তা জব্দ করেন। এ ঘটনায় উপজেলা প্রশাসন তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এছাড়া সিলেট জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় থেকে চার সদস্য বিশিষ্ট আরেকটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সরকারি খাদ্য গুদামে ধান সংগ্রহের জন্য ৩৪৫ জন কৃষক নির্বাচিত করা হয়েছে। তাঁদের কাছ থেকে প্রতিমণ ধান ১ হাজার ২৮০ টাকা দরে ক্রয় করা হচ্ছে।

তবে কৃষকদের অভিযোগ, কোম্পানীগঞ্জের থানা বাজার এলাকার ব্যবসায়ী আব্দুল আলী ও খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়ার যোগসাজশে একটি সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। এই সিন্ডিকেটের বাইরের কোনো কৃষকের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ না করে কেবল আব্দুল আলীর কাছ থেকে ধান ক্রয় করছিলেন গোলাম কিবরিয়া। এতে তালিকায় থাকা অন্য কৃষকরা ধান সরবরাহ করার সুযোগ পাচ্ছিলেন না।

কৃষকরা জানান, কোম্পানীগঞ্জ খাদ্য গুদামের কর্তাদের সাথে থানা বাজারের পাথর ব্যবসায়ী আব্দুল আলী একটি সিন্ডিকেট তৈরি করেছেন। আব্দুল আলীর গোডাউনে হাজার হাজার সরকারি বস্তা আগেই পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে বস্তা ভরে গাড়িতে করে নিয়ে ওজন ছাড়াই খাদ্য গুদামে ঢোকানো হয়।
তারা জানান, গত দুই সপ্তাহ ধরে প্রকৃত কৃষকরা ধান সরবরাহ করার জন্য সিরিয়াল পাচ্ছেন না। অথচ আব্দুল আলী সিন্ডিকেটের ধান ভেজা অবস্থায়ও গুদামে ঢুকানো হচ্ছে। অভিযোগ উঠেছে, গোলাম কিবরিয়া ২ হাজার টাকার বিনিময়ে প্রতি কার্ডধারীর কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করে থাকেন।

এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে রোববার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অভিযান চালিয়ে আব্দুল আলীর ৩টি গোডাউনে থাকা সরকারি বস্তাভর্তি ধান ও সরকারের সীলযুক্ত খালি বস্তা জব্দ করেন। এসময় গোডাউন তালা দেন ইউএনও। পরে তিনি ঘটনা তদন্তে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি কমিটি গঠন। অন্যদিকে, সিলেট জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় থেকে চার সদস্য বিশিষ্ট আরেকটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে আব্দুল আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেন, তাঁর পাথরের ব্যবসা রয়েছে। ধান চাল নিয়ে কোনো সিন্ডিকেট নেই। খাদ্য গুদামে তাঁর তিন ভাই ধান সরবরাহ করেন। তাঁরা তিনজনই কার্ডধারী। এসবের সঙ্গে তিনি জড়িত না। সরকারি খাদ্য গুদামে আমি ধান সরবরাহ করি না। আমি চুনাপাথরের ব্যবসা করি। আমাদের ক্ষেতের ধান আমার তিন ভাই গুদামে বিক্রি করেন। তারা তিনজনই কার্ডধারী। ইউএনও গতকালকে (রোববার) এসেছিলেন। আমি সরকারি বস্তা ক্রয় করার কাগজপত্র দেখিয়েছি।

একই পরিবারের তিন ভাই কীভাবে কার্ড পেলেন এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটা উপজেলা কৃষি অফিস নির্বাচিত করেছে। তিনি বলেন, কিছু মানুষের আক্রোশ রয়েছে আমার উপর। এজন্য এসব করা হচ্ছে।
এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মনোজ কান্তি দাস চৌধুরী বলেন, উপজেলা কৃষি অফিস কৃষকের তালিকা তৈরি করে দিয়েছে। এই তালিকাধারীদের কাছ থেকে ধান কেনা হচ্ছে। বাইরের কেউ ধান সরবরাহের সুযোগ নেই।

তিনি বলেন, খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কীভাবে ধান সংগ্রহ করছেন সেটা আমার জানা নেই। কিন্তু আমি পরিদর্শনে গিয়ে কিছু অসংগতি পাওয়ায় ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি। রোববার এ ঘটনার পর জেলা নিয়ন্ত্রকের দপ্তর থেকে চার সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
একই পরিবারের তিন ভাই কীভাবে কার্ড পেলেন এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আব্দুল মতিন বলেন, উপজেলার কতজন কৃষক ধান সরবরাহ করতে ইচ্ছুক সেটার একটা তালিকা করে আমরা খাদ্য গুদামে প্রেরণ করি। তারা যাচাই বাছাই করে ঠিক করবে কাদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ করা হবে। কিন্তু তালিকা কে করলো সেটার চেয়ে এখন বড় কথা হলো সরকারি বস্তা অন্য একজন ব্যক্তির গোডাউনে গেল কীভাবে। এটা তদন্ত করা উচিত।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুনজিত কুমার চন্দ বলেন, রোববার বিকালে ৩টি গোডাউন তল্লাশী করে সরকারি বস্তাভর্তি ধান পাওয়া গেছে। এসময় সরকারি বস্তা ও ধান জব্দ করা হয়েছে। এ ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটিকে তিনদিনের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। কাগজপত্র দেখাতে না পারলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

http://www.anandalokfoundation.com/