13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কালকিনিতে গরু চুরির ঘটনার ব্যাবস্থা নিতে চোর পুলিশের খেলা,অভিযোগকারীকে হত্যার হুমকি

Link Copied!

মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার সাহেবরামপুর ইউনিয়নের ক্রোকিরচর গ্রামের আলমগীর বেপারীর(৫৫) গোয়াল ঘর থেকে. ৪ টি গরু চুরি হয় গত ১৬ জানুয়ারি রাতে। এ  ঘটনায় কালকিনি থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগী আলমগীর বেপারী।
অন্যদিকে ২২ জানুয়ারি রাতে কয়ারিয়া ইউনিয়নের চর আলিমাবাদ গ্রামের বিউটি বেগমের(৫০) একটি গাভিন গাই চুরি হয়। সে ঘটনায়ও কালকিনি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ভুক্তভোগী বিউটি বেগম। ভুক্তভোগীদের দাবি গরু চুরির ঘটনার নেপথ্যে রয়েছে গরুর দালাল ও কসাইদের একটি সিন্ডিকেট। তাদের বিরুদ্ধে গরু চুরির সাথে সম্পৃক্ততার যথেষ্ট  প্রমাণ সংগ্রহ করে দেয়া হয়েছিলো কালকিনি থানা পুলিশের কাছে ।
কিন্তু তার পরেও পুলিশ কোন ব্যাবস্থা নেননি বলে গরু চুরির ঘটনায় যারা জড়িত তাদের অনেকেই এলাকায় এসে থানায় অভিযোগ করায় অভিযোগকারী ও তার পরিবারের লোকজনকে মারধর ও হত্যার হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, এই চক্রের সদস্যরা গত তিন চার বছরে নাজিরপুর, মোল্লারহাট, কয়ারিয়া, সাহেবরামপুর, নতুন আন্ডারচর সহ বিভিন্ন এলাকা থেকে আনুমানিক দুই শতাধিক গরু চুরি করেছে। এছাড়া বরিশাল জেলার বাটামারা ইউনিয়নের সেলিমপুর বাজারে গরুর মাংস বিক্রি হলেও সেখানে গরু জবাই করতে কমই দেখা যায়। এ নিয়ে দির্ঘদিন ধরে জনমনে নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খায়। বিভিন্ন কারনে তাদের কেউ কিছু বলতে পারে না কারণ তাদের পেছনে কোন এক অদৃশ্য  শক্তি কাজ করছে বলে মনে করেন সুধীমহলের অনেকে।
এ ব্যাপারে অভিযোগকারী বিউটি বেগম বলেন, আমি গরু চুরির ঘটনায় কালকিনি থানায় লিখিত অভিযোগ করায় গরু চোর চক্রের মূলহোতা আবুল ফকির, জুয়েল ফকির, রাসেল সিকদার সহ অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা আমাকে ও আমার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে হাত পা ভেঙে ফেলবে এবং হত্যা করে লাশ গুম করার হুমকি দিচ্ছে। গর চুরির বিষয়  কালকিনি থানায় অভিযোগ করলেও, কালকিনি থানা পুলিশের ভুমিকা রহস্য জনক। আমি গরু চুরির বিষয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
চুরির ব্যাপারে কয়ারিয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের সদস্য জাকির ফকির বলেন গরু চুরি আমার এলাকায়   হয়েছে তাই চোরতো তহলে এলাকার। চোরদের সনাক্ত করা হয়েছে এবং মিমাংসা চেষ্টা চলছে।
গরু চুরির  ব্যাপারে জানতে চেয়ে  কালকিনি থানা অফিসার ইনচার্জ  সরকার আবদুল্লাহ আল মামুন এর হাতে থাকা সরকারি মোবাইল ফেনে একাধিক বার কল করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
http://www.anandalokfoundation.com/