ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেলেন যশোরের মেয়র

admin
September 15, 2015 8:05 pm
Link Copied!

যশোর প্রতিনিধিঃ ৩৩ দিন পর কারাগার থেকে জামিন পেয়েছেন যশোর পৌরসভার মেয়র ও নগর বিএনপির সভাপতি মারুফুল ইসলাম।

মঙ্গলবার বেলা ২টা ৩০ মিনিটের দিকে তিনি যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পান। এর আগে গত রোববার একই কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি গোলাম রেজা দুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন, যুগ্ম-সম্পাদক মিজানুর রহমান খান এবং নির্বাহী সদস্য অনিন্দ্য ইসলাম অমিত। মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছেন দলের সদর উপজেলা কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ নূরুন্নবী।

যশোর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু জানান, বেলা আড়াইটার দিকে মেয়র মারুফুল ইসলাম কারাগার থেকে মুক্তি পান। সেখান থেকে তিনি সরাসরি চলে যান বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ও মেয়রের চাচা তরিকুল ইসলামের বাসায়। তরিকুল ইসলামের সঙ্গে কুশলবিনিময় শেষে মেয়র নিজ বাড়িতে ফেরেন। দলের নেতাকর্মীরা বলছেন, মেয়রকে জেলগেটে স্বাগত জানাতে জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি গোলাম রেজা দুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন খোকন, যুগ্ম-সম্পাদক মিজানুর রহমান খান এবং নির্বাহী সদস্য অনিন্দ্য ইসলাম অমিতসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর যশোরে সংঘটিত ঘটনাগুলোর ব্যাপারে বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের নামে যে মামলাগুলো হয়, তার আটটিতে আসামি করা হয় পৌরসভার মেয়র মারুফুল ইসলামকে। এর আগে তৎকালীন মন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীর ধর্ম অবমাননাকর বক্তব্যের প্রতিবাদে প্রেসক্লাবের সামনে জেলা বিএনপি আয়োজিত মানববন্ধনে গুলি চালায় পুলিশ। এ সংক্রান্ত দুটি মামলায়ও আসামি করা হয় মেয়রকে।

২৫ জানুয়ারির পর একের পর এক মামলা হওয়ায় বিএনপির অন্য নেতাদের মতো আত্মগোপনে ছিলেন মারুফুল ইসলাম। এর মধ্যে তিনি হাইকোর্ট থেকে কয়েকটি মামলায় জামিনলাভ করেন। পরে গত মাসের ১৩ তারিখে মেয়রসহ জেলা বিএনপির শীর্ষ নেতারা যশোরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। আদালত তাদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। তখন থেকে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি ছিলেন বিএনপি নেতারা। দলীয় সূত্র জানায়, যশোরের আদালতে পরে একটি ছাড়া সব মামলায় জামিন পান বিএনপি নেতারা। গাড়ি পুড়িয়ে মানুষ হত্যার মামলাটিতেও তারা হাইকোর্ট থেকে গত সপ্তাহে জামিন পান। জামিন সংক্রান্ত কাগজপত্র যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে পৌঁছায় গত রোববার। ওই দিন গোলাম রেজা দুলু, দেলোয়ার হোসেন খোকন, মিজানুর রহমান খান ও অনিন্দ্য ইসলাম অমিত ছাড়া পান। কিন্তু কাগজপত্রে ত্রুটি থাকায় সেদিন কারামুক্ত হতে পারেননি মেয়র মারুফ। আজ হাইকোর্ট থেকে সংশোধিত কাগজপত্র যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে পৌঁছুলে তিনি মুক্তি পান।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাবু জানান, দলের সদর উপজেলা কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ নূরুন্নবীরও সব মামলায় জামিন হয়ে গেছে। কাগজপত্র কারাগারে পৌঁছুলে তিনিও মুক্তি পাবেন। নূরুন্নবী মুক্ত হলে যশোর বিএনপির আর কোনো উল্লেখযোগ্য নেতা কারাগারে থাকবেন না। তবে সোমবার জামিনে মুক্তি পাওয়া জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তফা আমির ফয়সাল ও যুবদল কর্মী আনোয়ার পারভেজকে পুলিশ জেলগেট থেকে আবার আটক করে। তাদের পেন্ডিং মামলায় আদালতের মাধ্যমে ফের কারাগারে পাঠানোর বন্দোবস্ত করছে পুলিশ। মুক্তি পেয়ে বাড়িতে ফিরে মেয়র মারুফুল ইসলাম বলেন, ‘সবার দোয়ায় আমি সুস্থ আছি। সুস্থ থেকে যাতে যশোরের নাগরিকদের সেবা করতে পারি, তার জন্য সবার দোয়া চাই।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বুধবার থেকে পৌরসভায় অফিস করার ইচ্ছা আছে।’

প্রসঙ্গত, নির্বাচিত মেয়র দীর্ঘদিন আত্মগোপনে ও কারাগারে থাকায় যশোর পৌরসভার কার্যক্রমে ব্যাঘাত সৃষ্টি হয়। পৌরসভার বেশিরভাগ কাজে মেয়রের সম্পৃক্ততা রয়েছে। প্যানেল মেয়র শাকিল আহমেদ ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে কাজ চালিয়ে গেলেও পূর্ণ ক্ষমতার অভাবে তিনি গুরুত্বপূর্ণ অনেক সিদ্ধান্ত নিতে পারেননি।

http://www.anandalokfoundation.com/