13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কলেজ ছাত্রীকে তন্নীকে ধর্ষনের পর হত্যা

admin
September 22, 2016 8:31 am
Link Copied!

 উত্তম কুমার পাল হিমেল, নবীগঞ্জ (হবিগঞ্জ)থেকেঃ হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জের বরাক নদী থেকে উদ্ধারকৃত বস্তাবন্দি লাশের পরিচয় মিলেছে কলেজ ছাত্রীকে তন্নীকে ধর্ষনের পর  হত্যা করে নরপশুরা! অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা সন্দেহের তীর কথিত প্রেমিক রানু নামে এক যুবকের দিকে!

নবীগঞ্জ-হবিগঞ্জ সড়কের গরমুলিয়া ব্রীজের নীচে  বরাক নদী থেকে হাত-পা বাধা বস্তাবন্ধি  অবস্থায় উদ্ধারকৃত অজ্ঞাতনামা যুবতীর লাশের পরিচয় পাওয়া গেছে। সে নবীগঞ্জ পৌর এলাকার শিবপাশা শ্যামলী আবাসিক এলাকার বাসিন্দা বিমল রায়ের কলেজ পড়–য়া কন্যা তন্নী রায় (১৮)।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নবীগঞ্জ থানা পুলিশ বস্তাবন্দি অবস্থায় নবীগঞ্জ পৌর শহরের আক্রমপুর এলাকায় গড়মুড়িয়া ব্রীজ  এর নীচে  বরাক নদী থেকে লাশটি উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে আসলে মৃতের কোমড়ে থাকা চাবি দিয়ে ঘরের চোকেসের তালা খোলে সনাক্ত করেন তন্মীর পরিবার। এর আগে লাশে পচন এবং মূখ মন্ডল বিকৃত হওয়ায় তন্মীর পিতা ও ভাই সনাক্ত করতে পারে নি। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতেই তন্নীর পিতা বিমল রায় বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে নবীগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এ ঘটনায় পুলিশ এ পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতারের খবর পাওয়া যায় নি। খবর পেয়ে ওই দিনই রাতে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র।

গতকাল বুধবার মৃতের ময়না তদন্ত শেষে বিকালে জয়নগর শশ্মানঘাটে লাশ দাহ না করে মাটি চাপা দিয়ে রাখা হয়েছে। এদিকে ঘটনার পর থেকেই নিহত তন্মী রায়ের কথিত প্রেমিক রানু রায় ও তার পরিবার ঘা ঢাকা দিয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৭ সেপ্টেম্বর শনিবার দুপুরে নবীগঞ্জ শেরপুর রোডস্থ নানু ভিলা-২ এর ২য় তলায় ইউ,কে আইসিটি কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারের যাওয়ার কথা বলে তন্মী রায় বাসা থেকে বের হয়। নির্ধারিত সময় পার হলেও সে বাসায় ফিরে আসেনি। নিখোজ হয় কলেজ ছাত্রী তন্নী রায়। পরিবারের লোকজন ওই দিন রাতে নবীগঞ্জ থানায় নিখোঁজ সাধারণ ডায়েরী করেন।

তন্নী রায়ের পিতা বিমল রায়ের বাড়ী উপজেলার করগাওঁ ইউনিয়নের পাঞ্জারাই গ্রামে। তিনি র্দীঘদিন ধরে নবীগঞ্জের শিবপাশা শ্যামলী আবাসিক এলাকায় স্ত্রী, এক ছেলে ও নিহত কলেজ পড়–য়া মেয়ে তন্নী কে নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন। তন্মী রায় চলতি বছর এইচএসসি পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে পাশ করে। নিখোজের পর থেকেই তন্মীর পরিবার ছিল চরম উৎকন্ঠা ও আতংকের মধ্যে।

এলাকাবাসী সুত্রে জানাযায়. নবীগঞ্জের জয়নগর এলাকার সবজি বিক্রেতা কানু রায়ের ছেলে রানু রায়ের সাথে তন্নীর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তন্নী নিখোজের পর থেকেই উক্ত রানু রায় লাপাত্তা রয়েছেন বলে জানিয়েছেন প্রতিবেশী সাথী রানী ঘোষ ও শুভা রানী রায়।

 গতকাল বুধবার ওই বাসায় সরজমিনে গেলে এ তথ্য পাওয়া যায়। এ সময় দেখা যায় বাসার ফটকে তালা ঝুলছে। নিহত তন্নীর লাশ উদ্ধারের পর পরই রানু রায়ের পিতা-মাতাও লাপাত্তা রয়েছে।  ধারা করা হচ্ছে, ঘটনাস্থলের আশপাশের কোন এক স্থানে তন্নী রায়কে রেখে ধর্ষন করার পর তাকে হত্যা করে বস্তাবন্দি করে লাশ নদীতে পেলে দেয়া হয়েছে।

 এ ব্যাপারে অফিসার ইনর্চাজ মোঃ বাতেন খান বলেন, বিকালের দিকে মোবাইল ফোনে সংবাদ পেয়ে সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে যান। অনুমান ৩ দিন বা অধিক সময়ের শরীরে ফোলা, পচন ও মূখ মন্ডল বিকৃত অবস্থায় ১৯/২০ বছরের মেয়ের মৃতদেহ দেখতে পেয়ে তার পরিবার-পরিজন ভাই ও বাবার সনাক্তমতে ছুরতহার রির্পোট তৈরীসহ আলামত জব্দ করা হয় এবং ময়না তদন্তের ব্যবস্থা করা হয়। এ সময় মেযেটির নাম তন্মী রায় পিতা বিমল রায়, পৌরসভার শ্যামলী ( ধান সিড়ি ) আ/এ বাসিন্দা ও নবীগঞ্জ ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেছে বলে জানাযায়। উক্ত তন্মী রায় গত ১৭ সেপ্টম্বর দুপুরে ইউ.কে আইসিটি সেন্টারে কম্পিউটার প্রশিক্ষনের কথা বলে বাসা থেকে বের হয়ে আর ফিরে না আসায় তার পিতা থানায় নিখোজঁ সংক্রান্ত জিডি করেন।

উক্ত জিডির প্রেক্ষিতে পুলিশ সকল প্রকার আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহন কালে মঙ্গলবার উল্লেখিত সময় ও স্থান থেকে মৃতদেহ উদ্ধার করেন। তিনি বলেন, এটা একটি নিঃসন্দেহ নির্মম হত্যা কান্ড বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণ করা হচ্ছে। প্রেম সংক্রান্ত ঘটনাকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা সংঘটিত হতে পারে বলেও ধারনা করেন তিনি। থানায় অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে নিহত তন্নীর পিতা বিমল রায় অভিযোগ দিলে রাতেই তা রুজু করা হয়েছে। ওসি বলেন, মামলার তদন্ত ও জড়িতদের গ্রেফতার অভিযার অব্যাহত রয়েছে।

http://www.anandalokfoundation.com/