13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজ সেই ভয়াল ১৩ অক্টোবর সারাদেশে দুর্গাপূজা মণ্ডবে হামলা দিবস

ডেস্ক
October 13, 2022 6:31 am
Link Copied!

আজ সেই ভয়াল ১৩ অক্টোবর সারাদেশে দুর্গামন্দিরে হামলা দিবস। গত বছর ২০২১ সালের ১৩ অক্টোবর কুমিল্লা নানুয়া দীঘির পূজামণ্ডপে  কোরআন রাখা দেখে ‘কুমিল্লা টাইমস ডটকম’ নামের নিউজ পোর্টালে লাইভ প্রচার করে সহিংসতা উস্কে দেয়। এলাকায় উত্তেজনা ছড়ানোর পর অন্তত আটটি মন্দিরে হামলা, ভাংচুর চালানো হয়৷ এরপরই দেশের কয়েক স্থানে সংঘর্ষ এবং পূজামণ্ডপ ও মন্দিরে হামলার ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় সাতজনের মৃত্যু হয়।১৫০ জনের বেশি সংখ্যালঘু আহত হয়েছেন এই ঘটনায়।

১৩ অক্টোবর ২০২১ বুধবার কুমিল্লার কান্দিরপাড় একটি দূর্গাপুজা মন্ডপের গেটে একটি কুচক্রী মহল হনুমান মুর্তির কোলের উপরে কোরান রেখে এবং তা ফেসবুক সহ নান মাধ্যমে প্রচার করে ধর্ম অবমাননার অযুহাতে কুমিল্লা, চাঁদপুর, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালীর হাতিয়া, চাপাইনবাবগঞ্জ সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পুজা মন্ডপ ভাংচুর, অগ্নি সংযোগ, বাড়ীঘরে হামলা, ভাংচুর, মহিলাদের শ্লিলতাহানী, পথে ঘাটে পুজার্থীদের ধাওয়া, পিটিয়ে আহত করে দেশে এক ভয়াবহ নৈরাজ্য সৃষ্টি করছে।

চাঁদপুরে প্রতিমা পাহারারত অবস্থায় সন্ত্রাসীদের হামলায় স্কুল শিক্ষক মানিক সাহাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। সারাদেশে শতাধিক পুজা মন্ডপ ধ্বংস করা হয়েছে। কোথাও কোথাও প্রতিমা রাস্তায় এনে ভাংচুর করে আগুনে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। ঘটনা এতটাই ভয়াবহ ভীতিকর ছিল যে, তা স্মরণাতীতকালের সকল রেকর্ড ভঙ্গ হয়েছে। রাতভর গ্রামের পর গ্রাম হামলা ও ভাংচুর হয়েছে। হিন্দুরা বাড়ী ঘর ফেলে পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়। নারী ও শিশুর আর্তচিৎকারে আকাশ বাতাশ ভাড়ী হয়ে উঠে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান এই ঘটনা মধ্যযুগের বর্বতাকেও হার মানায়।

অর্তীতে ধর্ম অবমানার মিথ্য অযুহাতে নাসিরনগর, রাউজান, ফটিকছড়ি, কক্সবাজার, দিনাজপুর, সাতক্ষীরা, যশোরের অভয়নগর খুলনার শিয়ালী সহ কয়েকডজন ঘটনা ঘটলেও সেসব ঘটনার বিচার হয় নাই, আসামীদের শাস্তি বিধান করা হয় নাই। যে কারনে বার বার এমন ঘটনা ঘটছে।

কি ঘটেছিলঃদুর্গাপূজা মণ্ডবে হামলা দিবস

কুমিল্লার কান্দিরপাড় নানুয়া দীঘির পূজামণ্ডপে ১৩ অক্টোবর রাত আড়াইটা থেকে ভোর ৬টার মধ্যে ইকবাল হোসেন(৩৫) হনুমানের মুর্তির পায়ের নিচে কোরআন রেখে গদা নিয়ে চলে যায়। গদা হাতে তার চলে যাওয়ার দৃশ্যও ধরা পড়েছে ওই এলাকারই কয়েকটি সিসিটিভি ক্যামেরায়।সকাল সাড়ে ৬টার দিকে নানুয়ার দিঘির পাড়ে পূজা দিতে আসা দুজন নারী ভক্ত প্রথম কোরআন শরিফটি দেখতে পান। এ নিয়ে তারা বিস্ময় প্রকাশের সময় ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন ইকরাম হোসেন (৩০) নামে একজন। এ সময় এক ছেলে ছুটে এসে চিৎকার করে বলে, হনুমানের পায়ের কাছে কোরআন, কেউ এখানে থাকবেন না। আর যে কোরআন এখান থেকে সরিয়ে নেবে তার হাত কেটে ফেলা হবে।’ কোরআন রাখা দেখে ‘কুমিল্লা টাইমস ডটকম’ নামের নিউজ পোর্টালে লাইভ প্রচার করে সহিংসতা উস্কে দেয়। এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে দিয়ে সারাদেশে শতাধিক পুজা মন্ডপ ধ্বংস করা হয়েছে। কোথাও কোথাও প্রতিমা রাস্তায় এনে ভাংচুর করে আগুনে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। ঘটনা এতটাই ভয়াবহ ভীতিকর ছিল যে, তা স্মরণাতীতকালের সকল রেকর্ড ভঙ্গ হয়েছে। সেদিনই চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে মন্দিরেপুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হয় পাঁচজন৷ পরের নোয়াখালী, ফেনী, চট্টগ্রাম, কক্সবাজারসহ কয়েকটি জেলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর হামলা হয় এবং নোয়াখালীতে দুজন নিহত হয়৷

কে এই ইকবাল হোসেনঃ

পেশায় রঙমিস্ত্রি ৩৫ বছর বয়সি ইকবালের বাড়ি কুমিল্লা শহরে সুজানগরের খানকা মাজার এলাকার নূর মোহাম্মদ আলমের ছেলে৷ ঘটনার পর ইকবাল কক্সবাজার চলে যান। সেখানে সমুদ্রসৈকতের সুগন্ধা বিচ এলাকা থেকে গত বছরের ২১ অক্টোবর তাঁকে গ্রেপ্তারের পর কুমিল্লায় আনা হয়।কুমিল্লায় পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন রেখে অবমাননার ঘটনায় আলোচিত ইকবাল হোসেন এখন ৩১টি মামলার আসামি। এরই মধ্যে সাইবার ক্রাইম আইনের একটি মামলায় তাঁর এক বছরের সাজাও হয়েছে। বর্তমানে তিনি নোয়াখালী কারাগারে রয়েছেন।

যদিও ইকবালের মা বলেছিল, ইকবাল ১০/১২ বছর ধরে পাগল, মাতাল, ইয়াবা আসক্ত। কিন্তু সিআইডি কুমিল্লা অঞ্চলের পুলিশ সুপার খান মোহাম্মদ রেজওয়ান গত ১ নভেম্বর জানিয়েছে, মণ্ডপে পবিত্র কোরআন রেখে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার মামলার প্রধান আসামি ইকবাল হোসেন পাগল নয় এবং সে ভবঘুরেও নয়।

অন্যতম উস্কানীদাতা ইকরাম হোসেনঃ ইকরাম নগরীর কাশারিপট্টির রিকশাচালক বিল্লাল হোসেনের ছেলে। ইকরাম পাইপ মিস্ত্রির কাজ করেন। তিনিই বুধবার সকালে ঘটনাস্থল থেকে ৯৯৯-এ কল করেন। তারপর ওসি আনওয়ারুল আজিম ঘটনাস্থলে ছুটে যান। তিনি কোরআন শরিফটি উদ্ধারের পাশাপাশি ইকরামকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে থানায় নিয়ে যান।বর্তমানে জামিনে মুক্ত।

লাইভ প্রচারকারী উস্কানী দেওয়া নিউজ পোর্টাল কুমিল্লা টাইমসঃ  ঘটনার দিন নানুয়া দীঘির পাড়ের ঘটনাস্থলে এসে ‘কুমিল্লা টাইমস’ নামের একটি নিউজ পোর্টালে লাইভ প্রচার করে সহিংসতা উস্কে দেয়। এতে ওই নিউজ পোর্টালের সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন শিমুল ও নির্বাহী সম্পাদক ফয়সাল মবিন পলাশের বিরুদ্ধে ১৮ অক্টোবর কোতোয়ালি মডেল থানায় ডিজিটাল সিকিউরিটি এ্যাক্টে মামলা দায়েরের পর তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। তারা জেলার মুরাদনগর উপজেলার বাঙ্গরা বাজার থানার বাঙ্গরা গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে।তারাও জামিনে মুক্ত। পত্রিকা এখনো প্রচার চলছে।

কুমিল্লার সেই মণ্ডপের সভাপতি অচিন্ত্য দাস টিটু বলেন, মামলায় অভিযুক্ত ইকবাল ছাড়া সবাই এখন জামিনে মুক্ত আছেন। প্রকৃত দোষীদের চিহ্নিত করে এখনও বিচারের আওতায় আনা হয়নি।

 দুর্গামন্দিরে হামলা দিবসকুমিল্লায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের অপচেষ্টার ঘটনার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, অপরাধীদের খুঁজে বের করা হবে এবং এমন শাস্তি দিতে হবে ভবিষ্যতে যেন আর কেউ এ ধরনের ঘটনা ঘটানোর সাহস না পায়। গত ১৪ অক্টোবর গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে ঢাকেশ্বরী মন্দির প্রান্ত থেকে ভিডিও কনফারেন্সে গণভবনের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

অর্তীতে ধর্ম অবমানার মিথ্য অযুহাতে কক্সবাজার রামু, নাসিরনগর, রাউজান, ফটিকছড়ি, দিনাজপুর, সাতক্ষীরা, যশোরের অভয়নগর, মানিকগঞ্জ, খুলনার শিয়ালী সহ কয়েকডজন ঘটনা ঘটলেও সেসব ঘটনার বিচার হয় নাই, আসামীদের শাস্তি বিধান করা হয় নাই। যে কারনে বার বার এমন ঘটনা ঘটছে।

http://www.anandalokfoundation.com/