ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ন্যায্য মুল্য চাওয়ায় ধর্ম অবমাননার অভিযোগে ঘোষ মিষ্টান্ন ভাণ্ডার ভাংচুর, মালিক হাজতে

Link Copied!

বরিশালে নাস্তা খাওয়া শেষে বিল দেয়ার সময় ১০ টাকা বেশি রাখার অভিযোগে ভোক্তা ও বিক্রেতার মাঝে বিবাদকে কেন্দ্র করে তুলকালাম কাণ্ড ঘটেছে। বিবাদের এক পর্যায়ে বিক্রেতা, দোকান ম্যানেজার, কর্মচারি ও ভোক্তার মাঝে সৃষ্ট মারামারি ধর্ম অবমাননার অভিযোগ শেষ পর্যন্ত সড়ক অবরোধ, দোকান ভাংচুর ও থানা ঘেরাও পর্যন্ত গিয়ে ঠেকে। মারামারির সময় দাঁড়ি ছিঁড়ে ফেলা হয়েছে অভিযোগ তুললে ঘটে এই তুলকালাম কাণ্ড।

আজ মঙ্গলবার (১০ই জানুয়ারি) বেলা বারোটার দিকে নগরীর লঞ্চঘাট সংলগ্ন এলাকার ঘোষ মিষ্টান্ন ভান্ডারে এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এসময় বিক্ষুব্ধরা সড়ক ও থানা ঘেরাও করে। এ ঘটনায় একজন কে আটক করেছে পুলিশ।

হামলাকারীরা ধর্ম অবমাননা করার মতো অভিযোগও তুলেছে। যতটুকু জানতে পারলাম, ওই এলাকার মোঃ সৌরভ ঢালী নামে হাজী মোহাম্মদ মহসীন মার্কেটের দোকানের এক কর্মচারীর সঙ্গে নাস্তার বিলের ৪০ টাকা বনাম ৩০ টাকা অর্থাৎ অতিরিক্ত  ১০ টাকা দেওয়া-নেওয়া নিয়ে ঘোষ মিষ্টান্ন ভান্ডারের ক্যাশের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তির সঙ্গে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। যা নিয়ে পরবর্তীতে ওই মিষ্টির দোকানের কর্মচারীর সঙ্গে মোঃসৌরভ ঢালীর হাতাহাতি মারামারি হয়। উভয়ের মারামারির সময় একপর্যায়ে  সৌরভ ঢালী তার দাড়িতে আঘাত প্রাপ্ত হন। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে,  স্থানীয়  তৌহিদী জনতার নামে মিছিল সহকারে এসে দাড়ি ছিড়ে ফেলায় ধর্ম অবমাননার অভিযোগ এনে মোঃসৌরভ ঢালীর হয়ে ঘোষ মিষ্টান্ন ভান্ডারে হামলা এবং  ভাংচুর চালানো হয়।

লঞ্চঘাট এলাকায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ মিছিল করেন। বিক্ষোভকারীরা গ্রেফতারকৃত ব্যক্তির কঠোর বিচারের দাবিতে বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানা প্রায় দুই ঘন্টা অবরূদ্ধ করে রাখেন। বিক্ষোভ মিছিলে প্রায় কয়েক শতাধিক জনতা অংশ গ্রহন করেন।

এই ইস্যুতে ঘোষ মিষ্টান্ন ভান্ডা‌রের মা‌লিক ভব‌তোষ ঘোষ ভানুর বক্তব্য হচ্ছে, নাস্তার বিল ৪০ টাকা উনাদের দোকানের তা‌লিকায় লেখা আছে। মোঃ সৌরভ ঢালী নামে ওই ছেলে মিথ্যা কথা ব‌লে তাদের ৩০ টাকা বিল দি‌তে চেয়েছিল। পরবর্তীতে ওই ছে‌লে খারাপ ব্যব‌হার ক‌রে ঘোষ মিষ্টান্ন ভান্ডারের স্টাফদের সঙ্গে। এ নি‌য়ে তর্কাতর্কি হাতাহাতি মারামা‌রি হ‌য়ে‌ছে, ত‌বে তার দা‌ড়ি ছেড়ার মত কো‌নো ঘটনা ঘ‌টে‌নি। নিজের দোষ ঢাকতে ওই যুবকই এমন বিষয় ছড়ানো হয়েছে। আর এই বিষয়টা ছড়িয়ে দোকান ভাঙচুর করা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রত্যাক্ষদর্শী জানান, মোঃ সৌরভ ঢালী প্রতিদিন এই দোকানে নাস্তা খেয়ে থাকে। আজকে নাস্তার বিল ৪০ টাকা না দিয়ে জোড় করে ৩০ টাকা দিতে চায়। আর দোকান কর্মচারী নিতে না চাইলে হাতাহাতি করে মোঃ সৌরভ ঢালী। এক পর্যায়ে তার দাড়িতে হাত লাগে। নিজের দোষ ঢাকতে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তোলে উল্টো দিকে হিন্দু নির্যাতনের পথ নেয়। স্থানীয়রাও বিষয়টি যাচাই না করেই হিন্দু দোকানের উপর ক্ষুব্ধ হয়ে যান। কিছুক্ষণের মধ্যেই দুই শতাধিক ইসলামী জনতা হামলা করে দোকান ভাংচুর করে। পুলিশ এসে কর্মচারীদের উদ্ধার করে। দোকান মালিককে আটক করে নিয়ে যায়।

পুরো পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে থানা পুলিশের দুই সদস্যও আহত হওয়ার মতো ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত দোকান মালিক ভবতোষ ঘোষকে থানা হেফাজতে নেয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যাবস্থা নেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এ বিষয়ে ব‌রিশাল মে‌ট্রোপ‌লিটন পু‌লিশের উপ-ক‌মিশনার (দ‌ক্ষিণ) আলী আশরাফ ভূঞা জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে দোকানের কর্মচারিদের উদ্ধার করে থানায় নেওয়া হয়েছে। আমরা এখনো বিষয়টি খতিয়ে দেখছি।

http://www.anandalokfoundation.com/