ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কেকে ছাড়াও অকাল মৃত্যু যাদের কেড়ে নিয়েছে

Link Copied!

কোনোভাবেই তার এই অকাল চলে যাওয়া মানতে পারছেন না কেউ। তবে, কেবল কেকে নয়, এর আগেও আকস্মিক মৃত্যুতে অকালে চলে গেছেন বিশ্বের আরও বহু জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী।

জন লেনন, কার্ট কোবেইন, মাইকেল জনসন, চেস্টার বেনিংটনের মতো বিশ্বখ্যাত শিল্পীরাও চলে গেছেন বড্ড অসময়ে।

এলভিস প্রিসলি
বলা হয়ে থাকে স্মরণকালের সবচেয়ে জনপ্রিয় রকস্টার। যিনি কিং অফ রক অ্যান্ড রোল নামেই পরিচিত। বিংশ শতাব্দিতে জনপ্রিয়তার তুঙ্গে থাকা এই মার্কিন সংগীত শিল্পীও পৃথিবী ছেড়ে চলে যান বড্ড অসময়ে। ১৯৭৭ সালের ১৬ আগস্ট যুক্তরাষ্ট্রের মেমফিসে নিজ অ্যাপার্টমেন্টের বাথরুমের মেঝেতে পড়ে থাকা অবস্থায় এলভিসের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মাত্র ৪২ বছর বয়সেই সবাইকে ছেড়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান এই রকস্টার। যার মৃত্যু নিয়ে এখনও তার অগণিত ভক্ত-শ্রোতাদের মধ্যে রয়েছে ধোঁয়াশা।

জন লেনন
বিশ্বখ্যাত রক ব্যান্ড বিটলসের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও প্রখ্যাত মার্কিন গীতিকার। যিনি স্বপ্ন দেখেছিলেন এক ধর্ম, এক জাতি, এক পৃথিবীর। প্রায় দুই দশক ধরে জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকা এই মার্কিন শিল্পীরও সৌভাগ্য হয়নি স্বাভাবিক মৃত্যুর। ১৯৮০ সালের ৮ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের ডাকোটায় এক ভক্তকে অটোগ্রাফ দেয়ার সময় ওই ভক্তের গুলিতেই মৃত্যু হয় লেননের। মাত্র ৪০ বছর বয়সেই বিরল এক প্রতিভাকে হারায় বিশ্বের অগণিত সংগীত প্রেমীরা।

কার্ট কোবেইন
আশি ও নব্বই দশকের বিখ্যাত মার্কিন রকব্যান্ড নিরভানার ভোকাল ও ফ্রন্টম্যান। অল্প বয়সেই অগণিত ভক্ত ও শ্রোতার মন জয় করে যিনি পৌঁছেছিলেন জনপ্রিয়তার শীর্ষে। উপহার দিয়েছেন একের পর এক হিট গান। তবে, মাত্রাতিরিক্ত মাদক আর হতাশায় তরুণ বয়সেই আত্মহত্যার পথ বেছে নেন কোবেইন। কয়েকবার ব্যর্থ চেষ্টার পর ১৯৯৪ সালে ৫ এপ্রিল মাত্র ২৭ বছর বয়সে মাদকাসক্ত অবস্থায়  মাত্রাতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা করেন জনপ্রিয় এই মার্কিন শিল্পী। যদিও, মৃত্যুর তিনদিন পর কোবেইনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

মাইকেল জ্যাকসন
স্মরণকালের সবচেয়ে জনপ্রিয় মার্কিন পপশিল্পী। যিনি কিং অব পপ নামেই বিশ্বব্যাপী বেশি পরিচিত। প্রায় তিন দশক ধরে যিনি সংগীত ভূবনে ছিলেন জনপ্রিয়তার তুঙ্গে। নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্যও ক্যারিয়ারের একটা লম্বা সময় ধরে ছিলেন আলোচনা-সামলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে। দীর্ঘ বিরতির পর কথা ছিল আবারও গানে ফেরার। কিন্তু তা আর হয়নি। ২০০৯ সালের ২৫ জুন লস অ্যাঞ্জেলসে নিজ বাসভবনে মাত্রাতিরিক্ত ব্যথানাশক ওষুধ সেবনে ৫০ বছর বয়সেই মৃত্যু হয় কিংবদন্তী এই শিল্পীর। পাড়ি জমান না ফেরার দেশে।

চেস্টার বেনিংটন 
একবিংশ শতাব্দির অন্যতম জনপ্রিয় ব্যান্ড লিংকিন পার্কের ভোকাল। লিংকিন পার্ক মানেই তরুণ প্রজন্মের কাছে যেন এক আবেগের নাম। প্রায় বিশ বছর ধরে সমান তালে নিজেদের জনপ্রিয়তা ধরে রাখা এই ব্যান্ডটির পথচলা হঠাৎই থেমে যায় তাদের ভোকাল চেস্টারের আকস্মিক মৃত্যুতে। প্রচণ্ড হতাশা আর মানসিকভাবে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়া এই মার্কিন শিল্পীও বেছে নেন আত্মহত্যার পথ। ২০১৭ সালের ২০ জুলাই মাত্র ৪১ বছর বয়সেই পাড়ি জমান না ফেরার দেশে।

http://www.anandalokfoundation.com/